টাকাওয়ালা দুই প্রার্থীর গরমে অন্যরা কোণঠাসা

তানভীর হাসান, মুন্সিগঞ্জ: শিক্ষায় একজন অষ্টম শ্রেণী পাস, আরেকজন অক্ষরজ্ঞানসম্পন্ন। তাঁরা মুন্সিগঞ্জের মীরকাদিম পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী। তাঁদের মধ্যে একজন শহীদুল ইসলাম (টেলিফোন), অন্যজন আবদুস সালাম (দোয়াত-কলম)। দুজনই টাকাওয়ালা প্রার্থী। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে থেকে তাঁরা এলাকায় দান-খয়রাত করছেন। তাঁদের দাপটে অসহায় হয়ে পড়েছেন অন্য প্রার্থীরা।

শহীদুল ইসলাম গত কোরবানির ঈদের পরদিন থেকে এক মাসে পর্যায়ক্রমে পৌরসভার ৩৩টি এলাকার ভোটারদের বাড়িতে নিমন্ত্রণ করে খাইয়েছেন। সচেতন ভোটারদের অভিযোগ, দুজনের টাকার গরমে শিক্ষিত ও সৎ প্রার্থী এমনকি আওয়ামী লীগ ও বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থীরাও কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। তরুণেরা ও যারা ভোটার হয়নি—এমন মানুষও দুই প্রার্থীর আশপাশে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। ১২ জানুয়ারি জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় মীরকাদিম পৌর নির্বাচনে ওই দুই প্রার্থী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে টাকা ছড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ ওঠে। সভায় স্থানীয় সাংসদ উপস্থিত ছিলেন।

টেঙ্গর এলাকার ভোটার আহমেদ মিয়া জানান, শহীদুল ও সালামের টাকার কাছে সবাই যেন জিম্মি হয়ে পড়েছে। মানুষ টাকা চায়, ভালো মানুষ চায় না। ভোটারপ্রতি এক হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে বলে শোনা গেছে। তরুণ ভোটাররা তাঁদের পেছনে ছুটছেন। কমলাঘাট এলাকার ইমাম হোসাইন বলেন, ‘ভাই, টাকা দিয়া সব যোগ্যতা কিনা লাইছে। অথচ মাঠে দুইজন যোগ্য প্রার্থী রয়েছে। টাকা দিয়ে মাঠ গরম কইরা ফালায় এমন দুইজনের নাম বেশি শোনা যায়।’

মেয়র পদপ্রার্থী, বর্তমান মেয়র ও জেলা বিএনপির সহসভাপতি মোহাম্মদ হোসেন বলেন, ‘তাঁরা টাকা দিয়ে পরিবেশ নষ্ট কইরা ফালাইতাছেন। বিষয়টি জেলার আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপস্থাপন করা হয়েছে। কিন্তু এখনো তাঁরা ভোটারদের টাকা দিচ্ছেন।’ আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী হাফিজুল্লাহ মন্টু বলেন, এখানে টাকা দিয়ে ভোট কিনছেন ওই দুই প্রার্থী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শহীদুল ইসলাম ঢাকায় ঝুট ব্যবসা করেন। একসময় বিএনপি এবং পরে বিকল্পধারার রাজনীতির সঙ্গে জড়িত এই প্রার্থীর হলফনামায় বার্ষিক আয় সাত লাখ ২০ হাজার টাকা উল্লেখ করেছেন। আর সালামের রয়েছে মীরকাদিম এলাকায় অটো রাইস মিল। তাঁর বার্ষিক আয় উল্লেখ করেছেন পাঁচ লাখ ৯৩ হাজার ১০০ টাকা।

অভিযোগ প্রসঙ্গে শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। এসব অভিযোগ ঠিক নয়।’ আবদুস সালাম তাঁর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

মীরকাদিম পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ছয়জন। অন্য দুই প্রার্থী হলেন বিএনপির একাংশের মিজানুর রহমান (তালা) ও ফারুক আহমেদ মোল্লা (আনারস)।

সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা মো. মোরশেদ আলম জানান, টাকা ছড়ানোর বিষয়ে কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply