মেহের চরিত্রটি মনের মধ্যে লালন করেছি : শায়না আমিন

গতকাল ঢাকাসহ সারাদেশে মোট ছয়টি হলে মুক্তি পেয়েছে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র মেহেরজান। ছবিটিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন দুজন। মেহেরজানের বড়বেলার চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া বচ্চন এবং তরুণী বয়সের চরিত্রে অভিনয় করেছেন শায়না আমিন। এটি শায়না আমিন অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র। বড় পর্দায় অভিনয় নিয়ে বিনোদনের মুখোমুখি হয়েছেন এ অভিনেত্রী।

মেহেরজানের প্রিমিয়ারে তো দর্শকের কিছুটা হলেও প্রতিক্রিয়া পেয়েছেন, কেমন লাগছে?
মেহেরজানের প্রিমিয়ার হলো ১৮ জানুয়ারি। জীবনে এই প্রথম নিজেকে বড়পর্দায় দেখলাম। নিজেকে সত্যিই আমি চিনতে পারিনি। এ যেন এক নতুন আমি। সেদিন প্রিমিয়ারে যারা ছবিটি দেখেছেন তারা সবাই আমার অভিনয়ের প্রশংসা করেছেন। আশা করি দর্শকদেরও ছবিটি ভালো লাগবে।

আজ তো ছবিটি ছয়টি হলে মুক্তি পেয়েছে, কিছুটা ভয় কি কাজ করছে?
না, তেমন ভয় কাজ করছে না। কারণ, আমি মেহেরজানের যে তরুণী চরিত্রে অভিনয় করেছি, তা আমি আমার আন্তরিকতা দিয়ে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছি। আমার বিশ্বাস চরিত্রটি সর্বোপরি আমার অভিনয় দর্শকদের ভালো লাগবে।

ছবিতে অভিনয়ের আগে আপনার প্রস্তুতি কেমন ছিল?
ছবির পরিচালক রুবাইয়াত্ আপুর কাছে ছবিটির গল্প শোনার পর এ ছবিতে কাজ করার জন্য আমার মনের ভেতর প্রচণ্ড আগ্রহ জন্ম নেয়। মেহের চরিত্রটি আমার মনের মধ্যে লালন করতে থাকি। মেহের চরিত্রটি যা যা করে, আমি ঠিক তাই করার চেষ্টা করেছি। যেমন—আমি নিজেও ডায়েরি লিখি প্রতিনিয়ত। মেহের চরিত্রটিকে স্বাভাবিকভাবে ফুটিয়ে তোলার জন্য আমি আমার সেই ডায়েরি লেখার অভ্যাসটা বজায় রেখেছি। বিভিন্ন সময়ে পরিচালকের সহযোগিতা নিয়েছি যে কী করলে চরিত্রটি ভালোভাবে ফুটিয়ে তোলা যায়। সত্যি বলতে কী আমার পরিচালক আমাকে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন।

ছবির কাজ শুরুর দিকের কথা জানতে চাচ্ছিলাম?
মেহেরজান ছবির পুরো ইউনিটটিই ছিল আন্তরিকতায় ভরপুর। সবাই সবাইকে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। কাজ করার সময় পরিচালক এমন পরিবেশ তৈরি করে দিতেন যে কোনো কাজ খুব সহজেই করতে পারতাম।

ছবির কাজ তো শুরু হয়েছিল ২০০৮ সালের শেষের দিকে। দীর্ঘদিনের অপেক্ষা কেমন লেগেছে?
আমি কিন্তু সব সময়ই রুবাইয়াত্ আপুকে জিজ্ঞাসা করতাম যে ছবিটি কবে মুক্তি পাবে। তিনি শুধু বলতেন ভালো কিছুর জন্য তো একটু অপেক্ষা করতেই হবে। তাই নীরবে ছবিটি মুক্তির জন্য অপেক্ষাই করছিলাম। অবশেষে ছবিটি আজ মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এটা সত্যিই আমার জীবনের এক স্মরণীয় ঘটনা।

ছবির কোনদিক আপনার কাছে বেশি ভালো লেগেছে?
ছবিটির ফটোগ্রাফি অসাধারণ। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গতবাঁধা কাহিনীর চেয়ে এই ছবির গল্প সত্যিই একেবারে ভিন্নরকম। আর ভিক্টর ব্যানার্জি এবং বীরাঙ্গনা চরিত্রে অভিনয় করা রীতু সাত্তারের অভিনয়ই আমার সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে।

ভিক্টর ব্যানার্জির সঙ্গে কাজ করতে কেমন লেগেছে?
তিনি অসাধারণ একজন মানুষ। কাজের পরিবেশকে তিনি এমন করে তোলেন যে কেউ অনায়াসে তার সঙ্গে নির্দ্বিধায় কাজ করতে পারবেন। আসলে তিনি একজন অভিনেতা হিসেবে অনেক উঁচু মাপের।

প্রথম ছবিই মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক। এ বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন?
এটা আমার জন্য সত্যিই অনেক সৌভাগ্যের। কারণ চলচ্চিত্রে কাজ করার ইচ্ছে ছিল ঠিকই। কিন্তু এমন চমত্কার একটি ছবিতে কাজ করার সুযোগ যে আমাকে রুবাইয়াত্ আপু তৈরি করে দেবেন তা ভাবিনি। ছবিটিতে কাজ করার সময় বুঝতে পেরেছি, যারা এ দেশের জন্য শহীদ হয়েছেন, যারা এই দেশকে স্বাধীন করেছেন তারা সত্যিই কত মহান ছিলেন।

আপনি তো বিজ্ঞাপন এবং নাটকেও কাজ করেন। নতুন কী কাজ করছেন?
এই মুহূর্তে আমার করা দুটি বিজ্ঞাপন বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারিত হচ্ছে। একটি তিব্বত পমেড ও অন্যটি আপন জুয়েলার্স। আগামী মাস থেকে আমার অভিনীত শরাফ আহমেদ জীবনের কামিং সুন ধারাবাহিক নাটকটির প্রচার শুরু হবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply