চলচ্চিত্রে নিয়মিত হতে চান শায়না

আজ মুক্তি পাচ্ছে ‘মেহেরজান’
তরুণ নির্মাতা রুবাইয়াত হোসেন পরিচালিত মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘মেহেরজান’ মুক্তি পাচ্ছে আজ ২১ জানুয়ারি শুক্রবার। দেশের ছয়টি সিনেমা হলে ছবিটি প্রদর্শিত হবে। ছবিটির নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বলিউডের খ্যাতিমান অভিনেত্রী জয়া বচ্চন। মেহেরজানের তরুণী বয়সের চরিত্রে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী শায়না আমিন। এটা তার প্রথম চলচ্চিত্র। মেহেরজান ও নিজের ক্যারিয়ার প্রসঙ্গে শায়না আমিন বাংলানিউজকে বলেছেন নানা কথা।

শোবিজে শায়না আমিনের অভিষেক হয়েছিল মডেল হিসেবে। ২০০৫ সালে সানসিল্ক শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপনে তাকে দেখা যায়। ২০০৬ সালে বদরুল আনাম সৌদের ‘ক্রস কানেকশন’ নাটকের মাধ্যমে ছোটপর্দায় অভিনয়ে তার হাতেখড়ি। এরপর বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেন। ‘মেহেরজান’-এর মধ্য দিয়ে শায়নার চলচ্চিত্রে অভিষেক হলো।

বড়পর্দায় কেমন দেখলেন নিজেকে? উত্তরে শায়না বললেন, ছবির প্রিমিয়ার শোতে প্রথম নিজেকে বড়পর্দায় দেখলাম। নিজেকে সত্যিই চিনতে পারিনি। এ যেন এক নতুন আমি। সেদিন প্রিমিয়ারে যারা ছবিটি দেখেছেন তারা সবাই আমার অভিনয় দেখে ভালোই বলেছেন। কাজটা আমার জন্য চ্যালেঞ্জিং ছিল। আশা করি দর্শকেরও ভালো লাগবে।

মেহেরজানের তরুণী চরিত্রে অভিনয় প্রসঙ্গে শায়না আমিন বললেন, আমি চরিত্রটি আন্তরিকতার সঙ্গে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছি। ছবির পরিচালক রুবাইয়াত আপুর কাছে ছবিটির গল্প শোনার পর ছবিটিতে কাজ করার জন্য আমার মনের ভেতর প্রচন্ড আগ্রহ জন্ম নেয়। মেহের চরিত্রটি আমার মনের মধ্যে লালন করতে থাকি। মেহের চরিত্রটি যা যা করে আমি ঠিক তাই করার চেষ্টা করেছি। যেমন আমি নিজেও ডায়েরি লিখি প্রতিনিয়ত। মেহের চরিত্রটিকে স্বাভাবিকভাবে ফুটিয়ে তোলার জন্য আমি আমার সেই ডায়েরি লেখার অভ্যাসটা বজায় রেখেছি। কী করলে চরিত্রটি ভালোভাবে ফুটিয়ে তোলা যাবে, এ বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে পরিচালকের পরামর্শ নিয়েছি। পরিচালক আমাকে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন।

২০০৮ সালে শেষের দিকে শুরু হয়েছিল ‘মেহেরজান’ ছবির শুটিং। ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে দু বছর পর। এই দীর্ঘ প্রতীক্ষা সম্পর্কে শায়না বললেন, আমি কয়েক দিন পর পর ফোন করে পরিচালক রুবাইয়াত আপুকে বিরক্ত করতাম, জানতে চাইতাম, ছবিটি কবে মুক্তি পাবে। তিনি বলতেন, ভালো কিছুর জন্য একটু তো অপো করতেই হবে। তাই ছবিটি মুক্তির জন্য নীরবেই অপো করছিলাম। ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে, এটা সত্যিই আমার জীবনের এক স্মরণীয় ঘটনা।

‘মেহেরজান’ ছবিটির ভালোলাগা দিকগুলোর কথা জানিয়ে শায়না বলেন, ছবিটির সিনেমাটোগ্রাফি অসাধারণ। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সচরাচর কাহিনীর চেয়ে এই ছবির গল্প একেবারে ভিন্নরকম। ভিক্টর ব্যানার্জি এবং বীরাঙ্গনা চরিত্রে রীতু সাত্তার-এর অভিনয়ই আমার বেশি ভালো লেগেছে। জয়া বচ্চনও এতে অসাধারণ অভিনয় করেছেন।

শায়না আমিন আরো বললেন, ভিক্টর বানার্জির সঙ্গে কাজ করতে পারায় আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি। কাজের পরিবশেকে তিনি এমন করে তোলেন যে, যে কেউ অনায়াসে তার সঙ্গে নির্দ্বিধায় কাজ করতে পারবেন। আসলে তিনি শুধু একজন উঁচুমাপের অভিনেতাই নন, মানুষ হিসেবেও অসাধারণ।

প্রথম ছবিই মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক, এই বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন? প্রশ্নের উত্তরে শায়না বললেন, এটা আমার জন্য সত্যিই সৌভাগ্যের বিষয়। কারণ চলচ্চিত্রে কাজ করার ইচ্ছে ছিল ঠিকই। কিন্তু এমন চমৎকার একটি ছবিতে কাজ করার সুযোগ হবে তা ভাবিনি। ছবিটিতে কাজ করার সময় বুঝতে পেরেছি যারা এই দেশের জন্য শহীদ হয়েছেন, যারা এই দেশকে স্বাধীন করেছেন তারা সত্যিই কত মহান ছিলেন।

লালমাটিয়া কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী শায়না আমিন। তার গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জের কটিয়াটি। বাবা নুরুল আমিন ব্যবসায়ী। মা হাসনা আমিন গৃহিণী। বাবা-মায়ের অনুপ্রেরণাতে তার শোবিজে আসা। ছোটপর্দায় অভিনয়ের পাশাপাশি চলচ্চিত্রেও নিয়মিত হতে চান শায়না। বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে অভিনয়ের ইচ্ছে আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রকে আমি পজেটিভভাবেই দেখি। ভালো কাজ সেখানেও কিছু কিছু হচ্ছে। ভালো গল্পের বাণিজ্যিক ছবিতে অভিনয় করার ইচ্ছে আছে আমার। তবে আপাতত কয়েকটা মাস আমি দেখতে চাই আমার করা ‘মেহের’ চরিত্রটি দর্শক কীভাবে নিয়েছেন।

বর্তমানে শায়নার করা আপন জুয়েলার্স ও তিব্বত পমেডের বিজ্ঞাপন বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে। ফেব্রুয়ারি থেকে বাংলাভিশন চ্যানেলে শায়না আমিনকে দেখা যাবে শরাফ আহমেদ জীবন পরিচালিত ধারাবাহিক নাটক ‘কামিং সুন’-এ, অভিনেতা মোশাররফ করিমের বিপরীতে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

[ad#bottom]

Leave a Reply