পদ্মা সেতু : যাত্রীর চাপ সামলাতে ১৩ প্রকল্প

৩০০ কিলোমিটার রেলপথ, চার লেনের তিন মহাসড়ক
পার্থ সারথি দাস: পদ্মা সেতু নির্মাণের সঙ্গে সংগতি রেখে সড়ক ও রেলপথের অবকাঠামো উন্নয়নে ১৩টি প্রকল্পের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সেতুর দক্ষিণ ও পশ্চিম অঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় এসব প্রকল্পের কোনোটি নতুন, কোনোটি সংস্কার বা সম্প্রসারণ করতে হবে। সেতুর সঙ্গে সংগতি রাখতে নতুন ৩০০ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করারও পরিকল্পনা রয়েছে। যানবাহনের চাপ আরো বহুগুণ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গাসহ কমপক্ষে তিনটি মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করা হবে। নির্মাণ করা হবে কাজিরটেক ও লেবুখালি সেতু। যোগাযোগ মন্ত্রণালয়, সড়ক ও জনপথ (সওজ) ও রেলওয়ে সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে রয়েছে বিভাগীয় শহর খুলনা ও বরিশাল। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল সুন্দরবন ও কুয়াকাটা সৈকত রয়েছে ওখানে। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমুদ্রবন্দর মংলা ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ স্থলবন্দর বেনাপোল ও ভোমরাকে ঘিরে তৈরি হয়েছে অপার সম্ভাবনা। দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ওপর দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অনেকাংশেই নির্ভর করছে। এসব বিচারে প্রকৌশলী ও সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু এই সেতু নির্মাণ হলেই হবে না, সেতুটির সঙ্গে সংগতি রেখে সড়ক ও রেলের অবকাঠামোও নির্মাণ করতে হবে। কিছু অবকাঠামো সম্প্রসারণ ও সংস্কার করতে হবে। যেসব সড়ক অপ্রশস্ত, সেগুলো চার লেনে উন্নীত করা হবে।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. আজিজুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, পদ্মা সেতুর সঙ্গে সংগতি রেখে সড়ক প্রশস্তকরণ ও সেতু নির্মাণের প্রকল্পগুলোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এগুলোর যাচাই-বাছাই ও কোনোটির অর্থ সংস্থানের চেষ্টা চলছে।

রেলওয়ের মহাপরিচালক টি এ চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, পদ্মা সেতুর নির্মাণের পরপর কিছু রেলপথ এবং পরবর্তী সময়ে বাকি রেলপথ নির্মাণ করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

সওজ সূত্রে জানা গেছে, সড়ক উন্নয়নে প্রকল্প রয়েছে ৯টি। এর মধ্যে রয়েছে কালনা সেতুসহ ভাটিয়াপাড়া-কালনা-লোহাগড়া-নড়াইল-যশোর-বেনাপোল সড়ক নির্মাণ প্রকল্প। চার লেনে উন্নীত করা হবে ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা, ফরিদপুর-ভাঙ্গা-বরিশাল ও খুলনা-মংলা মহাসড়ক। নির্মাণ করা হবে ভাঙ্গা-নাগরকান্দা-বোয়ালমারি-মোহাম্মদপুর-মাগুরা সড়ক।

এ ছাড়া মোস্তফাপুর-মাদারীপুর-শরীয়তপুর-চাঁদপুর সড়কে আড়িয়ালখাঁ নদীর ওপর কাজিরটেক, বরিশাল-পটুয়াখালী জাতীয় মহাসড়কে লেবুখালী সেতু নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া সাতক্ষীরা-আলিপুর-ভোমরা স্থলবন্দর সড়ক উন্নয়ন ও তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হবে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, এ সেতুর সঙ্গে সংগতি রাখতে দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলে কমপক্ষে প্রায় ৩০০ কিলোমিটার নতুন রেললাইন নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১৩০ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণের জন্য ইতিমধ্যে পৃথক দুটি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আরো দুটি প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ করা হবে প্রায় ১৭০ কিলোমিটার রেলপথ।

কাশিয়ানী থেকে গোপালগঞ্জ হয়ে টুঙ্গিপাড়া পর্যন্ত প্রায় ৫৫ কিলোমিটার নতুন ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণ ও কালুখালী থেকে ভাটিয়াপাড়া পর্যন্ত প্রায় ৮০ কিলোমিটার রেলপথ পুনর্বাসন প্রকল্পটি গত ৫ অক্টোবর একনেকে অনুমোদন করা হয়েছে। এ ছাড়া ঈশ্বরদী থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত ৭৮ কিলোমিটার নতুন ব্রডগেজ রেলপথ এবং ওই এলাকায় পদ্মার ওপর রেলসেতু নির্মাণ প্রকল্পটিও একই দিনে একনেকে অনুমোদিত হয়। এ দুই প্রকল্পে নতুন রেলপথ হচ্ছে ১৩০ কিলোমিটার।

এ ছাড়া আরো ১৭০ কিলোমিটার নতুন রেললাইন স্থাপনের জন্য দুটি প্রকল্প সামনে রেখে প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে। এর মধ্যে ভাঙ্গা থেকে নড়াইল হয়ে যশোর পর্যন্ত প্রায় ৭০ কিলোমিটার ব্রডগেজ রেললাইন নির্মাণ প্রকল্প সামনে রেখে এখন সমীক্ষা চালাচ্ছে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক। সমীক্ষা শেষ হলেই উন্নয়ন প্রকল্প ছক তৈরি করা হবে বলে যোগাযোগ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

এ ছাড়া ভাঙ্গা থেকে মাদারীপুর হয়ে বরিশাল পর্যন্ত প্রায় ১০০ কিলোমিটার ব্রডগেজ রেললাইন নির্মাণের জন্য অভ্যন্তরীণ কমিটির সভার পর উন্নয়ন প্রকল্প ছক (ডিপিপি) পুনর্গঠন করা হচ্ছে।

[ad#bottom]

Leave a Reply