৩ ধারা নোটিস ॥ একটি বসতবাড়িও অধিগ্রহণ করা হয়নি

প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর
মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ ॥ প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরের জন্য একটি বসতবাড়িও অধিগ্রহণ করা হয়নি। ৩ ধারা নোটিসপ্রাপ্তির পর আড়িয়ালবিলের জমির মালিকরা এ তথ্য জানিয়েছেন। শ্রীনগর উপজেলার ১৫টি মৌজায় ১০ হাজার ৯শ’ ৫৫ একর জমি অধিগ্রহণের ৩ ধারা নোটিস ইস্যু করা হয়েছে। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার দয়াহাটা মৌজায় ৭৪০টি নোটিসের শতভাগই জারি হয়ে গেছে। ষোলোঘর মৌজায় ৮৮০ নোটিসের মধ্যে ৮০০টিই জারি হয়েছে।

এছাড়া মত্তগাঁও মৌজায় ৫৯০টির মধ্যে ৪০০ নোটিস, গাদীঘাট মৌজায় ৭৮৫টির মধ্যে ২২৫টি, বিল আড়িয়াল মৌজায় ৮০০টির মধ্যে ৩০০টি, হাসাড়া মৌজায় ৩৭০টির মধ্যে ২০০টি, আরদিপাড়া মৌজায় ৮৭০ নোটিসের মধ্যে ৫০০টি, লস্করপুর মৌজায় ৯৭০টির মধ্যে ৪০টি, কেউটখালী মৌজায় ৮০টির মধ্যে ২০টি, পূর্ব মরিচপট্টি মৌজায় ৭৬০টির মধ্যে ১০টি, দাসেরচক মৌজায় ৪৭০টির মধ্যে ২০টি নোটিস জমি মালিকদের হাতে পেঁৗছেছে। পর্যায়ক্রমে সকল নোটিস সংশিস্নষ্ট জারিকারকরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে পেঁৗছে দিচ্ছে।

নোটিস গ্রহণকারী সকল জমি মালিকই স্বতঃস্ফূর্তভাবে এ নোটিস গ্রহণের তথ্য দিয়ে মুন্সীগঞ্জের ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ খান বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, দেশের সবচেয়ে বড় এ প্রকল্পটি এখানে হচ্ছে এটি এ অঞ্চলের মানুষের জন্য সৌভাগ্যের ব্যাপার। পাশাপাশি অন্য জেলার বাসিন্দা হয়েও আমরা যারা এ জাতীয় কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে পারছি, তাদের জন্যও কম খুশির নয়। তাই সকলেই আনত্মরিকভাবে কাজ করায় কাজের অগ্রগতি ভাল।

তিনি এলাকা ঘুরে এসে বিভিন্ন অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে জানান, যেহেতু একটি বসতবাড়িও অধিগ্রহণ করা হচ্ছে না, তাই এ ব্যাপারে নোটিসপ্রাপ্ত জমির মালিকদের কষ্ট নেই। অনেক প্রবীণ শিক্ষকসহ মুরবি্বরা গর্ব করে বলেছেন, আমাদের জমিতে যে বিমানবন্দর হচ্ছে এটি ক’জনের ভাগ্যে হয়। ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলেন, “একটি বসতবাড়িও অধিগ্রহণ করা হচ্ছে না। কারও বাড়ি অধিগ্রহণের কোন সন্দেহ থাকলে সঙ্গে সঙ্গে উপজেলা প্রশাসন বা জেলা প্রশানের সঙ্গে যোগাযোগ করে নিশ্চিত হতে পারেন। কারণ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী কোনরকমের বসতবাড়ি অধিগ্রহণ করা হয়নি।”

বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরের প্রকল্পের সেলপ্রধান যুগ্ম সচিব জয়নাল আাবেদীন তালুকদার প্রকল্পের সর্বশেষ পরিস্থিতি উলেস্নখ করে রাতে জনকণ্ঠকে জানান, কোন ঘরবাড়ি অধিগ্রহণ না করার সরকারী ঘোষণাটি ৩ ধারা নোটিসপ্রাপ্তির পর জমির মালিকদের মাঝে পরিষ্কার হয়েছে। অনেক জমির মালিক পূর্বের ভুল বোঝাবুঝির অবসানের কথা বলে জমির মালিকগণ উপযুক্ত মূল্যপ্রাপ্তির দাবি জানিয়েছেন। এ দাবিটিও বাসত্মবায়নের আশ্বাস দিয়ে তিনি বলেন, সে অনুযায়ী জমির মালিকদের যথাযথ মূল্যপ্রাপ্তি নিশ্চিত বিষয়ে কাজ চলছে। সোমবার থেকে শুরম্ন করে মাত্র চার দিনে ৩ ধারা নোটিস জারির ব্যাপক অগ্রগতিতেও সেলপ্রধান সনত্মোষ প্রকাশ করে এ ব্যাপারে সকলের সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

[ad#bottom]

Leave a Reply