পদ্মা সেতু ঘিরে চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ ॥ পদ্মা সেতুকে ঘিরে মাওয়া-জাজিরা পয়েন্টে এখন বিশাল কর্মযজ্ঞ। পুনর্বাসন প্রকল্পের ভবন নির্মাণ, কন্ট্রাক্টশন ইয়ার্ড এবং অতিরিক্ত জমি অধিগ্রহণ নিয়ে চলছে এই যজ্ঞ। কয়েক মাস ধরে চলমান সয়েল্ট টেস্টের কাজ শেষ হয়ে গেছে। তবে সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী ২০১৩ সালের মধ্যে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ করতে হলে আরও বিশাল কর্মযজ্ঞ শুরম্নর আশা করেছে এলাকাবাসী। পদ্মা সেতু কতর্পক্ষ জানিয়েছে- মঙ্গলবার সেতুটির নির্মাণ ব্যয় ২০ হাজার ৫শ’ ৭ কোটি টাকার অনুমোদন দিয়েছে একনেক। দ্রম্নততম সময়ের মধ্যেই পুরোদমে কাজ শুরম্ন হবে।

সেতু কতর্ৃপক্ষের এক তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী জানান, দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় এই প্রকল্পের টেন্ডার ডকুমেন্ট এখন চূড়ানত্ম। সমপ্রতি শেষ হওয়া সয়েল টেস্ট রিপোর্টের ভিত্তিতে পদ্মা সেতুর নতুন ডিজাইন অনুযায়ী তৈরি করা হয়েছে এই টেন্ডার ডকুমেন্ট। এই টেন্ডার ডকুমেন্ট এখন বিশ্ব বাংকের হাতে। দাতা সংস্থাদের সবুজ সিগন্যালের পরেই এই ডকুমেন্টে ওকে করা হবে। এদিকে বিশ্ব ব্যাংক প্রতিশ্রম্নত ঋণের ১শ’ ২০ কোটি টাকা ছাড় দিতে প্রস্তুত রয়েছে। গত ৯ জানুয়ারি বিশ্ব ব্যাংকের সঙ্গে খসড়া চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। আইডিবির সঙ্গে ঋণ চুক্তি সম্পন্ন হয়ে গেছে। অর্থায়ন নিশ্চিত হওয়ায় কাজের গতি অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

মূল সেতুর দায়িত্বে থাকা এক প্রকৌশলী জানান, গত নবেম্বরে মাঠপর্যায়ে সয়েল টেস্ট সম্পন্ন হয়েছে। এই রিপোর্টের ভিত্তিতে ডিজাইন চূড়ানত্ম হয়। এখন চলছে ঠিকাদার নিয়োগের প্রক্রিয়া। ব্রিজে মোট ৫টি গ্রম্নপে ঠিকাদার নিয়োগ করা হবে।

পুনর্বাসন সম্পর্কে সংশিস্নষ্টরা জানান, পুনবার্সনের জন্য ৪টি সাইডেই পুরোদমে কাজ চলছে। মাটি ভরাট সম্পন্ন হয়ে যাওয়ার পর রাসত্মা, মাসজিদ, স্কুল ও হাসপাতালের কাজ চলছে। নির্মাণ অগ্রগতি ২০ শতাংশ। এই পুনর্বাসন কেন্দ্রগুলো হচ্ছে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার যশোলদিয়া ও উত্তর কুমারভো। শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলা পশ্চিম নাওডোবা ও মাদারীপুর উপজেলার শিবচর উপজেলার বাখরের কান্দি।

এছাড়া ক্ষতিপূরণ দেয়ার পুনর্বাসন বাসত্মবায়ন পরিকল্পনা (র্যাপ)-১ আওতায় জেলা প্রশাসন থেকে ক্ষতিপূরণ এবং পদ্মা সেতু প্রকল্প থেকে আর্থিক সহায়তা প্রদান অগ্রগতি ৯৭ শতাংশ। পুনর্বাসন কার্যক্রমের পরিকল্পনার, পদ্ধতি এবং বাসত্মবায়নে বিশ্বব্যাংক সনত্মোষ প্রকাশ করেছে।

পদ্মা সেতুর জন্য বর্তমানে মোট জমির প্রয়োজন হচ্ছে ১ হাজার ৯৫ হেক্টর। প্রথম ধাপের ৭শ’ ৫৫ হেক্টর অধিগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরম্ন হলেও আধুনিক প্রক্রিয়ায় রিভার টেনিং পোষণ করার পরিকল্পনা চূড়ানত্ম হওয়ায় মুন্সীগঞ্জ প্রানত্ম থেকে ৬৮ হেক্টর এবং ওপারে ১শ’২০ হেক্টর বাদ দেয়া হয়। তবে রেল লাইন, সড়ক, ভায়াডাক্ট ও কন্সট্রাক্টশন ইয়াড নতুন করে আরও কিছু জমি অধিগ্রহণ করা হচ্ছে। তাই সব মিলিয়ে ১ হাজার ৯৫ হেক্টর জমি নেয়া হচ্ছে এই সেতুর জন্য।

মুন্সীগঞ্জের ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ খান জানান, ভূমি অধিগ্রহণ আইন অনুযায়ী পুনর্বাসন অঞ্চল ব্যতীত যশোলদিয়া, কান্দিপাড়া, দক্ষিণ মেদিনীমন্ডল ও উত্তর কুমারভোগ মৌজায় ৬৮ হেক্টর জামি ছেড়ে দেয়ার কার্যক্রম চূড়ানত্ম পর্যায়ে রয়েছে।

পাশাপাশি কন্সট্রাক্টশন ইয়ার্ডের জন্য ৮১ হেক্টর জমি অধিগ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে। উত্তর কুমার ভোগ, দক্ষিণ মেদিনীমন্ডল, ওয়ারী, অননত্মসার, শিমুলিয়া, রানীগাঁও, ভাজপুর এই ৭টি মৌজায় এই অধিগ্রহণ করা হচ্ছে। ৩ ধারা শেষে চূড়ানত্ম অনুমোদনের জন্য এই নথিটি মন্ত্রণালয়ে রয়েছে। এছাড়া মূল সেতু ও টোল পস্নাজার জন্য সাড়ে ৪২ হেক্টর জমি সেতু কতর্ৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। এছাড়া রেললাইন, রোড ও ভায়াডাক্টের জন্য আরও ২৪ হেক্টর জমি অধিগ্রহণের জন্য ৩ ধারা নোটিস দেয়ার পর এখন সিলবুক প্রক্রিয়া চলছে। যশোলদিয়া, কান্দিপাড়া, উত্তর মেদিনীমন্ডল, দক্ষির মেদিনীমন্ডল, দক্ষিণ পাইকসা ও দোগাছি মৌজায় এগুলো অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এই প্রকল্পের ব্যয়ের ২শ’ ৯০ কোটি ডলারের মধ্যে এশিয়া ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) ৬১ কোটি ৫০ লাখ, ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিবি) ১৪ কোটি এবং জাপান ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি (জাইকা) ৪০ কোটি ডলার দেয়ার কথা রয়েছে। প্রকল্পের বাকি ৬০ কোটি ডলার দেবে বাংলাদেশ।

এই সেতু নির্মিত হলে দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানীর ঢাকার সরাসরি সড়ক যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত ছাড়াও এই অঞ্চলের আর্থসামাজিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply