উচ্ছ্বাসে ভরা চড়ুইভাতি

এম এ রিন্টু
তখন সকাল ১০টা। ১০ ডিসেম্বর। মিষ্টি রোদ। হালকা হিমশীতল বাতাস। মুন্সিগঞ্জ লঞ্চঘাট। ট্রলারে অপেক্ষমাণ বন্ধুসভার বন্ধুরা মাইকে স্বাগত জানাচ্ছিলেন একে একে আসা বন্ধুদের, উল্লাস করে। গন্তব্য গজারিয়ার চর। সেখানেই আয়োজন করেন মুন্সিগঞ্জ বন্ধুসভার বন্ধুরা চড়ুইভাতি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের।

নদীর স্বচ্ছ জল আর নরম কুয়াশা ভেদ করে এগোচ্ছে ট্রলার। এরই মধ্যে বন্ধুরা শুরু করে দিলেন মাইকে বিরতিহীন গান আর আবৃত্তি। তখন দুপুর। পৌঁছে গেলাম আমরা কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে। নীল আকাশ আর বিশাল নদীতীরে সবুজ ঘাসের নির্জন চর। ট্রলার থেকে নেমে বন্ধুদের সে কী দৌড়ঝাঁপ, ছোটাছুটি! ওদিকে আবার দুই দলে বিভক্ত হয়ে ক্রিকেট খেলায় মেতে উঠলেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। মাঠের পাশে হাজারো শেকড়ে সমৃদ্ধ পুরোনো বটের নিচে শুরু হয়ে গেল ছবি তোলার হিড়িক। আনন্দঘন এই পরিবেশের মধ্যে সবাই চড়ুইভাতির সুস্বাদু খাবারের পর্ব সেরে নিই একত্রে।

সবুজ দুর্বার কার্পেটে বসে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বন্ধুসভার উপদেষ্টা তানভীর হাসানসহ অনেকে। নতুন ও পুরোনো বন্ধুরা তাঁদের পরিচিতি তুলে ধরেন। পাশাপাশি বন্ধুসভার কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত হন। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন পর্বে গান, কবিতা আবৃত্তি, নৃত্য, কৌতুক পারফরম করেন রুমা পাল, সিঁথি, দীপ্তি, সৌমিত্র, মুন্না, মাথিন, মুন্নি, শুভঙ্কর, মঞ্জুরসহ প্রধান শিক্ষিকা সালমা মোশতারি। ধ্রুপদি নৃত্য ছিল উপভোগ্য। হাসির রোল পড়ে যায় সৌমিত্রের রম্য কবিতায়। অনুরোধের পর ‘বন্ধু তোমার চোখের কোণে চিন্তা খেলা করে’ গানটি গেয়ে শোনান তানভীর হাসান।

উল্লাস আর উচ্ছ্বাসে ভরা দিন শেষে, পড়ন্ত বিকেলের গোধূলিবেলা জানান দিচ্ছিল, এবার ঘরে ফেরার পালা। যখন ফিরছি, গজারিয়ার চরের নিঃসঙ্গ বটগাছ আমাদের বিদায় জানিয়ে বারবার বলছিল, আবার এসো বন্ধুরা…আবার এসো…।

[ad#bottom]

Leave a Reply