প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফর এবং বাস্তব অভিজ্ঞতা

রাহমান মনি
সম্প্রতি জাপান সফর করে গেলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে ২০০৬ সালে জাপান সফর করেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। দীর্ঘ সাড়ে চার বছর পর শেখ হাসিনা সফর করলেন। গত ২৮ নবেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

বিভিন্ন কারণেই এবারের সফরটি ছিল খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। সফরের সময়টি ছিল সময়োপযোগী। বিশেষ করে জাপান যখন চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক বিরোধে জড়িয়ে চীন থেকে বিনিয়োগ গুটিয়ে তৃতীয় কোনো দেশ খুঁজছে ঠিক সেই সময় আমাদের প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফর বাংলাদেশে জাপানি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার মোক্ষম সময় বলে বিবেচ্য। যদিও গত এপ্রিল ২০১০ প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফরের ক্ষেত্র তৈরি হয়েছিল এবং শেখ হাসিনার ইচ্ছা মোতাবেক চেরিফুল দেখানোর ব্যবস্থাও করা হয়েছিল। কিন্তু অগ্রগামী দলের সফর নিয়ে সমস্যা দেখা দিলে আপাতত সেই সফর বাতিল হলে মন্দের ভালো হিসেবে বর্তমান সময়টিতে সফরের সঠিক সময় বলে পর্যবেক্ষকমহল মনে করছে।

নব্বই শতকের শুরুর দিকে জাপানে বাবল অর্থনীতির পর প্রায় দেড় যুগ হলো জাপান কোনো ভাবেই অর্থনীতিকে আর চাঙ্গা করতে পারছে না। অভ্যন্তরীণ বাজারে শ্রমের মূল্য বেশি হওয়ায় প্রায় সব বড় কোম্পানি জাপানের বাইরে পণ্য তৈরির দিকে ঝুঁকে পড়ে। পার্শ্ববর্তী দেশ চীনকে এই ক্ষেত্রে প্রাধান্য দেয় বেশি। যদিও মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম প্রভৃতি দেশেও প্রচুর বিনিয়োগ করে জাপান তবুও চীনের ধারে কাছে অন্য দেশগুলো ঘেঁষতে পারেনি। উদীয়মান চীন ক্রমেই অর্থনীতি চাঙ্গা হয়ে এক পর্যায়ে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনৈতিক পরাক্রমশঅলী রাষ্ট্রে পরিণত হয়। দীর্ঘদিন যে স্থানটি জাপান ধরে রাখতে পেরেছিল। জাপান এক ধাপ নেমে বর্তমান তৃতীয় অর্থনৈতিক পরাক্রমশালী দেশ হিসেবে পরিগণিত। বর্তমানে চীনের শ্রম বাজার আগের চেয়ে আরো বেশি ব্যয়বহুল হওয়া এবং একই সঙ্গে দুই দেশের কুটনৈতিক সম্পর্ক অতি সম্প্রতি তিক্ত হয়ে ওঠায় স্বাভাবিকভাবে জাপানি বিনিয়োগকারীরা অপেক্ষাকৃত কম পারিশ্রমিকের বাজার খুঁজতে থাকে। এই সুযোগকে কাজে লাগানোর জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং সম্প্রতি জাপান সফর করেন এবং জাপানি বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করেন। কিন্তু ভারতের শ্রম বাজার তুলনামূলকভাবে বাংলাদেশ থেকে ব্যয়বহুল হওয়ায় সঙ্গত কারণেই বাংলাদেশের জন্য সুযোগ এনে দেয় জাপানি বিনিয়োগকারীদেরকে বাংলাদেশে বিনিয়োগে আকৃষ্ট করার জন্য। সেই বিবেচনায় শেখ হাসিনার সফর ছিল খুবই সময়োপযোগী এবং সঠিক সিদ্ধান্ত। কিন্তু এই সুযোগকে কতটুকু কাজে লাগাতে পেরেছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী?

আপাত দৃষ্টিতে বাংলাদেশের প্রচার মাধ্যমগুলো বিশেষ করে ইলেট্রনিক মিডিয়া দেখলে মনে হয় প্রধানমন্ত্রী জাপান জয় করে দেশে ফিরেছেন এবং এর সুফল খুব শিগগিরই বাংলাদেশ ভোগ করা শুরু করবে। এই বুঝি শুরু হয়ে গেল গেল করছে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে জাপানের সঙ্গে যে কোনো চুক্তি (বিশেষ করে অর্থ সংক্রান্ত) দীর্ঘমেয়াদি এক প্রক্রিয়া। কোনো কিছুর জাপানি বাজার ধরতে হলেও অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়, পেছনে লেগে থাকতে হয়। ম্যারাথন আলোচনা এবং যথেষ্ট শ্রম দিতে হয়। একটি উদাহরণ দেয়া যেতে পারে এই ক্ষেত্রে। ভারতীয় আম জাপানের বাজার ধরতে দুই যুগ সময় লেগেছে। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষায় মাটিতে আর্সেনিকের পরিমাণ সহনীয় পর্যায়ে আনার পর ভারত জাপানের বাজার ধরতে পেরেছে। জাপান বর্তমানে ভারত থেকে আম আমদানি করছে। আগে মেক্সিকো, ফিলিপিন, ইন্দোনেশিয়া থেকে করত।

জাপানে ইলেকট্রনিক এবং প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফর কোনো গুরুত্ব পায়নি। একটি পত্রিকা ৯ নং পাতায় একদিন ছোট্ট একটি সংবাদ প্রকাশ করেছে। এছাড়া জাপানী মিডিয়ায় আর কোনো সংবাদ আসেনি।

প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফরে তাৎক্ষণিক অর্জন পদ্মা সেতুতে অতিরিক্ত একশ মিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি আদায়। এটা কোনো সম্পর্কের গতানুগতিকতা ছাড়া আর কিছুই নয়। তবে এই ১০০ মিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি আদায়ে বাংলাদেশের জনগণকে গুনতে হয়েছে বিশাল বহরের ভ্রমণ ব্যয়ের অংক।

এবার জাপানে শেখ হাসিনার সফরের বিভিন্ন বিষয়ে চোখ বোলানো যাক। ১৬ নবেম্বর ২০১০ জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস রিলিজে বলা হয়… Sheikh Hasina will pay an official working visit to Japan from 28 Nov. to 1st Dec. 2010. জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিশ্চিত করার আগেই বাংলাদেশের বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফর নিয়ে বিস্তারিত অনুমাননির্ভর লেখা শুরু হয়।

২৮ নবেম্বর ২০১০ সফর শুরু
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফ্রাঙ্কফুট থেকে লুফথান্সা বিমানযোগে সকাল ১০.০৫ মিনিটে নারিতা বিমানবন্দরে এসে পৌঁছালে জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এ কে এম মজিবুর রহমান ভূঁইয়া এবং বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত তামাৎসু শিনোৎসুকা (Shintsuka Tamatsu), জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন কর্মকর্তা তাকে অভ্যর্থনা জানান। আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা এই সময় বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন। জাপান সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কোনো কর্মকর্তা, মন্ত্রী কিংবা রাজনৈতিক নেতা বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন না। বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে সফরসঙ্গীদেরসহ মোটরযানে করে সফরকালীন সময় অবস্থান স্থল হোটেল নিউ ওটানিতে নিয়ে যাওয়া হয়।
হোটেলে মধ্যাহ্ন ভোজ এবং কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে টোকিওর চিওদা-কু কিওইচো-তে বাংলাদেশ দূতাবাস ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে এক সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় বিগত সরকারগুলোর সমালোচনা করে বলেন, বিগত সরকারগুলো বিদেশে দূতাবাস স্থাপনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে আবার উদ্যোগ নিয়ে বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশের আরো ১৬টি মিশন স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যার কয়েকটি হবে নিজস্ব ভবন। টোকিও তার মধ্যে একটি। যদিও ২০০৮ সালের ১৬ মে জাপান অর্থ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ দূতাবাসের মধ্যে পাঁচ বছরের কিস্তিতে এক কোটি ডলার সমমূল্যের একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয় এবং সেই সময় বাংলাদেশের রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকার। জমিটির আয়তন ৭১৪ বর্গমিটার।

দূতাবাস ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে এলে শেখ হাসিনা প্রবাসীদের প্রতিবাদের সম্মুখীন হন। এ সময় জাপান শাখা বিএনপি মুখে কালো কাপড় পরে শেখ হাসিনাকে কালো পতাকা প্রদর্শন করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। বিক্ষোভ প্রদর্শনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হলে জাপান পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

২৯ নবেম্বর ২য় দিন

এইদিন শেখ হাসিনা জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সির (জাইকা) চেয়ারম্যানের সঙ্গে সাক্ষাতের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু করেন। জাইকার চেয়ারম্যান সাদাকা ওগাতা প্রধানমন্ত্রীর হোটেল স্যুইটে এসে শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন সকাল ১০.৪৫। ৩০ মিনিট স্থায়ী ছিল তাদের সাক্ষাৎ।

দুপুর ১২টায় জাপান বাংলাদেশ চেম্বাস অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (জেবিসিসিআই) প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে এক মধ্যাহ্ন ভোজের আয়োজন করে। দেড় ঘণ্টাব্যাপী এই ভোজসভায় শেখ হাসিনা বলেন, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বর্তমান অবস্থায় জাপানের সঙ্গে একটি সমন্নিত অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব চুক্তি সই হওয়া প্রয়োজন। এই সময় তিনি বাংলাদেশে অনুকূল পরিবেশে বিদ্যুৎ অবকাঠামো, আইটি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, পরিবহন, টেক্সটাইলের মতো খাতে জাপানি বিনিয়োগকারীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

দুপুর দুইটার সময় প্রধানমন্ত্রী টোকিও কাইকানে এক বিজনেশ সেমিনারে অংশ নেন। বেলা ৩টার সময় জাপান ইন্টারন্যাশনাল ট্রেইনিং কোঅপারেশন অর্গনাইজেশনের (JITCO) প্রেসিডেন্ট সোওতারো টোচিগির সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। টোচিনি প্রধানমন্ত্রীর হোটেল স্যুইটে এসে দেখা করেন। এ সময় তার সঙ্গে বিভিন্ন কোম্পানির প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন। অপরদিকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিপু মনি, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা মশিউর রহমান, এ্যাম্বাসেডর এট লার্জ এস জিয়াউদ্দিন, মুখ্য সচিব এস এ করিম, পররাষ্ট্র সচিব মিজারুল কায়েস প্রমুখ। জিটকো প্রেসিডেন্ট টোচিগি ব্যবসা-বাণিজ্য সংক্রান্ত বাংলাদেশি উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তোলার আগ্রহ ব্যক্ত করেন।

বিকেল ৪.২৫টায় জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেইজি মাএহারা (Seiji Maehara) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হোটেল স্যুইটে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। ৩৪ মিনিটব্যাপী এই সাক্ষাৎকালে প্রধানমন্ত্রী জাপান-বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্য জাপানের জিএসপি সুবিধা লাভের পথ সুগম করতে, রুলস অব অরিজিন শিথিল করতে জাপান সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছেন। মাএহারা বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে তার দেশের অব্যাহত সহযোগিতার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে বলেন, আগামী ২০১২ সালে জাপান-বাংলাদেশ সম্পর্কের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বন্ধুপ্রতিম দুই দেশের সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে।

জাপান-বাংলাদেশ শীর্ষ বৈঠক

২৯ নবেম্বর রাত ৬.২০ মিনিটে জাপানি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় জাপান-বাংলাদেশ আনুষ্ঠানিক শীর্ষ বৈঠক। বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং জাপানের নেতৃত্বে ছিলেন নাওতো কান্। বৈঠকে শেখ হাসিনা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার জন্য জাপানি বিনিয়োগকারীদের উৎসাহিত করতে জাপানের প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়ে বলেন, জাপানের অপেক্ষাকৃত কম লাভজনক কলকারখানা বাংলাদেশে স্থানান্তর করলে একদিকে যেমন কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে তেমনি এ ধরনের বিনিয়োগ দু’দেশের মধ্যে বিদ্যমান বাণিজ্য ঘাটতি হ্রাসেও সাহায্য করবে। পরিসংখ্যানে তিনি বলেন, বাংলাদেশে যেখানে জাপানি রপ্তানির পরিমাণ এক বিলিয়ন ডলারেরও বেশি, সেখানে জাপানে বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানি মাত্র ৩৩০ মিলিয়ন ডলার।

আলোচনা কক্ষে শেখ হাসিনার দলের অপর সদস্য হলেন, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. আলাউদ্দিন, ড. মশিউর রহমান, বিনিয়োগ বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. এস এ সামাদ, এ্যাম্বাসেডর এট লার্জ এম জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব এম এ করিম, ইআরডি সচিব মোশারফ হোসেন ভূঁইয়া প্রমুখ।
বৈঠক শেষে এক যৌথ ইশতেহারে পদ্মা সেতু নির্মাণে প্রয়োজনীয় বাড়তি ব্যয় জোগান জাপান বহন করবে বলে ঘোষণায় জানানো হয়। পদ্মা সেতু নির্মাণে ইতোপূর্বে জাপান ৩০০ মিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিল। নতুন করে আরো একশ মিলিয়ন ডলার যোগ হওয়ায় পদ্মা সেতু নির্মাণে জাপান ৪০০ মিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি দিল। যদিও এই অর্থের পুরোটাই লোন। যা বাংলাদেশকে ফেরত দিতে হবে।

বৈঠক শেষে রাত ৭টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সফরসঙ্গীদের সম্মানে জাপানি প্রধানমন্ত্রী এক ভোজসভার আয়োজন করেন। ভোজসভায় শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে খুব চমৎকার একটি বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ বিরাজ করছে। শ্রমমূল্যও অত্যন্ত কম। আর্থিক মুনাফা অর্জনে বাংলাদেশ এখন এশিয়ার মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে।
জাপানকে পরীক্ষিত এবং উন্নয়ন সহযোগী বন্ধু রাষ্ট্র আখ্যায়িত করে শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় জাপানের ভূমিকা এবং চূড়ান্ত বিজয়ের সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়ে অবকাঠামো তৈরিতে অবদানের কথা বাংলাদেশ কৃতজ্ঞচিত্তে সব সময় স্মরণ করে। সেই বন্ধুত্ব কালের পরিক্রমায় আরো গভীর ও সুদৃঢ় হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।

বিশ্ব রাজনীতিতে বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে উল্লেখ করে ভোজসভায় শেখ হাসিনা বলেন, উভয় দেশই বিশ্ব শান্তি ও নিরাপত্তার প্রতি অঙ্গীকারাবদ্ধ। সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা, পরমাণু অস্ত্র বিস্তার রোধ, ব্যাপক বিধ্বংসী অস্ত্র ধ্বংস, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবিলায় উভয় দেশই দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে আসছে। উভয় দেশই NPT এবং CTBT চুক্তিতে স্বাক্ষরকারী দেশ।

জাতিসংঘের সম্প্রসারিত নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ী সদস্যপদ পেতে জাপানের দাবি আরো জোরালো হবে বলে শেখ হাসিনা উল্লেখ করেন। তিনি আরো বলেন, এ ন্যায্য দাবির প্রতি ইতোমধ্যে বাংলাদেশ সমর্থন ব্যক্ত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী তার সফরকালে জাপান সরকারের পক্ষ থেকে উষ্ণ অভ্যর্থনা ও আতিথেয়তা প্রদানের জন্য জাপান সরকার এবং জাপানি জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এর মাধ্যমে দুই দেশের এবং জনগণের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্কের গভীরতা এবং আন্তরিকতারই বহির্প্রকাশ ঘটেছে।

৩০ নবেম্বর সফরের তৃতীয় দিন

জাপান সফরের তৃতীয় দিনে সকাল ৯.৫০টায় হিরোশিমার উদ্দেশ্যে হানেদা বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। পুরোদিনই টোকিওর বাইরে ছিলেন এবং রাত ৯.২৫-এ হানেদায় ফিরে আসেন। হিরোশিমাতে প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ব্যবহৃত পারমাণবিক বোমার আঘাতে ক্ষতবিক্ষত এবং বীভৎস্যতার সাক্ষী স্থানটি পরিদর্শন করে নগরের বিভিন্ন স্মৃতিচিহ্ন দেখেন, ঘটনার প্রত্যক্ষ সাক্ষী জাপানি নাগরিকের মুখে বিভীষিকাময় দিনের কথা শুনেন এবং পরিদর্শন বইয়ে স্বাক্ষর করেন। শেখ হাসিনা হিরোশিমা পিস মেমোরিয়াল মিউজিয়াম পরিদর্শন করে পারমাণবিক বোমায় নিহতদের প্রতিশ্রদ্ধা জানিয়ে স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

প্রধনমন্ত্রী হিরোশিমা আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাপান-বাংলাদেশ মৈত্রী সমিতি এবং হিরোশিমা শান্তি ও সংস্কৃতি ফাউণ্ডেশন আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, হিরোশিমা থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে কিভাবে বর্তমান বিশ্বকে রক্ষা করা যায়। তিনি বিশ্বনেতাদের প্রতি বৈশ্বিক শান্তির জন্য ঘনিষ্ঠভাবে অবিচল কাজ করার আহ্বান জানান।

পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত বিশ্ব গড়তে জাপানের প্রতি বাংলাদেশের অবিচল সমর্থন করে শেখ হাসিনা বলেন, পরমাণু অস্ত্রমুক্ত বিশ্ব গড়ার চূড়ান্ত লক্ষ্যে বাংলাদেশ বিশেষ বিশেষ অঞ্চলে পরমাণু অস্ত্রের মজুদ হ্রাসে জাপানের সঙ্গে কাজ করতে সদা প্রস্তুত রয়েছে। তিনি আরো বলেন, তার সরকার মানবাধিকার গণতন্ত্র ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে জাপানকে সমর্থন করে কেননা এসব ইস্যু উপেক্ষা করে সংঘাত ও যুদ্ধ এড়ানো সম্ভব নয়।

বিকেল পৌনে চারটায় বুলেট ট্রেনে চড়ে শেখ হাসিনা ওসাকা যান। হোটেল নিউ ওটানি ওসাকাতে তিনি প্রবাসী বাংলাদেশি এবং স্থানীয় জাপানিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ সময় তাদেরকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

১ ডিসেম্বর সফরের শেষ দিন
সফরের শেষ দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপানের সম্রাট আকিহিতোর সঙ্গে সাক্ষাতে মিলিত হন। সকাল ১০.৩০ থেকে ১০.৫০ (২০ মিনিটব্যাপী) সৌজন্য সাক্ষাতে শেখ হাসিনা ১৯৭৫ সালে বর্তমান সম্রাট তৎকালীন যুবরাজ হিসেবে বাংলাদেশ সফরের কথা স্মরণ করিয়ে দেন এবং তার সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। এদিন সকাল ১১.৩০ হোটেল নিউ ওটানিতে জাপান বাংলাদেশ পার্লামেন্টারিয়ান লীগের এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। দুপুর ২.৩০ মিনিটে জাপান এক্সটারনেল ট্রেড অর্গানাইজেশন (ঔবঃৎড়)-এর চেয়ারম্যান মি. হায়াশি হোটেল নিউ ওটানিতে প্রধানমন্ত্রী স্যুইটে দেখা করে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। রাত ৮টায় নাগরিক সংবর্ধনায় অংশ নিয়ে চারদিনব্যাপী জাপান সফরের সমাপ্তি টানেন। ২ ডিসেম্বর সকালে বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে নারিতা বিমানবন্দর ত্যাগ করেন।

সফরের টুকিটাকি

অবহেলিত প্রবাসী : ২৮ নবেম্বর টোকিওতে বাংলাদেশ দূতাবাসের ভিত্তিপ্রস্তুর স্থাপনে প্রবাসীদের সম্পৃক্ততা হয়নি। দূতাবাস কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী এবং হাতে গোনা ২০-২৫ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ছাড়া অন্যদের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ ছিল। এমনকি একজন স্থানীয় অন্যান্য মিডিয়া কর্মীদেরও ডাকা হয়নি। যদিও জাপান পুলিশ প্রশাসন মিডিয়াকর্মী পরিচয়দানকারীদের বাধা দেয়নি। তাই মিডিয়া কর্মীদের অনেকেই যেতে পেরেছেন।

প্রবাসীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দূতাবাস প্রবাসীদের কল্যাণে। সফরসঙ্গী কিংবা দূতাবাস কর্মকর্তারা আজ আছেন কাল নেই। দূতাবাসের ভিত্তিপ্রস্তুর স্থাপন হবে, করবেন প্রধানমন্ত্রী অথচ প্রবাসীদের ডাকা হবে না- এটা মেনে নেয়া যায় না। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে কিছু বাধ্যবাধকতা, অর্থাভাব, স্থান সংকুলন, দলীয় সংকীর্ণতা সর্বোপরি হীন্যম্মনতা কাজ করলেও দূতাবাস ভিত্তিপ্রস্তুর অনুষ্ঠানটি উন্মুক্ত স্থানে হওয়ায় প্রবাসীদের বিশেষ করে সমাজে সব আয়োজনেই যাদের অবদান এবং অংশগ্রহণ থাকে তাদের ডাকা উচিত ছিল বলে প্রবাসীরা মনে করেন।

সেতু বন্ধনের সেতু: আওয়ামী লীগ সরকারের সরকারপ্রধান এই পর্যন্ত তিনবার জাপান সফর করেন। তার মধ্যে ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধু প্রথম সফর করেন। সেই সময় তিনি যমুনা সেতুর অর্থায়নে জাপানি সহযোগিতা চেয়েছিলেন। এর পর শেখ হাসিনা প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হলে দ্বিতীয় ব্যক্তি হিসেবে জাপান সফর করেন এবং রূপসা সেতু নির্মাণে জাপান সরকারের সহায়তা চান। এবার দ্বিতীয় এবং আওয়ামী সরকারপ্রধান হিসেবে তৃতীয় সফরে পদ্মা সেতু নির্মাণে জাপান সরকারের সহযোগিতা চান। তিনটি সফরেই তিনটি সেতুর অর্থের যোগানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে বাংলাদেশে সেতু তৈরিতে কাজ করে জাপান-বাংলাদেশ সম্পর্ক উন্নয়নে সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করেছে।

দূতাবাসে আওয়ামী নেতার হস্তক্ষেপ: প্রথা অনুযায়ী বাংলাদেশের জাতীয় দিবসগুলোর আয়োজনে এবং বাংলাদেশের সরকারপ্রধান জাপান সফরের নাগরিক সংবর্ধনা আয়োজনে দূতাবাস কর্তৃপক্ষ প্রবাসী সমাজে যাদের বিভিন্ন অবদান, সামাজিক-সাংস্কৃতিক নেতৃবৃন্দ, ব্যবসায়িক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় মিডিয়া কর্মী এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিদের ফ্যাক্স বার্তার মাধ্যমে ইনফর্ম করে থাকেন। কোনো ব্যর্তয় ঘটেনি। এবারই প্রথম তার ব্যতিক্রম ঘটল। প্রবাসীদের দাওয়াত দেয়ার জন্য আওয়ামী লীগ নেতা কাজী মাহফুজ লাল দূতাবাস থেকে তালিকা সংগ্রহ করে নিজ ঘরানার এবং ব্যক্তিগত পছন্দের লোকদের ছাড়া অন্য কাউকে জানানো প্রয়োজন মনে করেননি।

ক্ষোভের সঞ্চার খোদ আওয়ামী লীগেই: নাগরিক সংবর্ধনার নামে যে হ-য-ব-র-ল অনুষ্ঠান হয়েছে তাতে করে খোদ আওয়ামী লীগেই ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। টেলিফোনে একাধিক নেতা এই প্রতিবেদককে তাদের ক্ষোভের কথা জানিয়েছেন। তারা বলেন, ব্যক্তির দায়ভার দল কেন বহন করবে? দাওয়াত পেয়েও অনেক আওয়ামী কর্মীও হলে প্রবেশ করতে পারেননি। সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হলে প্রবেশ করতে পারেননি প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ। ৪২ সদস্যের মধ্যে মাত্র ৫/৬ জন হলে প্রবেশের সুযোগ পেয়েছেন। বাকিরা বাধ্য হয়ে ফেরত গিয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২/৪ জন নেতার স্বেচ্ছাচারিতায় এমনটি হয়েছে। অনুসন্ধানে জানা যায় দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের পছন্দের লোক দাওয়াত না পেলেও প্রথম এসে হলে ঢোকে। আসন দখল করে রাখে। একজন নেতা তার ছেলেকে ভিআইপি আসনে বসিয়েছে। একজন দাওয়াত পেয়ে বউ, বাচ্চা, দোকানের কর্মচারী এমনকি শাশুড়িকে নিয়ে আসন দখলের মতো ঘটনাও ঘটেছে। তাই প্রকৃত দাওয়াত প্রাপ্তরা আসন শূন্যতায় হলে প্রবেশ করতে পারেনি।

একই ঘটনা ঘটেছে আপ্যায়নেও। লোক সমাগমের তুলনায় খাবারের আয়োজনও ছিল খুবই অপ্রতুল। খাবারের স্বল্পতায় বেশিরভাগ লোকই না খেয়ে ফিরে যেতে বাধ্য হয়। খাবারের মেন্যুতেও দেশীয় খাবারের কিংবা ডিনার সাড়ার মতো কোনো মেন্যু ছিল না। অথচ যথেষ্ট অর্থের যোগান দেয়া হয়েছিল ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে। অনেকেরই প্রশ্ন ঐ অর্থ কোথায় ব্যয় হলো?

প্রবাসীদের প্রত্যাশা: বাংলাদেশ থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ, পদস্থ কর্মকর্তা কিংবা সরকারপ্রধান সফর করে থাকেন। কিছু কিছু ব্যক্তি আছেন যারা দুই বা ততোধিক লোক সমাগম দেখলেই বক্তৃতা দেয়ার জন্য উদগ্রীব হয়ে ওঠেন। আবার কোনো কোনো নেতা আছেন প্রবাসকেও পল্টন ময়দান মনে করে অনাকাক্সিক্ষত কথা বলে বসেন। নেতৃবৃন্দের বুঝতে হবে প্রবাসীরা নেতাদের কাছ থেকে দেশকে কিভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়া যায়, কিভাবে রেমিট্যান্স পাঠানো পদ্ধতি সহজতর এবং দ্রুত করা যায় স্বল্প খরচে, প্রবাসীদের ভোটাধিকার প্রয়োগে কি কি পদক্ষেপ নেয়া যায়, কিভাবে বাংলাদেশে প্রবাসীদের ভ্রমণ নির্বিঘœ করা যায়, বিমানবন্দরে হয়রানি বন্ধে তারা কি কি উদ্যোগ নিয়েছেন, যানজট নিরসনে তাদের পরিকল্পনা কি, গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির শৈল্পিক চাহিদাগুলোর যোগান কিভাবে দেবে, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের গতি কিভাবে ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখা যায় এ জন্য কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ এবং কার্যকর করা ইত্যাদি বিষয়ে জানতে চায়।
বর্তমানের আন্তর্জালের সুবিধায় প্রবাসীরা মুহূর্তের মধ্যে দেশসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো জেনে যায়। প্রবাসীদের চোখ অনেকটা পাখির চোখের সঙ্গে তুলনা করা যায় এই কারণে যে, প্রবাসীরা একাধিক পত্রিকা পড়ে, ঘনিষ্ঠদের কাছ থেকে জেনে, টেলিফোনে কথা বলে এবং অন্যদের সঙ্গে তুলনা করে নিজের মতো করে তৈরি করে দেখতে পায়। তাছাড়া দেশের সঙ্গে প্রবাসীদের যোগাযোগ সর্বদাই হয়ে থাকে। কাজেই নেতারা প্রবাসে এসে যা বলে যান এবং প্রবাসীরা তা বিশ্বাস করে এমনটি ভাববার অবকাশ নেই। একান্ত বাধ্যগতরা হাততালি দিয়ে ক্ষণিকের উত্তেজনা হয়ত প্রশমিত করে কিন্তু বৃহদাংশ মনের অগোচরেই গালাগালি ছাড়া আর কিছুই করে না। তাই নেতাকর্মীদের প্রতি আবেদন তারা যেন প্রবাসে বক্তৃতায় বাক্য ব্যয়ে আরো বেশি সংযম হন এবং সতর্কতা অবলম্বন করেন।

সবশেষে প্রবাসেও দলীয় নেতাদের (অযাচিত) লাগাম টেনে ধরা উচিত। নয়ত খেসারত দলকেই বহন করতে হবে। ২০০৬ সালেও যিনি শহীদ জিয়ার ১৯ দফা মুখস্ত করে বেগম জিয়ার জাপান সফরের সময় তার পাশে বসায় আত্মতৃপ্তিতে শাড়ির আঁচলের ফাক থেকে বকের মতো গলা বাড়িয়ে ছবি তোলায় আত্মতৃপ্তিতে সন্তুষ্ট থাকতে দেখা গেছে সেই একই ব্যক্তি ৫ বছরের ব্যবধানে ভোল পাল্টিয়ে নতুন স্যুট পরে নতুন উদ্যোগে শেখ হাসিনার কাছে যাওয়ায় আত্মতৃপ্তি সাধারণ প্রবাসীরা সন্দেহের চোখে দেখে। এসব সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে দল এবং দেশ বাঁচানোর দাবি উঠেছে সাধারণ প্রবাসীদের মধ্য থেকে।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#bottom]

Leave a Reply