নতুন করে ন্যান্সি ও কণাকে নিয়ে হাবিব

টানা দুই বছর বিরতি নিয়ে আসন্ন বৈশাখে আবারও একক অ্যালবাম নিয়ে আসছেন হাবিব। এবারই প্রথম নিজের একক অ্যালবামে একক গানের পাশাপাশি অন্তত তিনটি দ্বৈত গান রাখার ইঙ্গিত দিয়েছেন এ সংগীত তারকা। আর গানগুলোতে তার সহশিল্পী হিসেবে সুযোগ পেয়েছেন ন্যান্সি এবং কণা। একক অ্যালবামের একক গানের মধ্যে ন্যান্সি এবং কণাকে টানা প্রসঙ্গে হাবিবের যুক্তি হলো এমন, গেল পাঁচ ছ’বছরে এ দু’জনকে নিয়েই আমার গানের পথচলা। বিশেষ করে চলচ্চিত্র এবং জিঙ্গেলের প্রায় সব কাজই ন্যান্সি-কণাকে সঙ্গে নিয়ে করা। দু’জনারই গডগিফটেড অসাধারণ কণ্ঠ-সুর।

আর একসঙ্গে অনেক দিন ধরে কাজ করতে গিয়ে একটা বোঝাপড়া হয়ে গেছে। ফলে গান করতে তেমন বেগ পেতে হয় না। ন্যান্সি-কণা প্রসঙ্গে হাবিব আরও বলেন, আমি জানি দ্বৈত গানটা মূলত সিনেমার জন্যই বেশি মানানসই। তাই বলে অডিওতেও মন্দ লাগার নয়। কারণ গেল ক’বছরে আমার করা জনপ্রিয় হওয়া প্রায় সবক’টি চলচ্চিত্রের গানই ছিল দ্বৈত। আর সেগুলো হিট হয়েছে চলচ্চিত্রগুলো মুক্তি পাওয়ার আগেই, অডিও অ্যালবামের মাধ্যমে। সে জন্যই ভাবলাম একক অ্যালবামেও কেন দ্বৈত গান নয়। আসন্ন বৈশাখ উপলক্ষে বাংলালিংকের অর্থায়নে নির্মিত এ অ্যালবামটি প্রকাশ পাচ্ছে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে। অ্যালবামের নামটা এখনও চূড়ান্ত করতে পারেননি হাবিব। তিনি বলেন, কি নাম দিবো- সেটা নিয়ে গেল দু’মাস বড় যন্ত্রণায় আছি। এখনও সিদ্ধান্তহীনতায় আছি। এদিকে জিঙ্গেল এবং চলচ্চিত্রের গানের নিয়মিত কার্যক্রমের পর হাবিবের একক অ্যালবামেও স্থান পেয়ে ন্যান্সি-কণা যারপরনাই মুগ্ধ। যদিও এতদিনে হাবিবের প্রতি এ দু’জনার অনেকদিনের দাবি আরও একটু বেশি। এ প্রসঙ্গে হাবিব নিজেই বলেন, আমার প্রতি ওদের বাড়তি দাবি থাকাটাই স্বাভাবিক। অনেকদিন ধরেই ন্যান্সি-কণা দু’জনেই বলছে তাদের নতুন একক আমি একাই যেন করি।

একা না করলেও বেশির ভাগ গান যেন আমিই করে দেই। কিন্তু সময়তো করতে পারি না। আর খুব তাড়াহুড়া করেও কোন কাজ করতে পারি না আমি। এ ব্যর্থতা হয়তো আমারই। তাছাড়া টানা চলচ্চিত্র এবং জিঙ্গেলের কাজ করে আমার নিজের অ্যালবাম করতে গিয়েই নাভিশ্বাস উঠে গেছে। অন্যের অ্যালবাম করবো কখন? অন্যের অ্যালবাম তৈরির খুব বেশি ফুরসত নেই হাবিবের, চলমান এ সংগীত বিস্ময়ের জন্য এটাই বড় বাস্তবতা। তবুও এবার তিনি ন্যান্সি এবং কণা- দু’জনের একক অ্যালবামের জন্যই বেশ কয়েকটি গান করে দেয়ার পরিকল্পনা করেছেন। সে অনুপাতে এরই মধ্যে টুকটাক কাজ শুরু করে দিয়েছেন। দু’জনার নতুন একক নিয়ে মন বসাবেন নিজের একক প্রকাশের পর। এদিকে গেল বছরের শেষ দিকে হাবিব ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হন মুঠোফোন প্রতিষ্ঠান বাংলালিংকের। এ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তার চুক্তি হয় টানা এক বছরের।

যে চুক্তিতে দেশজুড়ে কনসার্ট, একাধিক অ্যালবাম প্রকাশ এবং বিজ্ঞাপনে মডেল হওয়ার শর্ত রয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় মুক্তি প্রতীক্ষিত অ্যালবাম ছাড়াও সমপ্রতি তিনি ব্যস্ত আছেন খুলনা, চট্টগ্রাম, রাজশাহীসহ বিভিন্ন জেলা শহরের ওপেন এয়ার কনসার্ট নিয়ে। এ ছাড়াও মুঠোফোন প্রতিষ্ঠানটি আয়োজন করছে একটি লোক গানের মিশ্র অ্যালবামে। যে অ্যালবামে হাবিবের কণ্ঠ-সংগীতে থাকবে শাহ আবদুল করিমের একটি গান। উল্লেখ্য, মূলত শাহ আবদুল করিমের গান দিয়ে হাবিবের রাজকীয় উত্থান ঘটলেও, গানগুলো হাবিবের সংগীতায়োজনে কণ্ঠে তুলেছেন লন্ডন প্রবাসী কায়া ও হেলাল। সে হিসেবে এবারই প্রথম কোন অ্যালবামের জন্য হাবিব নিজেই কণ্ঠে তুলছেন শাহ আবদুল করিমের একটি গান। আর এসব মিলিয়ে তার নতুন বছরটা ন্যান্সি ও কণাকে নিয়ে পুরনো সফলতাগুলোকে ছাপিয়ে নতুন সাজে সাজবে আবারও- এমনটাই প্রত্যাশা হাবিব প্রিয়দের। এদিকে সংগীতকেন্দ্রিক একাধিক চমকদার খবরের পাশাপাশি, নতুন বছরের প্রথমার্ধেই হাবিব হতে পারেন সংসারী। এমন ইঙ্গিত এরই মধ্যে মিলেছে তার স্বজনদের পক্ষ থেকে।

মাহমুদ মানজুর:

[ad#bottom]

Leave a Reply