মিরকাদিম পৌরসভায় নির্বাচনী ঝড়ো হাওয়া বইছে

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ থেকে: মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার ব্যবসায়িক জনপদ মিরকাদিম পৌরসভা। আগামী ১৭ জানুয়ারি এ পৌরসভার নির্বাচন অনুস্টিত হবে। আর সেই লক্ষে এ জনপদে নির্বাচনী ঝড়ো হাওয়া বইছে। তীব্র শীত উপেক্ষা করে প্রার্থিরা ভোট প্রার্থনায় ভোটাদের ঘরে ঘরে ঘুরে ফিরছেন। ভোটারদের মন জয় করতে প্রার্থিরা ব্যস্ত দিন কাটাচ্ছেন। মিরকাদিম পৌরসভায় দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচন অনুস্টিত হতে যাচ্ছে।

মিরকাদিম পৌরসভায় মেয়র পদে ৬জন প্রার্থি প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তারা হচ্ছেন বর্তমান মেয়র মোহাম্মদ হোসেন রেনু। তার প্রতিক হচ্ছে দেয়াল ঘড়ি। মিজানুর রহমান মিজান। তার প্রতিক হচ্ছে তালা। হাফিজুল্লাহ মন্টু মাস্টার। তার প্রতিক হচ্ছে টেলিভিশন। মো. ফারুক মোল্লা। তার প্রতিক হচ্ছে আনারস। সহিদুল ইসলাম শাহিন। তার প্রতিক হচ্ছে টেলিফোন। হাজি আবদুল সালাম। তার প্রতিক হচ্ছে দোয়াত কলম।

এ পৌরসভায় ত্রিমুখি প্রতিদ্বন্ধিতা হবে। বর্তমান মেয়র মোহাম্মদ হোসেন রেনু এ নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে ভোটাররা আশংকা করছেন।

চারদলীয় বিএনপির সরকারের সময় মিরকাদিম পৌরসভার প্রথম নির্বাচনকে সামনে রেখে হাফিজুল্লাহ মন্টু মাস্টার এরশাদের জাপা ছেড়ে বিএনপিতে যোগ দেন। কিন্তু সেই নির্বাচনে সাবেক তথ্য মন্ত্রি এম. শামসুল ইসলাম মোহাম্মদ হোসেন রেনুকে সমর্থন করেন। এই কারণে নির্বাচনী শেষ শোডাউনের সময় মোহাম্মদ হোসেন রেনু আনোয়ার হোসেন মনজুর জাপা ছেড়ে বিএনপিতে যোগদেন। এর ফলে সেই নির্বাচনে মোহাম্মদ হোসেন রেনু বিজয়ী হন।

নির্বাচনের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে ২০০৭ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি এম. ইদ্রিস আলীর পক্ষে হাফিজুল্লাহ মন্টু মাস্টার কাজ করেন। সেই কারণে এম. ইদ্রিস আলী এবারের পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে হাফিজুল্লাহ মন্টু মাস্টারকে সমর্থন করছেন। এর ফলে এখানে আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। মিরকাদিম পৌর আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীরা মহাজোটের প্রার্থি হিসেবে ব্যবসায়ি হাজি আবদুল সালামকে সমর্থন দিয়েছেন। এমপির প্রার্থিকে উপক্ষো করে যদি আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা একজোট হয়ে মহাজোটের প্রার্থি হাজি আবদুল সালামের পক্ষে কাজ করে তবে তার বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি এ নির্বাচনে নতুন মুখ।

মিরকাদিম পৌরসভা পূর্বে রিকাবীবাজার ইউনিয়ন ছিল। সেই ইউনিয়ন থাকা অবস্থায় থেকে এখানে একাধিবার হাফিজুল্লাহ মন্টু মাস্টার নির্বাচনে অংশ নেন। কিন্তু নিয়তি তার পক্ষে কাজ না করায় তিনি বিজয়ী হতে পারেননি। এমপির আর্শিবাদে এবার তিনি নির্বাচনী লড়াইয়ে মাঠে নেমেছেন। তবে তার এলাকার পূর্বপাড়ার ভোট ব্যাংকে আরেকজন মেয়র প্রার্থি হওয়ায় তিনি বেকাদায় রয়েছেন। নানা কারণে এ নির্বাচনে তার বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা কম বলে ভোটাররা আশংকা করছেন।

পৌর বিএনপির সভাপতি জসিমউদ্দিন এর ছোট ভাই মিজানুর রহমান মিজান। বড় ভাই বিএনপি করলেও মিজানের ওঠা বসা মুলত আওয়ামী ঘরনার লোকজনের সাথে। সে কারণে তার ব্যক্তিগত ইমেজের কারণে যদি আওয়ামী ভোট ব্যাংক থেকে ভোট পেয়ে যান তবে মহাজোটের প্রার্থির বিপর্যয় ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। আওয়ামীলীগের অনেক লুজ ভোটার ঝুকে আছেন মিজানের দিকে। এদিকে বড় ভাইয়ের ইমেজের কারণে ভোট প্রাপ্তির পথ সুগম হলে তার বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বিএনপি দাবি করছে বিএনপির প্রার্থি সে। তরুণ এ প্রার্থি এ নির্বাচনে নতুন মুখ।

তরুণ ও নতুন মুখের প্রার্থি হচ্ছেন সহিদুল ইসলাম শাহিন। তিনি বাংলাদেশ বিকল্পধারার রাজনীতির সাথে জড়িত। হাফিজুল্লাহ মন্টু মাস্টার এর গ্রাম পূর্বপাড়া থেকে শাহিন এবার নির্বাচন করছেন। এ কারণে শাহিন মাস্টারের ভোট ব্যাংকে ভাগ বসাছেন। নানা কারণে এখানে শাহিন মিজানের মধ্যে হাড্ডহাড্ডি লড়াই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
মিরকাদিম পৌরসভার সর্ব পূর্ব থেকে এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধি করছেন বর্তমান মেয়র মোহাম্মদ হোসেন রেনূ। তিনি বিএনপির একক প্রার্থি হিসেবে প্রচার করছেন। জসিমের কারণে তিনি বিএনপির ভোট ব্যাংক থেকে এবার ভোট নাও পেতে পারেন। চেয়ারে থাকা অবস্থায় সকলকে খুশি করা সম্ভব না। তাই ব্যক্তিগত ইমেজে বেশি ভোট টানা সম্ভব না।

[ad#bottom]

Leave a Reply