পালকিতে নববধূ পেখমমেলা ময়ূর, মাসকট হাতি

মুন্সীগঞ্জে বিশ্বকাপ রোড শোর বর্ণিল আয়োজন
মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ থেকে: কুয়াশার চাদর কেটে সূর্যের সোনা রোদ উঁকি দিতেই মুন্সীগঞ্জের রাজপথে হাজারো মানুষের একসঙ্গে পথচলা। বর্ণিল সাজের এই মানুষগুলো হেঁটে যতই এগিয়ে চলছিল, ততই বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠছিল শহরের পথগুলো। ‘বাংলাদেশ বাংলাদেশ’ স্লোগানে অংশগ্রহণকারী শিশু থেকে বৃদ্ধ সব বয়সী নারী-পুরুষের চেহারায় যেন সম্ভাবনার চেতনা। হলুদ শাড়ি পরে কলসি কাখে নিয়ে এগিয়ে চলছে নারীরা। পালকিতে নববধূর শ্বশুরবাড়ি যান। পালকি কাঁধে লোকগুলোর মুখে ‘বোল বোলা বোল বোলরে… আল্লাহ বোলরে…।’ তাও একটি নয়, দুটো পালকি, দু’রকমের সাজে। বিশাল আকারের দোয়েল পাখি গাছ ছেড়ে ঠাঁই করে নেয় মানুষের এই মিছিলে। বাদ যায়নি ময়ূরও। পেখম মেলে ময়ূর ছড়িয়ে দিয়েছে তার সৌন্দর্য। বিশাল এই প্রতীকীগুলোর পাশে গ্রামীণ নানা সাজে সেজেছিল তরুণীরা। কুলা হাতে তুলে নারীদের সারি সারি হেঁটে চলা। বাদ্যের তালে তালে বর্ণিল সাজে নৃত্য শিল্পীদের এগিয়ে চলায়ও ছিল রংয়ে রংয়ে রাঙিয়ে তোলার ছন্দ। বড় বড় ক্রিকেট ব্যাট, বল, স্ট্যাম্প শোভা পায় এতে। বাদ যায়নি মুন্সীগঞ্জের অর্থনীতির মূল ভিত্তি আলু। চার ফুট উচ্চতায় এবং ১১ ফুট লম্বা এক প্রতীকী আলু ছিল অসংখ্য মানুষের এই ভিড়ে। এই বর্ণিল মিছিলের প্রথমেই ছিল ঘোড়ার গাড়ি। এই গাড়িতে ব্যাটবল নিয়ে ক্ষুদে ক্রিকেটার আর গ্রামীণ নানা সাজে শিশুরা অবস্থান নেয়। হাতির সাজে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের মাসকটও সচল ছিল রাজপথে। সাজানো গোছানো বর্ণাঢ্য এই অঞ্চলের স্মরণকালের সবচেয়ে বড় এই আয়োজনটিই হচ্ছে_ মুন্সীগঞ্জে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের রোড শো। ‘বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১১’ লেখা ব্যানার ছিল ১১ হলুদ শাড়ি পরা স্কুলছাত্রীর হাতে। শনিবারের এই আয়োজনের এটিই ছিল মূল ব্যানার। না দেখলে বিশ্বাস করা যাবে না মফস্বল শহর মুন্সীগঞ্জের এই রোড শো’টি ছিল কত প্রাণবনত্ম। তাই রাসত্মার দু’পাশে বিশ্বকাপের লোগো ও মাসকটের ছোট ছোট পতাকা নিয়ে রোড শোকে অভ্যর্থনা জানানোর সময় বাসাবাড়ি থেকে রাসত্মায় বেরিয়ে এসে হাত নেরে অভিবাদন জানায় নারী-পুরম্নষ। পিপিআই রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মেজর ইয়ার মোঃ মোর্শেদ আলম জানান, আমার বাড়ি গাজীপুরে। আর সেনাবাহিনীতে চাকরি করার সুবাদে দেশ বিদেশের অনেক জায়গা ও অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছি। এটি আমার সবচেয়ে ভাললাগার একটি অনুষ্ঠান হিসেবে জীবনে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।


সকালে কালেক্টরেট মাঠ থেকে পুরো শহর হয়ে ধলেশ্বরী তীরের কাছের রেড ক্রিসেন্ট চত্বর ঘুরে জুবিলী রোড হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমী চত্বর দিয়ে ঢুকে পড়ে স্টেডিয়ামে। মাঠের মাঝখানের সুদৃশ্য মঞ্চ ছিল বিশ্বকাপ ক্রিকেটের লোগো দিয়ে তৈরি। এই মঞ্চে ‘ক্যাচ বাংলাদেশ ক্যাচ’ লেখা ক্রিকেট ব্যাট বেলুনসহ উড়িয়ে দিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আলহাজ মমতাজ বেগম এমপি উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ আজিজুল আলম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ দফতর সম্পাদক এ্যাডভোকেট মৃণাল কানত্মি দাস, পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম ও জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি শারমীন আলম প্রমুখ।

মুন্সীগঞ্জ স্টেডিয়ামে পিপিআই রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজ ‘উড়িতেছে ধূলি, ফুলিতেছে জল…, জন্ম আমার ধন্য হলো মাগো…, একটি বাংলাদেশ তুমি জাগ্রত জনতার…, সোনা সোনা সোনা লোকে বলে সোনা, সোনা নয় তত খাঁটি তার চেয়ে খাঁটি আমার বাংলাদেশের মাটি’ গানের সঙ্গে ডিসপেস্ন করে তাক লাগিয়ে দেয় হাজার হাজার দর্শককে। কানায় কানায় ভর্তি স্টেডিয়াম ছাড়াও গ্যালারিতে ছিল অসংখ্য মানুষ।

এর পরে মাসকট হাজির হয় মঞ্চে। হাতির এই মাসকটের সামনে প্রধান অতিথি আলহাজ মমতাজ এমপিকে বল তুলে দেন অনুষ্ঠানের সভাপতি মোঃ আজিজুল আলম। পরে মঞ্চ থেকে নেমে এসে অতিথিরা ব্যাট_বল নিয়ে ক্যাচ তুলে দেন। অনেকেই ক্যাচ ধরে পুরস্কার লাভ করেন।

এর পরই হাজার হাজার দর্শকের মাঝে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর নৃত্যশিল্পী এবং খ্যাতনামা অভিনেতা টেলি সামাদ, চ্যানেল আইয়ের সেরাকণ্ঠের শিল্পী খেয়ালী কর্মকার ও রিকসনসহ স্থানীয় শিল্পীরা অংশ নেন। টেলি সামাদের কণ্ঠে ‘দিলদার আলী আমার নাম…কেউ দিল না আমায় দাম…রাসত্মায় রাসত্মায় …’ মাতিয়ে তোলে সকলকে। খেয়ালী শুরম্ন করে বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান…”। আর ঢাকার বিবিসি’র নির্ধারিত শিল্পীরা পপ গান গেয়ে মাতিয়ে রাখেন দর্শকদের। তখন মাঠে শোভা পাচ্ছিল রোড শো’র নানা বর্ণিল সামগ্রী। পাশাপাশি স্টেডিয়ামে সুন্দরবনকে সপ্তাশ্চর্যের তালিকায় অন্তভুক্তির জন্য ভোটিং কার্যক্রম চলে। প্রধান অতিথি এই ভোটদানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত আলহাজ মমতাজ বেগম এই প্রতিবেদককে বলেন, এই দিনটি আমার মুন্সীগঞ্জের সবচেয়ে বেশি জাঁকজমকপূর্ণ একটি দিন। ছাত্র জীবনের এবং রাজনৈতিক নানা স্মৃতিচারণ করে এ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস বলেন, এটি মুন্সীগঞ্জের এ পর্যন্ত সবচেয়ে বর্ণিল আয়োজন।

মূল আয়োজক জেলা প্রশাসক মোঃ আজিজুল আলম বলেন, দেশপ্রেম এবং বাঙালী সংস্কৃতির প্রতি সকলে আন্তরিক ছিলো বলেই এই আয়োজনটি সফল করা গেছে।

ছবি নেয়া হয়েছে শুভর কাছ থেকে

[ad#bottom]

Leave a Reply