আরও ৭ জেলা রেল যোগাযোগের আওতায় আসছে

সমীক্ষা চালাতে পরামর্শক নিয়োগের প্রস্তুতি
ফিরোজ মান্না ॥ দেশের সাত জেলাকে রেল যোগাযোগের আওতায় আনা হচ্ছে। জেলাগুলোতে রেলপথ নির্মাণের জন্য সমীৰা চালাতে বাংলাদেশ রেলওয়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। সমীৰা কাজ চালাতে রেলওয়ে বিভাগ সরকারের কাছে টাকাও চেয়েছে। টাকা বরাদ্দ পেলেই আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে পরামর্শক নিয়োগ করা হবে। পর্যায়ক্রমে দেশের প্রতিটি জেলাকে রেল যোগাযোগের মধ্যে নিয়ে আসার কাজ শুরম্ন হয়েছে। গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, সাতৰীরা, বরিশাল, মুন্সীগঞ্জ, কক্সবাজার ও রাঙ্গামাটি জেলা রেল যোগাযোগের মধ্যে চলে আসবে এ সরকারের মেয়াদেই। অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন বৈষম্য দূর করতে দেশের প্রতিটি জেলাকে রেল যোগাযোগের মধ্যে নিয়ে আসতে সরকার মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক টিএ চৌধুরী জানান, চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গামাটি পর্যনত্ম রেলপথ নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। অর্থনৈতিক ও আঞ্চলিক উন্নয়নে এ রেলপথ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। দেশের ৬৪টি জেলা রেলওয়ের সঙ্গে যুক্ত করতে সরকার মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। বর্তমানে দেশের ৪২টি জেলা রেলওয়ে যোগাযোগের আওতায় রয়েছে। বাকি ২২ জেলায় রেল যোগাযোগ নেই। যে জেলাগুলোতে রেলপথ নেই সেখান থেকে কয়েকটি জেলায় রেলপথ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। রেলওয়ে সূত্র জানিয়েছে, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, সাতক্ষীরা, বরিশাল, মুন্সীগঞ্জ ও কক্ষবাজার জেলাকে রেল যোগাযোগের আওতায় আনার প্রকল্প প্রস্তাব সরকারের কাছে দেয়া হয়েছে। এবার রাঙ্গামটি জেলায় রেলপথ নির্মাণের প্রস্তাব রেলওয়ে বিভাগ সরকারের কাছে দিয়েছে। সরকার রেলওয়ের উন্নয়নে ২০টি নতুন প্রকল্প বাস্তাবায়ন করার কাজে হাত দিয়েছে। এ প্রকল্পগুলোর মধ্যে ৮টি প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। বাকি প্রকল্পগুলোর কাজ অল্পদিনের মধ্যে শুরু হবে। নতুন ২০ প্রকল্পের বাইরে পুরনো আরও ১৬ প্রকল্প বাস্তবায়ন করার প্রক্রিয়া চলছে। চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গামাটি পর্যনত্ম ৪০ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হবে। এজন্য সমীৰা কাজ চালাতে সরকারের কাছে ১৫ কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে। টাকা পেলেই আনত্মর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ করা হবে। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ করতে ৩ থেকে ৪ মাস সময় লাগবে। পরামর্শক নিয়োগ হওয়ার পর ৮ থেকে ৯ মাস সময় লাগবে সমীৰা কাজ শেষ হতে। সমীৰা শেষ হলেই রেললাইন নির্মাণ কাজে হাত দেয়া হবে। প্রকল্প বাসত্মবায়ন হবে দেশী ও বিদেশী ঋণ সহায়তায়। তবে ঠিক কত টাকা ব্যয় হবে তা এখন ঠিক করতে পারেনি রেল কর্তৃপৰ।

সরকার ৰমতায় আসার পরপরই রেল যোগাযোগের ওপর গুরম্নত দেয়। রেলওয়ের উন্নয়নে আগের ১৬টি প্রকল্পসহ মোট ৩৬টি প্রকল্প বাসত্মবায়নে ১৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়। রেলইঞ্জিন, কোচ সংগ্রহ, নতুন রেললাইন নির্মাণ, পুরনো রেললাইন মেরামত, সৈয়দপুর রেলওয়ে ওয়ার্কশপ আধুনিকীকরণ ও সিগন্যাল ব্যবস্থার উন্নয়নে এসব প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। রাঙ্গামাটি ও কঙ্বাজার জেলা পর্যটন নগরী হওয়ায় রেল যোগাযোগ স্থাপন করার ওপর গুরম্নত্ব দেয়া হয়। গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়া পর্যনত্ম ৫৫ কিলোমিটার রেলপথ স্থাপন করা হবে। বঙ্গবন্ধুর মাজারকে ঘিরে পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে। পর্যটন কেন্দ্র হলে এখানে রেল যোগাযোগ গুরম্নত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। নদীবহুল এলাকা হিসেবে বরিশাল এলাকায় রেলপথ নির্মাণ করা ব্যয়সাপেৰ ছিল। কিন্তু সরকার যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ এবং কম ব্যয়সাপেৰ করে তোলার জন্য রেল যোগাযোগ স্থাপন করবে।

এদিকে, রেল বিভাগ একের পর এক প্রকল্প হাতে নিলেও তা বাসত্মবায়নে রয়েছে ধীরগতি। আবার টাকার অভাবে অনেক প্রকল্প বাসত্মবায়ন প্রক্রিয়াই আলোর মুখ দেখতে পারেনি। আবার অনেক প্রকল্পের বাসত্মবায়ন শুরম্ন হলেও নানা কারণে তা বন্ধ রয়েছে। ১৫২ কোটি টাকা ব্যয় ধরে সরিষাবাড়ির তারাকান্দি থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যনত্ম রেলপথ স্থাপনের প্রকল্প হাতে নেয়া হয় ১৯৯৯ সালে। প্রকল্পটি দুই বছরের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই প্রকল্প প্রায় এক যুগ পার হয়ে গেলেও শেষ হয়নি। ময়মনসিংহ ও তারাকান্দির সঙ্গে উত্তরবঙ্গের যোগাযোগ সহজ করার জন্য এ প্রকল্পটি বাসত্মবায়ন কাজে হাত দিয়েছিল তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার। বিশেষ করে তারাকান্দি সারকারখানা থেকে সার সরাসরি উত্তরবঙ্গে পরিবহনের জন্য এ পথটি গুরম্নত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করত। প্রকল্পটি বাসত্মবায়ন শুরম্নর কিছুদিনের মধ্যে সিস্নপার কেনা নিয়ে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। এতে প্রাথমিক তদনত্মে প্রকল্প পরিচালকসহ ৪ জনে বিরম্নদ্ধে দুর্নীতির প্রমাণ মেলে। এরপর থেকেই প্রকল্পটির কাজ দীর্ঘ সময় বন্ধ ছিল। আবার যখন প্রকল্পটি বাসত্মবায়ন শুরম্ন হয় তখন প্রকল্প ব্যয় বেড়ে ২১৬ কোটি টাকায় দাঁড়ায়। টঙ্গী-ভৈরববাজার পর্যনত্ম রেলওয়ের আরেকটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয় ২০০৬ সালের জুলাই মাসে। ২০১১ সালের জুন মাসে এ প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু প্রকল্পটি হাতের নেয়ার পর থেকেই দুর্নীতি শুরম্ন হয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতি ধরা পড়ে দাতা সংস্থা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের কাছে। ৭২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাসত্মবায়নের কথা ছিল। লাকসাম-চিনকিআসত্মানা পর্যনত্ম রেলপথ নির্মাণের প্রকল্প হাতে নেয়া হয় ২০০৭ সালে। এক হাজার ১৫০ কোটি টাকা প্রকল্পটির বাসত্মবায়ন ব্যয় ধরা হয়। ২০১৩ সালে প্রকল্পটির বাসত্মবায়ন কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। প্রকল্প হাতে নেয়ার ৩ বছর পার হয়ে গেলেও এখন পর্যনত্ম প্রকল্পের নকশাই প্রণয়ন করতে পারেনি। এ প্রকল্পের এখন পর্যনত্ম কোন অর্থ বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। জাইকা প্রকল্প বাসত্মবায়ন অর্থের বড় অংশ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু এখন জাইকা রেলওয়ের সংস্কার প্রকল্প বাসত্মবায়ন না হওয়া পর্যনত্ম অর্থ ছাড় করবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে।

অন্যদিকে, ৫৫৬ কোটি টাকা ব্যয়ে রেলের ৪৯ ইঞ্জিন কেনার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছিল ১৪ বছর আগে। ৩ বছর মেয়াদের মধ্যে এ ইঞ্জিনগুলো কেনার কথা ছিল। কিন্তু ১৪ বছর পার হয়ে গেলেও ৪৯টি ইঞ্জিন কিনতে পারেনি রেলওয়ে। এ ১৪ বছরে ৩৭টি ইঞ্জিন বা লোকোমোটিভ কেনা হয়েছে। প্রকল্প মেয়াদে ইঞ্জিনগুলো কিনতে না পারায় প্রকল্প ব্যয় বেড়ে গেছে ৪শ’ কোটি টাকা। এভাবে রেলওয়ের বহু প্রকল্প বছরের পর বছর কেটে গেলেও বাসত্মবায়ন হচ্ছে না। প্রকল্পগুলো বেশিরভাগ বিদেশী ঋণনির্ভর বলে প্রকল্পগুলো আলোর মুখ দেখছে না। নতুন প্রকল্পগুলো কিভাবে বাসত্মবায়িত হবে তা নিয়েও যথেষ্ট সংশয় রয়েছে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

[ad#bottom]

Leave a Reply