শতভাগ অর্থের সংস্থান ॥ পদ্মা সেতু

০ মার্চেই নির্মাণ কাজ শুরু ০ জানুয়ারিতেই অর্থ ছাড় করছে বিশ্বব্যাংক ০ নিজস্ব তহবিলে ২০ কোটি ডলার এবং বিদেশী সহায়তায় ২৯২ কোটি ডলার
শফিকুল ইসলাম জীবন ॥ জানুয়ারি মাসের মধ্যেই পদ্মা সেতুর টাকা ছাড় করার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। ঢাকায় বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর ইলেন গোল্ডেনস্টেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে বিশ্বব্যাংকের এ সিদ্ধান্ত সম্পর্কে নিশ্চিত করেছেন। ফলে মার্চ মাস থেকেই পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হতে পারে বলে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা আশা করছেন। এখন বিশ্বব্যাংক অর্থ ছাড় করার প্রক্রিয়া শুরু করায় পদ্মা সেতু প্রকল্পের শতভাগ অর্থের সংস্থান হয়ে গেল।

এতদিন মূলত বিশ্বব্যাংকের কালক্ষেপণের কারণেই পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজের নির্ধারিত তারিখ কয়েক দফা পিছিয়ে যায়। পদ্মা সেতুর অন্যান্য অর্থ লগি্নকারী বিদেশী উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার মধ্যে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, ইসলামিক উন্নয়ন ব্যাংক, জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) এবং আবুধাবি তহবিলের অংশের অর্থ অনুমোদন দেয়। ফলে একমাত্র বাকি ছিল বিশ্বব্যাংকের টাকা। অন্যদিকে ২৯২ কোটি মার্কিন ডলারের মধ্যে বিশ্বব্যাংক এককভাবে দিচ্ছে ১৫০ কোটি ডলার। তবে বিশ্বব্যাংক এই অর্থ দেবে দুই দফায়। জানুয়ারি মাসে প্রাথমিকভাবে বরাদ্দ দেয়া হবে ১২০ কোটি ডলার। বাকি ৩০ কোটি ডলার দ্বিতীয় পর্যায়ে বরাদ্দ করবে বিশ্বব্যাংক। এডিবি ইতোমধ্যে সাড়ে ৬১ কোটি ডলার, জাইকা ৪০ কোটি ডলার, আইডিবি ১৪ কোটি ডলার, আবুধাবি তহবিল ৪ কোটি ১৪ লাখ ডলার ছাড় করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। পদ্মা সেতু প্রকল্পে সরকার নিজস্ব কোষাগার থেকে ২০ কোটি ডলার সংস্থান করবে।

এতদিন বিশ্বব্যাংক সময়মতো অর্থ ছাড় না করার ফলে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ শুরু করার সময়সূচী নিয়ে সরকারের মধ্যে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। বিশ্বব্যাংকও নতুন করে সমালোচনার মুখে পড়ে। নির্মাণ কাজ আরেক দফা পিছিয়ে জুন মাসে শুরু করা হতে পারে_ সরকারের পক্ষে এমন প্রস্তুতি নেয়া হয়। এমনকি বিশ্বব্যাংক জুন মাসের মধ্যে অর্থ ছাড় না করলে সরকার নিজস্ব তহবিল দিয়ে হলেও এই কাজ শুরু করার চিন্তাভাবনা করছিল। এখন বিশ্বব্যাংকও জানুয়ারি মাসের মধ্যে পদ্মা সেতুর অর্থ ছাড় করার ঘোষণা দেয়ার ফলে মার্চ মাস থেকেই নির্মাণ কাজ শুরু করা সম্ভব হবে বলে সরকারের দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গ মনে করছেন। পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অর্থ প্রদানের অঙ্গীকার সম্পর্কে জানতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রবিবার ঢাকার বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর ইলেন গোল্ডেনস্টেনকে জানতে চান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু সম্পর্কে বিশ্বব্যাংকের সর্বশেষ অবস্থান জানতে চাইলে কান্ট্রি ডিরেক্টর জানুয়ারি মাসের মধ্যে পদ্মা সেতুর অর্থ ছাড় করা হবে বলে ঘোষণা দেন।

২৯২ কোটি মার্কিন ডলারের সম্ভাব্য প্রকল্প ব্যয়ের মধ্যে বিশ্বব্যাংকের ১৫০ কোটি ডলারের অংশ ছাড়া আর সকল অর্থের সংস্থান হয়ে গেছে। এই অর্থ জানুয়ারি মাসের মধ্যেই বিশ্বব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ চূড়ানত্ম অনুমোদন করে বাংলাদেশকে বরাদ্দ করবে। পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজের প্রস্তুতি এবং প্রকল্প নজরদারিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে শুভেচ্ছা জানান বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর হসত্মক্ষেপের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রস্তুতি অনেক এগিয়ে গেছে। কান্ট্রি ডিরেক্টরকে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজে স্বচ্ছতা এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই প্রকল্পের কাজ শেষ করার আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পদ্মা সেতু হলে বদলে যাবে বাংলাদেশের অর্থনীতি। দ্রম্নত প্রবৃদ্ধি ঘটবে জাতীয় উন্নয়নে। দেশের দক্ষিণপূর্ব অঞ্চলের সঙ্গে ঐতিহাসিক সমর্্পক উন্নয়ন ঘটবে দেশের সব ক’টি অঞ্চলের। ২০২০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রে যুগানত্মকারী ভূমিকা রাখবে কোটি কোটি মানুষের প্রত্যাশিত পদ্মা সেতু। সাধারণ মানুষ উন্মুখ হয়ে অপেক্ষা করছে এই স্বপ্নের সফল বাসত্মবায়ন দেখতে।
উন্নয়ন বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, পদ্মা সেতু কেবল দেশের অভ্যনত্মরের মানুষের দৈনন্দিন জীবনকে বদলে দেবে তাই নয়, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সম্পর্ক এবং সারাবিশ্বের সঙ্গে ব্যবসাবাণিজ্য প্রসারের ক্ষেত্রেও সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করবে। বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর পদ্মা সেতুর সফল বাসত্মবায়ন ঘটাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিবিড় তত্ত্বাবধান এবং মনিটরিং কামনা করেন। প্রধানমন্ত্রীও এ ব্যাপারে সজাগ দৃষ্টি রাখবেন বলে বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধিকে আশ্বসত্ম করেন।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের কর্মকর্তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করার আগে কান্ট্রি ডিরেক্টর পদ্মা সেতু এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন করে এসেছেন। তিনি দেখেছেন পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রস্তুতির কাজ পুরোদমে এগিয়ে চলেছে। তবে পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে ১৪ হাজার পরিবারকে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে। তাদের পুনর্বাসনের জমি কেনা হচ্ছে। সেখানে গড়ে উঠছে নতুন নতুন ক্লিনিক, স্কুল এবং হাটবাজার। ক্ষতিগ্রসত্ম পরিবারগুলো ইতোমধ্যে নিজেরাই পুনর্বাসন কার্যক্রম শুরু করে দিয়েছে। তিনি প্রধানমন্ত্রীকে জানান, বিশ্বব্যাংক আনুষ্ঠানিকভাবে পদ্মা সেতু অনুমোদনের আগেই ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর পুনর্বাসনের জন্য জমি ক্রয়সহ অন্যান্য কাজে অর্থায়ন শুরু করেছে। পরিবেশ এবং সামাজিক কর্মসূচীর আওতায় বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতুর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর বাড়িঘর, জমি, পশুপাখি এবং সামাজিক কল্যাণ ও উন্নয়নের জন্য পদ্মা সেতু নির্মাণের মূল অর্থ সহায়তার বাইরে অতিরিক্ত ২২ কোটি মার্কিন ডলার অর্থায়ন করবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply