অনিয়মের ছবি তুললে সাংবাদিকের উপর চড়াও হয় টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. আমজাদ হোসেন

গতকাল বুধবার টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের দাঁড় করিয়ে রেখে ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধির সাথে একান্ত আলাপচারিতার দৃশ্যটি ক্যামেরা বন্দি করায় দৈনিক জনতার টঙ্গীবাড়ী প্রতিনিধির ডি.এম. আরাফাত মুন্নার উপর চওড়া হয় টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আমজাদ হোসেন।

সরজমিনে দেখা যায়, ঘটনারদিন ডা. আমজাদ হোসেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির বিভাগের ৮নং কক্ষে দায়িত্বরত ছিলেন। দুপুর ১২টার দিকে ২জন রোগী তার কক্ষে প্রবেশ করে। এ সময় তিনি রোগীদেরকে গুরুত্ব না দিয়ে ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধির সাথে আলাপচারিতায় মোশগুল থাকেন। এ সময় সাংবাদিক আরাফাত মুন্না দৃশ্যটি ক্যামেরা বন্দি করলে ডা. আমজাদ হোসেন তার পরিচয় জানতে চাইলে সে তার পরিচয় দেয়। সে সাংবাদিক পরিচয় দেওয়ার পর আমজাদ হোসেন তার উপর ক্ষেপে যায় এবং বাজে কথা বলতে থাকে।

পরে তার চেচামেচির শব্দ পেয়ে বাহিরে অবস্থানরত দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার টঙ্গীবাড়ীর সংবাদদাতা শামীম বেপারী ও দৈনিক মানব কন্ঠের টঙ্গীবাড়ী সংবাদদাতা ফিরোজ আলম ভিতরে প্রবেশ করে। সাংবাদিকদ্বয় ভিতরে প্রবেশ করলে আমজাদ হোসেন আরও ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের উপর চওড়া হয় ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। সে বলে, আইএমএ বিসিএস ক্যাডার, যা পার করো। সে সাংবাদিকদের কাছে পরিচয় পত্র দেখতে যায়। পরিচয় পত্র দেখানোর পরেও সে বলে তোমরাকি এখানে চিটিংবাজি করতে এসেছ সহ বিভিন্ন প্রকার অপমানজনক কথা বলে সাংবাদিকদের রোম থেকে বের হয়ে যেতে বলে। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্যকর্মকর্তা ডা. মঞ্জুরুল করিমকে বহুবার মোবাইলে ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

[ad#bottom]

Leave a Reply