মুন্সিগঞ্জে গ্যাসের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে

মুন্সিগঞ্জের বেশিরভাগ স্থানের বাসা-বাড়িতে রান্নার গ্যাস নেই। রান্নার গ্যাসের তীব্র সংকটের কারছুণ মানুষ তাদের খাবার দাবার তৈরী করতে পাড়ছে না। গ্যাসের এ সংকট নিরসনে প্রশাসন কিংবা জনপ্রতিনিধিদের কোন প্রদক্ষেপ নিতে দেখা যাচ্ছে না।

কাক ডাকা ভোর সাড়ে ৫টার দিকে গ্যাস চলে যায়। আর রাত সাড়ে ১০টার দিকে গ্যাস আসে। এ কারণে বাড়ির গৃহিনিরা রাতের মধ্যেই সকাল, দুপুর ও রাতের রান্না করে নিতে বাধ্য হচ্ছে। যারা এই সময়ের মধ্যে এই কাজ টুকু করতে পারে না তাদেরকে উপোস থাকতে হয়। যাদের সামর্থ আছে তারা বিকল্প পদ্ধতিতে রান্নার কাজ করেন।
তবে শহরের কিছু কিছু বাড়ি ও হোটেলে গ্যাস থাকে সারাদিন। গ্যাস অফিসের কর্মচারীদের সহায়তায় কয়েক লাখ টাকা খরচ করে বিকল্প পদ্ধতিতে বাজারের কয়েকটি হোটেলে গ্যাস পাওয়ার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এ পদ্ধতিতে বাসা বাড়িতেও অনুরুপ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

গ্যাসের এই অবস্থার কারণে এখন আর কেউ কাউকে নিমন্ত্রণ করে না। গ্যাসের বেহাল দশার কারণে গত বছর নারায়ণগঞ্জের পঞ্চবটি থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত নতুন লাইনের মোটা পাইপ বসানো হয়। কিন্তু পরিস্থির কোন উন্নতি হয়নি। এই পথে অনেক ভারী শিল্প কারখানা গড়ে উঠেছে। মুন্সিগঞ্জের এই আবাসিক লাইন থেকে এসব শিল্প কারখানায় গ্যাস সংযোগ দেয়া হয়েছে। এই কারণে মুন্সিগঞ্জে গ্যাস সংকট হচ্ছে বলে কেউ কেউ দাবী করছে। আবার এই পথের শিল্প কারখানয় অবৈধ গ্যাস ব্যবহার হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে পশ্চিম মুক্তারপুরে বাসা বাড়ীতে সারাদিন গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে। অথচ জেলা ও সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গ্যাসের তীব্র সংকট রয়েছে। ভুক্তভোগি মুন্সিগঞ্জবাসী এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছ।

[ad#bottom]

Leave a Reply