এক চিলতে বাংলাদেশ

জাপান
রাহমান মনি
বিদেশে নাকি কাক দেখলেও পরিচিত মনে হয়। বড় আপন মনে হয়। আর যদি হয় জাতীয় পতাকা, তাহলে? উত্তর, মনটা খুশিতে ভরে যায়। বিদেশের মাটিতে কোনো প্রতিষ্ঠানে যদি নিজ দেশের জাতীয় পতাকা শোভা পায় তাহলে মনে হয় এ যেন এক চিলতে বাংলাদেশ। তেমনি এক চিলতে বাংলাদেশকে দেখা গেল জাপানের রাজধানী টোকিওর খানিকটা দূরে সমুদ্র, পাহাড়ঘেরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিজুওকা শহরে। বিদেশের মাটিতে ব্যবসা, বিশেষ করে কারি ব্যবসার সঙ্গে বাংলাদেশিরা অনেক আগে থেকেই জড়িত। গ্রেট ব্রিটেনে তো এক টমি মিয়া পুরো বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন। বাংলাদেশের খাদ্য সংস্কৃতিকে পরিচিত করাচ্ছেন। সেখানে বাংলাদেশিরা কারি ব্যবসায়ী পরিচিতি দিতে অনেকটা গর্ববোধ করছেন।

কিন্তু জাপানে বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত কারি ব্যবসার পরিচয় প্রদানটা সম্পূর্ণ ভিন্ন। এখানে সবাই নিজ প্রতিষ্ঠানে নামের আগেই লিখেন ইন্ডিয়ান কারি বা জাপানি ভাষায় ইন্দোকারে। বাংলাদেশের পতাকার বদলে সেখানে শোভা পায় ভারতীয় পতাকা। যদিও কোনো পাকিস্তানি মালিকের প্রতিষ্ঠানে ভারতীয় পতাকা কিংবা কোনো ভারতীয় মালিকের প্রতিষ্ঠানে পাকিস্তানের পতাকা শোভা পাচ্ছে এমনটি দেখার অভিজ্ঞতা আমার ঝুলিতে নেই। অবশ্য আমার অভিজ্ঞতার ঝুলি সমৃদ্ধই বা কতটুকু? তবে এইটুকু নির্দ্বিধায় বলা যায়, যদি থেকেও থাকে তা হিসেবে আসে না। কিন্তু বাংলাদেশিদের প্রতিষ্ঠানে পতাকার ছড়াছড়ি ভূরি ভূরি।

জাপানে অইজঙঔ (অংংড়পরধঃরড়হ ড়ভ ইধহমষধফবংযরং জবংঃধঁৎধহঃ ঙহিবৎ ওহ ঔধঢ়ধহ) নামে বাংলাদেশি রেস্তরাঁ মালিকদের একটি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে ২০০৯ সালে। বাংলাদেশিদের স্বার্থ রক্ষায় বাংলাদেশি মালিকদের দ্বারা পরিচালিত সংগঠন হলেও তাদের প্রত্যেকের প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডটিতে কিন্তু পরিষ্কারভাবে ইন্ডিয়ান ফুড লেখা থাকে। বলতে দ্বিধা নেই তারা যতটা না বাংলাদেশের স্বার্থে সংগঠনটির আত্মপ্রকাশ ঘটিয়েছে তার চেয়ে বেশি স্বার্থ দেখেছে নিজেদের। অর্থাৎ কেবলি ব্যবসা করে মুনাফা অর্জন করার বাবুর্চি ভিসায় কেন লোক আনতে পারছে না এই ব্যাপারে অনেককে সোচ্চার হতে দেখা যায়। বাংলাদেশি ফুড নিয়ে সবাই নিশ্চুপ।

কিন্তু ব্যতিক্রম বলে যে বাংলা অভিধানে একটি শব্দ লিখা আছে এবং তার ব্যবহারিক অর্থও যে রয়েছে তার প্রমাণ দিয়েছেন সিজুওকা শহরে ‘বেঙ্গল স্পাইস’ নামে বাংলাদেশি রেস্তরাঁ করে। রেস্তরাঁটির মালিক নিয়াজ আহমেদ জুয়েল। যিনি একাধারে একজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, আবৃত্তিকার এবং সংগঠক ও সফল উপস্থাপক। প্রবাসীদের প্রিয় এবং পরিচিত মুখ। নরসিংদী জেলার সন্তান নিয়াজ আহমেদ জুয়েল জানান, আমার দেশের নাম, সংস্কৃতি, কৃষ্টি, ঐতিহ্য, খাদ্য সংস্কৃতি আমাকেই পরিচিত করাতে হবে। আমার দেশের সংস্কৃতি যে হাজার বছরের পুরনো এবং সমৃদ্ধ তা যদি আমরা তুলে ধরতে পা পারি তা হলে জাপানিরা আমাদেরকে কোনোদিনই চিনতে পারবে না। আমাদের খাদ্য সংস্কৃতি তুলে ধরার দায়িত্বও আমাদেরই। তিনি বলেন, হাজার রকমের ব্যবসা আছে। কিন্তু নিজ দেশ, সংস্কৃতি এবং খাদ্যাভ্যাসকে একত্রে তুলে ধরতে একমাত্র রেস্তরাঁ ব্যবসাই পারে। তাই আমি এই ব্যবসাকেই প্রাধান্য দিয়েছি। আমার দেশের পতাকা তার প্রমাণ বহন করছে।

সিজুওকা রেল স্টেশনের সন্নিকটে ব্যস্ততম শহরের কোলাহলমুখর জনপদের একটি স্থানে লাল-সবুজ রঙের পতাকাটি জানান দিচ্ছে এই পতাকার পরিচয়দানকারী পৃথিবীর ভূ-খ-ে একটি স্বাধীন দেশ আছে। সেই দেশটির নাম বাংলাদেশ। ‘বেঙ্গল স্পাইস’ যেন জাপানের বুকে এক চিলতে বাংলাদেশ।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#bottom]

Leave a Reply