আড়িয়ল বিল নিয়ে নতুন রাজনীতি শুরু

ঝর্ণা মনি : আড়িয়ল বিলকে নিয়ে নতুন রাজনীতি শুরু হয়েছে। উপনির্বাচন ও পৌর নির্বাচনের ডামাডোল পেরিয়ে আলোচনার শীর্ষে এখন আড়িয়ল বিল। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ ও আড়িয়ল বিলকে নিয়ে নতুন করে রাজনৈতিক ফায়দা লুটার সুযোগ খুঁজছে একশ্রেণীর স্বার্থান্বেষী মহল। অথচ ভূমি অধিগ্রহণের জন্য প্রাথমিকভাবে আড়িয়ল বিলকে পছন্দ করা হলেও এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট মহল। নতুন বিমানবন্দরের জন্য ফরিদপুর, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইলে জায়গা খোঁজা অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে আড়িয়ল বিলের ২৫ হাজার একর জমিকে ঘিরে নতুন করে উত্তপ্ত হচ্ছে রাজনৈতিক মাঠ। এর পক্ষে-বিপক্ষে নানান বক্তব্য বাতাসে উড়ছে। পরিবেশ বিজ্ঞানীদের যুক্তি, এর ফলে ঢাকা ও মুন্সিগঞ্জ জেলার তিন উপজেলায় বিস্তৃত মধ্যাঞ্চলের সবচেয়ে বড় জলাধারটি শেষ হয়ে যাবে। এর ফলে পরিবেশ ও প্রতিবেশগত কী ক্ষতি হবে, তা নিয়েও কোনো সমীক্ষা হয়নি বলে তাদের অভিযোগ। পরিবেশবিদদের মতে, মিঠাপানি ও জীববৈচিত্র্যের বড় আধার এ বিল ধ্বংস করা হলে পরিবেশগত ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। ঢাকার আশপাশে বন্যার প্রকোপও বাড়বে। বিষয়টিকে রাজনৈতিক ইস্যুতে ব্যাখ্যা দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, আড়িয়ল বিলে প্রস্তাবিত নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করা হচ্ছে একজনের নামের জন্য। গত শনিবার এ মন্তব্য করে খালেদা জিয়া বলেন, নতুন বিমানবন্দরের কোনো প্রয়োজন নেই। একজনের নামের জন্য, হাজার হাজার কোটি টাকার পরিকল্পনা করে লুটপাট করতে এ বিমানবন্দর করা হচ্ছে। ওই সময় হযরত শাহজালাল (রহঃ) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে খালেদা জিয়া বলেন, বর্তমান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি শতভাগ ব্যবহার করা হচ্ছে না। সেখানে নতুন বিমানবন্দরের কোনো দরকার নেই। শুধু বক্তব্যের মধ্যেই থেমে নেই আড়িয়ল বিল প্রসঙ্গটি। এ নিয়ে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, মামলা-হামলা, যাত্রীবাহী বাসে আগুন লাগানো, ভাঙচুরও কম হয়নি। গত সপ্তাহে এ নিয়ে মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরে সংঘর্ষের সময় একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন এবং ফায়ার সার্ভিসের গাড়িসহ অন্তত ২০টি যানবাহন ভাঙচুর করা হয়। ভাঙচুর করা হয় আশপাশের কমপক্ষে ৩০টি বাড়িঘর ও দোকান। ওই ঘটনায় চার হাজারেরও বেশি মানুষের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ।

স্থানীয় জনগণের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া। দেশের উন্নয়নের স্বার্থে এসব স্বার্থান্বেষী ও হানাহানির রাজনীতি পরিহারের পরামর্শ দিয়েছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এ বিষয়ে সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, নতুন বিমানবন্দর নিয়ে এ ধরনের সংঘর্ষের রাজনীতি কারো কাম্য নয়। তবে দেশের উন্নয়নে নতুন বিমানবন্দরের প্রয়োজনীয়তা, স্থান নির্বাচনের ক্ষেত্রে পরিবেশ, জীববৈচিত্র্য প্রভৃতি বিষয়ে আমাদের আরো স্টাডি করার সুযোগ রয়েছে। আশা করি সরকার এসব বিষয় গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করবে। পাশাপাশি অন্যরাও এ বিষয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুটা থেকে বিরত থাকবে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৯ আগস্ট বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের ব্যাপারে অর্থনৈতিক বিষয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠক শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে বলা হয়, প্রকল্পটি সরকারি ও বেসরকারি অংশীদারির (পিপিপি) মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হবে। নতুন বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য প্রাক-সম্ভাব্যতা কমিটি সাতটি স্থান সরজমিন পরিদর্শন করে তিনটি স্থানের নাম প্রস্তাব করে। স্থানগুলো হলোÑ ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ত্রিশাল, আমিরাবাড়ী, মোক্ষপুর ও মঠবাড়ী ইউনিয়ন। দ্বিতীয় স্থানটি হচ্ছেÑ ত্রিশাল উপজেলার রামপাল, কানহর, কাঁঠাল ও বৈলর ইউনিয়ন। তৃতীয়ত, টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর। এরপর কমিটি ১৫ নভেম্বর আবার বিমানবন্দরের স্থান নির্বাচনের জন্য ফরিদপুরের ভাঙ্গা, মাদারীপুরের শিবচর ও রাজৈর, শরীয়তপুরের জাজিরা এবং মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরের আড়িয়ল বিল এলাকা পরিদর্শন করে। সরকারি নথিপত্র অনুযায়ী, প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ হাজার কোটি টাকা। পাশাপাশি সেখানে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সিটি’ নামের একটি উপশহর গড়ার সিদ্ধান্তও রয়েছে সরকারের।

[ad#bottom]

Leave a Reply