আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর হলে নির্মাণ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘটবে

আড়িয়ল বিলে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তৈরি হলে ঢাকা মহানগরের ওপর চেপে থাকা বোঝা অনেকাংশে কমে যাবে। দেশের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এ বিস্তৃত এলাকায় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধি ঘটবে। গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে দৈনিক হৃদয়ে বাংলাদেশ আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর : আশা ও প্রত্যাশা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন, বেস্ট এয়ারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. এম হায়দার উজ্জামান।

হায়দার উজ্জামান বলেন, দেশব্যাপী বিমানের যাত্রীদের জন্য বিমান উঠানামায় ঢাকার কাছাকাছি কোনো সুবিধাজনক স্থানেই বিমানবন্দর হওয়া বাঞ্ছনীয়। তাহলে যোগাযোগ ব্যবস্থার নির্মাণ ব্যয়ও তুলনামূলকভাবে অনেক কম হবে। নোয়াখালী, সিলেট, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, ঢাকা মহানগরসহ দেশের সমগ্র দক্ষিণ অংশ, দক্ষিণ-পশ্চিম অংশ এবং বরিশালসহ দক্ষিণ-পূর্বাংশের জনগণও উপকৃত হবে। ফলে ঢাকা মহানগরের ওপর চেপে থাকা বিশাল যে বোঝা তা অনেকাংশে কমে যাবে। দেশের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এ বিস্তৃত এলাকায় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের উল্লেখ্যযোগ্য প্রবৃদ্ধি ঘটবে।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত জায়গায় বিমানবন্দর তৈরি হলে বিমান যাত্রীরা সড়ক, রেল ও নদীপথ ব্যবহার করতে পারবে। এছাড়া রপ্তানির বিষয় আরো বিস্তৃত হবে এবং সময়ও কম লাগবে। পদ্মা সেতু তৈরি, একটি বিমানবন্দর, নদীবন্দর, কন্টেইনার টার্মিনাল, রেলওয়ে স্টেশন, ইপিজেড, ট্যুরিস্ট জোন গড়ে ওঠার পর এই অঞ্চল একটি ব্যবসায়িক কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠবে।

শহীদুল হক খানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন কবি কাজী রোজী, লে. কর্নেল (অব.) এম মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক আলী নিয়ামত প্রমুখ।

[ad#bottom]

Leave a Reply