জাপানের মন্ত্রিসভা পুনর্গঠন

সংবাদ সম্মেলন করে মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের সংবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান। সেই সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রিত ছিলেন সাপ্তাহিক-এর টোকিও প্রতিনিধি রাহমান মনি
জাপানের প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান বিরোধী দলের চাপের মুখে অবশেষে মন্ত্রিপরিষদ পুনর্গঠন করেছেন। নতুন মন্ত্রিপরিষদে ৪ জন নতুন মুখ, ২ জন মন্ত্রণালয় রদবদল এবং ১১ জন স্বপদে বহাল থাকেন। গত বছর সেনকাকু দ্বীপে চায়নিজ ট্রলার কর্তৃক জাপানি বোটে ধাক্কাকে কেন্দ্র করে জাপানি কোস্টগার্ড কর্তৃক চায়না ট্রলারের ক্যাপ্টেন আটক এবং অবশেষে মুক্ত এবং আইনমন্ত্রী ইয়ানগিদা’র বেফাঁস মন্তব্যকে কেন্দ্র করে পার্লামেন্ট বিরোধী দল সোচ্চার হয়ে ওঠে। বিরোধী দলের অনবরত চাপের মুখে ইয়ানগিদা পদত্যাগ করলেও নবেম্বর মাসে বিরোধী দল নিয়ন্ত্রিত নিম্ন কক্ষে কান কেবিনেটের চিফ ক্যাবিনেট সেক্রেটারি সেনগোকু ইয়োশিতো এবং ট্রান্সপোর্ট মন্ত্রী মাবুচি সুমিওর বিরুদ্ধে তিরস্কার প্রস্তাব পাস হয় এবং এই দুই মন্ত্রীকে অপসারণ না করা হলে বিরোধী দলগুলো একযোগে ডায়েট বিতর্ক বয়কটের হুমকি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী কান এর উপর চাপ প্রয়োগ করে আসছিল। তখন থেকেই মন্ত্রিপরিষদ পুনর্গঠন অবশ্যম্ভাবী নিয়ে মিডিয়ায় বিভিন্ন খবর প্রচার হয়ে আসছিল।

নতুন বছরের দ্বিতীয় দিনে অর্থাৎ ২০১১ জানুয়ারি ২ প্রধানমন্ত্রী প্রেস কনফারেন্সে এ বিষয়ে কিছুটা আভাসও দেন। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে তিনি মন্ত্রিপরিষদে নতুন মুখের অন্তর্ভুক্তির আভাস দেন। এই দিন সাংবাদিকরা প্রধানমন্ত্রী কানকে ওজাওয়া কেলেঙ্কারি এবং মন্ত্রিপরিষদ পুনর্গঠন নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্নবাণে জর্জরিত করেন।

১৩ জানুয়ারি জাপান সরকারের শীর্ষ মুখপাত্র সেনগোকুকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে বিরোধী দলের দাবি কিছুটা পূরণ করেন। সেনগোকুর স্থলাভিষিক্ত হন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এবং কান-এর পূর্বসুরি হাতোয়ামা প্রশাসনের মন্ত্রী এদানো ইউকিও (৪৬), এদানো ইউকিও মাত্র ২৯ বছর বয়সে ১৯৯৩ সালে নিম্ন কক্ষের সদস্য নির্বাচিত হন। সেই থেকে তিনি দলের নীতিনির্ধারণীতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তিনি দলের নীতিনির্ধারণী কাউন্সিলের প্রধানের দায়িত্বও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেছেন।

মাত্র কয়েক ঘণ্টার নোটিসে প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিক সম্মেলন করে কেবিনেট পুনর্গঠনের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে ১৩ জানুয়ারি রাত ৯.৩০ সাংবাদিক সম্মেলনের কথা জানানো হলেও নির্দিষ্ট তারিখ এবং সময় জানাতে অপারগতা প্রকাশ করা হয়। ১৪ জানুয়ারি সকাল ৯টায় প্রেস রিলিজের মাধ্যমে ঐ দিন সন্ধ্যা ৬টায় প্রধানমন্ত্রীর সাংবাদিক সম্মেলনের নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ হয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী কান মন্ত্রিপরিষদের পুনর্গঠনের প্রয়োজনীয়তার কথা সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন এবং নতুন মন্ত্রিপরিষদে স্থান পাওয়াদের নাম ও দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রণালয়ের নাম ঘোষণা করেন। নতুন মন্ত্রিপরিষদে ৪ জন নতুন মুখ, ২ জনের দায়িত্ব রদবদল এবং ১১ জনকে স্বদায়িত্বে বহাল রাখেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাএহারা সেইজি, অর্থমন্ত্রী নোদা ইয়োমিহিকো এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী কিতাজাওয়া তোশিমিকে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে বহাল রাখেন।
প্রথমবারের মতো ক্যাবিনেট মিনিস্টার হিসেবে বিচার ও আইনমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন উচ্চ কক্ষের সাবেক প্রেসিডেন্ট EDA SATSUKI (69)। এ ছাড়াও নাকানো কানসেই, এদানো কানসেই, ইয়োসানো কাওরো নতুন মুখ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে YOSANO KAORO ক্ষমতাসীন দল ডিজেপির (DJP) সদস্য নন। তিনি দলছুট নেতা। ক্ষুদ্র দল ‘সানরাইজ পার্টির’ দ্বিতীয় কর্তা ব্যক্তি ছিলেন YOSANO KAORO। প্রধানমন্ত্রী নাওতো কানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তিনি নতুন মন্ত্রিপরিষদে জায়গা করে নেন। দলছুট এই নেতা ২০০৮-০৯ সাল পর্যন্ত এলডিপির অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। স্বপক্ষে যুক্তি উত্থাপন করে ইয়োসানো বলেন, আমি একজন বাস্তববাদী। আমি দলের পুরনো ধ্যান-ধারণার সঙ্গে একমত নই। পৃথিবী অনেক এগিয়ে গেছে। আমাদেরকে এগিয়ে যেতে হবে। সামাজিক নিরাপত্তা ও কর (Tax) সংস্কারে আমি প্রধানমন্ত্রী কানকে সহযোগিতা করতে চাই। তিনি আমাকে যে কোনো দায়িত্ব দিলে তা পালনে সচেষ্ট থাকব। বাংলাদেশের মওদুদের মতো সুবিধাবাদী নেতা হলেন ইয়োসানো। প্রধানমন্ত্রী কানও তাকে পেয়ে খুব উৎফুল্ল এবং তৃপ্তির ঢেকুর তোলেন। এর আগে অবশ্য সানরাইজ পার্টি নাওতো কান সরকারে যোগ দেবার আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেছিল।

মন্ত্রিপরিষদ থেকে ছিটকে পড়েন সেনগোকু ইয়োশিতো, মাবুচি সুমিও এবং তোমিকো ওকাজাকি। কায়েদা বানরি এবং ওওহাতা আকিহিরোর দায়িত্ব পুনঃবন্টন হয়।

নাওতো কান-এর পুনর্গঠিত মন্ত্রিপরিষদে ৪ জন উচ্চ কক্ষের সদস্য, ১৩ জন নিম্ন কক্ষের সদস্য এবং একজন ডায়েট সদস্যের বাইরে থেকে নেয়া হয়। YOSHIHIRO KATAYAMA (59) কোনো সংসদ সদস্য নয়। প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান নিজেও নিম্ন কক্ষের একজন সদস্য। নতুন কেবিনেট ১৪ জানুয়ারি থেকে নিয়োগ পেয়ে কাজে যোগ দিয়েছেন।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#bottom]

Leave a Reply