শিল্পের বর্জ আর ক্যামিকেল দিয়ে আবিস্কৃত গ্যাসে চলছে সিএনজি গাড়ী

অর্থের অভাবে বাণিজ্যিক ব্যবহার সম্ভব হচ্ছেনা সেলিমের আবিস্কৃত গ্যাসে

মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় গ্যাস আবিস্কার করে চমক সৃষ্টি করেছে সেলিম নামের এক বাস চালক। বিভিন্ন শিল্পের ফেলে দেয়া বর্জ ও রাসায়নিক ক্যামিক্যাল দিয়ে সিএনজি গ্যাস উৎপাদন করছেন এই বাস চালক। সে লৌহজং উপজেলার কুমারভোগ গ্রামের মোঃ নুরুল ইসলাসের ছেলে। সেলিমের আবিস্কৃত গ্যাস দিয়ে সিএনজি গাড়ী, গ্যাসের চুলায় রান্না করা, এমনকি ওয়েল্ডিংয়ের কাজেও ব্যবহার করা সম্ভব। কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থ আর পৃষ্টপোষকতার অভাবে সেলিম তার আবিস্কৃত গ্যাসকে বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করতে পারছেন না।


সরোজমিনে সেলিমের কুমারভোগের বাড়িতে গেলে তিনি এই প্রতিবেদককে একটি পুরোনো গ্যাস সিলিন্ডারে শিল্পের ফেলে দেয়া বর্জ (ছাই) ও দুটি ক্যামিকেল দিয়ে গ্যাস তৈরী করে দেখান। তার উৎপাদিত গ্যাস থেকে সিলিন্ডারের মাথায় পাইপ লাগিয়ে পাইপের মাথায় আগুন জ্বালিয়েও দেখালেন। ওয়েল্ডিং কাজে সিলিন্ডার থেকে গ্যাস বের হয়ে যে নীলাভ রংয়ের আগুনের সৃষ্টি হয় সেলিমের তৈরী গ্যাসের আগুনেও ছিল সে রকম তেজী গ্যাসের নীলাভ আগুন।

সেলিম একটি এলপি গ্যাসের সিলিন্ডারে লোহার পাইপ ও মিটার বসিয়ে তাতে নিজস্ব ফর্মুলায় গ্যাস উৎপাদন করেন। এর পর এটি নিয়ে তার ছেলের সিএনজি বেবি টেক্সির গ্যাস লাইন খুলে তাতে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডারে ক্যামিকেল ও শিল্পের বর্জ দিয়ে তৈরী নিজের উৎপাদিত গ্যাস একটি পাইপের মাধ্যমে সংযোগ দিয়ে বেবি টেক্সিটি স্টার্ট দেয়। এতে সেলিমের তৈরী গ্যাসে বেবি টেক্সিটি দিব্বি চলতে থাকে।

বাস চালক সেলিম জানান, দীর্ঘ ২০ বছরের সাধনায় তিনি এ গ্যাস উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছেন। ২০ বছর পূর্বে তিনি যখন খুলনার দৌলতপুরে একটি হার্ডওয়ারের দোকানে কাজ করতেন তখন থেকে তিনি বিভিন্ন ক্যামিকেলের সাথে পরিচিত হন। ক্যামিক্যাল বেচা-কেনা ও নাড়াচাড়া করতে করতে তিনি আগুন জ্বলা ও গ্যাস তৈরীর ঘটনা লক্ষ করেন। সেই থেকে সেলিমের মাথায় ক্যামিকেল দিয়ে গ্যাস উৎপাদনের চিন্তা চলতে থাকে। দীর্ঘ ২০ বছর সাধনার পর অবশেষে তিনি গ্যাস উৎপাদনে সক্ষম হয়েছেন। সেলিমের উৎপাদিত গ্যাস বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহারে বর্তমান সিএনজি গ্যাসের চেয়ে খরচ অনেক কম পড়বে। আর তার চেয়েও কম দাম হবে যদি গ্যাসটি জ্বালানি বা ওয়েল্ডিং কাজে ব্যবহার করা হয়। কারণ হিসেবে তিনি জানালেন, গাড়ী চালানোর জন্য যে গ্যাসটি উৎপাদন করা হয় তাতে বর্জের সাথে দুটি রাসায়নিক ক্যামিকেল ব্যবহার করতে হয়। আর জ্বালানী বা ওয়েল্ডিংয়ের জন্য তৈরী গ্যাসে একটি ক্যামিকেল ব্যবহার করা হয়। তাই সিএনজি গাড়ীর চালানোর গ্যাসের চেয়ে ওয়েল্ডিংয়ের গ্যাসের দাম আরও কম পড়বে।

সেলিমের ইচ্ছা মাওয়া চৌরাস্তা এলাকায় একটি গ্যাস প্ল্যান্ট তৈরী করে এলাকায় চলাচলরত বেবিটেক্সিসহ সকল প্রকার গাড়ীতে বাণিজ্যিকভাবে গ্যাস বিক্রি করে সমলম্বী হওয়া। কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থের অভাবে সেলিমের পক্ষে তা সম্ভব হচ্ছেনা । সেলিম ইতিমধ্যে সিএনজি স্টেশন তৈরীর ইঞ্জিনিয়ারদের সাথে যোগাযোগ করে জানতে পেরেছেন তার উৎপাদিত গ্যাসকে বাণিজ্যিকভাবে বিক্রির জন্য একটি ছোট আকারের প্ল্যান্ট তৈরী করতে ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকা প্রয়োজন। কিন্তু সামান্য বাস ড্রাইভার সেলিম যা উপার্জন করেন তাতে সংসার চালিয়ে হাতে তেমন কিছুই থাকে না। তাই এতো টাকা খরচ করা তার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই সরকারি পৃষ্টপোষকতা ও অর্থের যোগান পেলে সেলিমের উৎপাদিত গ্যাসকে বাণিজ্যিকভাবে কাজে লাগিয়ে সারাদেশে এই গ্যাসের স্টেশন তৈরী করে গাড়ীতে সিএনজি গ্যাসের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব বলে তিনি মনে করছেন। এব্যাপারে বেসরকারীভাবে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এগিয়ে এলে সেলিম তাদের সাথে যৌথভাবে কাজ করতেও প্রস্তুত আছেন।

[ad#bottom]

Leave a Reply