আড়িয়ল বিল এলাকায় ঝাড়ু মিছিল

আড়িয়ল বিলে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের প্রতিবাদে ও নিরীহ এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার এবং গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান খানের আগমনের প্রতিবাদে আড়িয়ল বিল এলাকায় মহিলাদের ঝাড়ু মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল দুপুরে বিল রক্ষা কমিটির উদ্যোগে মুন্সিনগর, মদনখালী ও মোসলেমহাটি গ্রামের হাজার হাজার নারী-পুরুষ ঝাড়ু মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। কয়েক হাজার নারী-পুরুষ সোনাতলা চান্দের বাজার থেকে প্রায় ৪ কিমি পায়ে হেঁটে ঝাড়ু মিছিল নিয়ে গোবিন্দপুর বাজারে এসে সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তারা বলেন, ভূমিদস্যুদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে সরকার বিভিন্ন জাতের ফসল উৎপাদনের শস্য ভাণ্ডার হিসেবে খ্যাত কয়েক শ’ বছরের ঐতিহ্যবাহী জলাশয় ও আড়িয়ল বিলকে বিপন্ন করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। কৃষিপ্রধান দেশের কৃষকের স্বার্থকে ক্ষুণ্ন করে মহাজোট সরকার উচ্চাভিলাষী স্বপ্ন বাস্তবায়নে অপচেষ্টার পাঁয়তারা করছে। বিলবাসীর শত লাশের বিনিময়ে হলেও তাদের অস্তিত্ব রক্ষায় এগিয়ে যাবে। পুলিশি হয়রানি ও মামলার ভয় দেখিয়ে কৃষকের ন্যায্য দাবি আদায়ের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। মিছিলে যুবক-যুবতীরা মাথায় কাফনের কাপড় বেঁধে ও হাতে লাঠি নিয়ে প্রতিমন্ত্রীর আগমনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করে।

মিছিলে উপস্থিত ছিলেন এডভোকেট আবদুর রশিদ, আবু সাঈদ, নাসিমা খানম, মাসুদুর রহমান, ফারুক হোসেন রাজু প্রমুখ। বিকাল সাড়ে চারটায় কামারখোলা মুন্সিনগর ফ্রেন্ডস ক্লাবের উদ্যোগে প্রতিবাদ সভায় আড়িয়ল বিলকে রক্ষা করতে এলাকাবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানায়। ক্লাবের সহ-সভাপতি মুনছের মোড়লের সভাপতিত্বে আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব জিয়াউর রহমান, ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, বোরহান খান, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

মানবজমিন
—————————————

আড়িয়ল বিল এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশ
প্রতিমন্ত্রীর আগমনের প্রতিবাদ

আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রীর আগমনের প্রতিবাদে গতকাল শনিবার আড়িয়ল বিল এলাকায় মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে।

তবে প্রতিমন্ত্রী আব্দুল মান্নান খান আড়িয়ল বিল এলাকায় যাননি। তিনি নবাবগঞ্জ পাইলট উচ্চবিদ্যালয় মাঠে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, একটি কুচক্রী মহল বঙ্গবন্ধুর নামে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের পরিকল্পনাকে বাধাগ্রস্ত করতে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ও গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে আন্দোলনের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে ও মহাজোট সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়ন থামিয়ে দিতে অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। আড়িয়ল বিলে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়নে সহযোগিতা করতে তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানান।

বিল রক্ষা কমিটির উদ্যোগে গতকাল দুপুরে মুন্সিনগর, মদনখালী ও মোসলেমহাটি গ্রামের হাজার হাজার নারী-পুরুষ নবাবগঞ্জের সোনাতলা চান্দের বাজারে জড়ো হয়। এখান থেকে কয়েক হাজার নারী-পুরুষ মিছিল বের করে। মিছিলে নারীরা ঝাড়ু নিয়ে বিক্ষোভ করে। তরুণেরা মাথায় কাফনের কাপড় বেঁধে ও হাতে লাঠি নিয়ে প্রতিমন্ত্রীর আগমনের প্রতিবাদ জানায়। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট আব্দুর রশিদ, আবু সাঈদ, নাসিমা খানম, মাসুদুর রহমান, ফারুক হোসেন প্রমুখ।

মিছিলটি প্রায় চার কিলোমিটার দূরে গোবিন্দপুর বাজারে গিয়ে শেষ হয়। এখানে সমাবেশে বক্তারা বলেন, ভূমিদস্যুদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে সরকার শস্যভান্ডার হিসেবে খ্যাত কয়েক শ বছরের ঐতিহ্যবাহী জলাশয় ও আড়িয়ল বিলকে বিপন্ন করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। কৃষিপ্রধান দেশের কৃষকের স্বার্থকে ক্ষুণ্ন করে মহাজোট সরকার উচ্চাভিলাষী স্বপ্ন বাস্তবায়নের অপচেষ্টা করছে। শত লাশের বিনিময় হলেও বিলবাসী নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় এগিয়ে যাবে। পুলিশি হয়রানি ও মামলার ভয় দেখিয়ে কৃষকের ন্যায্য দাবি আদায়ের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। সমাবেশ থেকে নিরীহ এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়।

বিকেল সাড়ে চারটায় কামারখোলা মুন্সিনগর ফ্রেন্ডস ক্লাবের উদ্যোগে কামারখোলা এলাকায় প্রতিবাদ সভায় আড়িয়ল বিলকে রক্ষা করতে এলাকাবাসীকে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানানো হয়। ক্লাবের সহসভাপতি মুনছের মোড়লের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির সদস্যসচিব জিয়াউর রহমান, ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা বোরহান খান, চুড়াইন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও পর্যটন নগর গড়তে কোনো বাড়িঘর যাতে অধিগ্রহণের আওতায় না পড়ে, সেদিকে সরকার নজর দেবে। দোহার, নবাবগঞ্জ ও শ্রীনগরবাসীর উদ্দেশে প্রতিমন্ত্রী বলেন, কোনো মহলের উসকানিতে কান না দিয়ে সরকারকে ভালো কাজে সহযোগিতা করতে হবে।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নবাবগঞ্জ পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি নাসিরউদ্দিন, অধ্যক্ষ মানবেন্দ্র দত্ত, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মনির হোসেন হাওলাদার, প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যক্ষ সাইদুর রহমান প্রমুখ।

প্রথম আলো
——————————-

[ad#bottom]

Leave a Reply