পদ্মা সেতু হলেও ঢাকা-মাওয়া রেল যোগাযোগ দূর অস্ত

ইলিয়াস খান
পদ্মা সেতুতে লাইন থাকলেও আপাতত রাজধানী ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ থাকছে না। ঢাকা থেকে মাওয়া পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের প্রাথমিক কাজের ডিপিপি (ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট প্রফর্মা) তৈরি না হওয়ায় এই আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রেলপথ দিয়ে সেতু চালুর দিন থেকেই রেলগাড়ি আসবে মাওয়া পর্যন্ত। এ বিষয়ে যোগাযোগ সচিব মো. মোজাম্মেল হক খান বলেন, প্রথমে পদ্মা সেতুর পশ্চিম পাড়ের রেলপথ স্থাপন করা হবে। তারপর ঢাকা-মাওয়া অংশে।

জানা গেছে, পদ্মা সেতু থেকে রাজধানী ঢাকা পর্যন্ত রেলপথ স্থাপন পুরোপুরি অনিশ্চিত। এ প্রকল্পের জন্য অর্থের যোগান, সমীক্ষা, জমি অধিগ্রহণ কোনো কাজই শুরু হয়নি। ঢাকা থেকে মাওয়া পর্যন্ত রেলপথ স্থাপনে কয়েকটি বড় সেতুসহ অনেক সেতু তৈরি করতে হবে। এটা সময়সাপেক্ষ। এছাড়া ওই এলাকার জমির দামও বেশি। এজন্য পদ্মা সেতু চালুর দিন থেকে ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ স্থাপনের সম্ভাবনা খুবই কম।

ঢাকা থেকে পদ্মা সেতুর পশ্চিম পাড় ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত দূরত্ব ৮৩ কিলোমিটার। অর্থাত্ পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে রাজধানীর সঙ্গে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রেল যোগাযোগ স্থাপন করতে ওই ৮৩ কিলোমিটার নতুন রেলপথ তৈরি করতে হবে। এরই মধ্যে সেতুর পশ্চিম পাড়ে রেলপথের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু হয়েছে।
ঢাকা থেকে গেন্ডারিয়া হয়ে মাওয়া পর্যন্ত দূরত্ব ৫০ কিলোমিটার। এর মধ্যে গেন্ডারিয়া পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার রেলপথ আছে। এই পথ দিয়ে পদ্মা সেতু পর্যন্ত রেলগাড়ি নিতে পথটির আমূল সংস্কার প্রয়োজন। আর বাকি ৪৬ কিলোমিটার নতুনভাবে তৈরি করতে হবে। কিন্তু এ জন্য কোনো অর্থ বরাদ্দ নেই। এ পর্যন্ত সমীক্ষাও চালানো হয়নি। জমি অধিগ্রহণও করা হয়নি।

গেন্ডারিয়া থেকে মাওয়া পর্যন্ত রেলপথে ছোট-বড় ৫৬টি সেতু নির্মাণ করতে হবে। এর মধ্যে বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী নদীসহ বিভিন্ন স্থানে কমপক্ষে ৪ থেকে ৫টি বড় সেতু নির্মাণ করতে হবে। যা অনেক সময়সাপেক্ষ। এছাড়া এই পথে জমির দামও খুব বেশি । তাই সেখানে রেলপথ না করে উড়াল সেতু করা হবে কিনা তা নিয়েও সংশ্লিষ্ট মহল দ্বিধা-দ্বন্দ্বে রয়েছেন।

সূত্র জানায়, ঢাকা থেকে মাওয়া পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের জন্য আনুমানিক খরচ ধরা হয়েছে ৫ হাজার কোটি টাকা। এই টাকার প্রস্তাবসহ প্রকল্পটি একনেকে পাঠানো হয়েছিল। একনেক থেকে এ ব্যাপারে বলা হয়েছে, আগে ফরজ কাজ, তারপর নফল। অর্থাত্ আগে সেতু তারপর রেলপথ। এছাড়া টেকনিক্যাল কাজ তথা সমীক্ষা শেষ করার পরই অর্থের বিষয় আসবে বলে জানানো হয়।

তবে ঢাকা থেকে মাওয়া পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের জন্য এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) সার্ভে শুরুু করবে বলে জানা গেছে। আর তারাই এ প্রকল্পের জন্য অর্থ সহায়তা দেবে বলে আশা করছে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়।

এদিকে পদ্মা সেতু চালুর দিন থেকে সেতুতে রেলসংযোগ দেয়ার লক্ষ্যে প্রথম পর্যায়ে ভাঙ্গা থেকে জাজিরা হয়ে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে মাওয়া পর্যন্ত (প্রায় ৪২ কিমি.) নতুন ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এডিবি রেলপথের সার্ভে ও বিস্তারিত ডিজাইন প্রণয়নের জন্য ১৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দিতে সম্মত হয়েছে। অর্থ প্রাপ্তি সাপেক্ষে মাওয়া থেকে ঢাকা পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।
আর পদ্মা সেতু রেললিংক পর্যায়-১ রেলপথটি ভাঙ্গা হয়ে ফরিদপুর-পাচুরিয়া দিয়ে বিদ্যমান রেলপথের সঙ্গে যুক্ত হবে এবং সে লক্ষ্যে পাচুরিয়া-ফরিদপুর-ভাঙ্গা রেলপথ (৬০.১০ কি.মি.) নতুন করে চালু করার কাজ সরকারের অর্থায়নে বাস্তবায়নের প্রকল্প প্রস্তাব গত বছরের ১৭ আগস্ট অনুমোদিত হয়েছে।

[ad#bottom]

Leave a Reply