আড়িয়ল বিলের ঘটনায় সরকার দায়ী: দেলোয়ার

বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ ২ ফেব্রুয়ারি
আড়িয়ল বিলে শক্তি প্রয়োগ করে শেখ হাসিনা বাবার নামে বিমানবন্দর নির্মাণ করতে চাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন। একই সঙ্গে শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারী, আইন-শৃঙ্খলার অবনতি, পৌরসভা-উপনির্বাচনে ভোট কারচুপি ও হবিগঞ্জে যুবদল নেতা মইনুল হত্যার প্রতিবাদ এবং নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবিতে আগামী ২ ফেব্রুয়ারি ঢাকার মুক্তাঙ্গণে বিক্ষোভ সমাবেশ ঘোষণা করেছেন।

সোমবার বিকেলে নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের যৌথসভা শেষে মহাসচিব এসব কথা বলেন।

খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘অবৈধ, অসাংবিধানিক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নিয়োগকৃত এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি, আগামীতেও হবে না। তারা সকল নির্বাচনে সরকারের পক্ষে ভোট কারচুপিতে সহায়তা করেছে।’

নির্বাচন কমিশনার সাখাওয়াত হোসেনের বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘এই নির্বাচন যদি মডেল হয়-তাহলে কারচুপির নির্বাচন কোনটি। জনগণ দেখেছে- নির্বাচন কেমন হয়েছে। অথচ তিনি এই নির্বাচনকে মডেল বলে সরকারের পক্ষে সাফাই গাইলেন।’

তিনি বলেন, ‘একটি নীল নকশার পাতানো নির্বাচনের মাধ্যমে এই সরকারকে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করা হয়েছিলো। তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি। তাই জনগণের জন্য তারা কিছু করছে না। তারা যেসব ওয়াদা নিয়ে এসেছিলো তার একটিও বাস্তবায়ন করতে পারেনি। তারা দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে চুক্তির মাধ্যমে প্রভুদের খুশি করা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ও লুটপাটে দেশের মানুষ এখন দিশেহারা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যেদিন বলেন আইন শৃঙ্খলা ভালো সেদিনই কয়েকটি লাশ পাওয়া যায়।’

তিনি বলেন, ‘লন্ডনেও সাংবাদিকরা প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠান বর্জন করেছে।’

তিনি বলেন, ‘সীমান্তে প্রায় প্রতিদিন মানুষ হত্যা করা হচ্ছে। আগে পতাকা বৈঠক হতো, এখন তাও হয় না। এমনকি প্রতিবাদটুকুও করা হয় না।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘দেশ নিয়ে তাদের কোনো মাথাব্যাথা নেই। তারা হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করে শুধু বাবার নাম দেওয়ার জন্য নতুন বিমানবন্দর বানাচ্ছে। জিয়া বিমানবন্দরের নাম পরিবর্তন করতে ১৫ হাজার কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে। এই টাকা দিয়ে জনগণের জন্য কিছু করলে দেশ ও জনগণ উপকৃত হতো।’

তিনি বলেন, ‘আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দরের কি দরকার। যে বিমানবন্দর আছে তাই ২৭ ভাগ ব্যবহার হয়। এই বিমানবন্দরের নামে ৫০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করে অর্ধেক লুটপাট করবে।’

তিনি আড়িয়াল বিলের জনগণের সঙ্গে আছেন উল্লেখ করে খোন্দকার দেলোয়ার বলেন, ‘আমরা জনগণের স্বার্থেই কথা বলবো। সেখানে যা ঘটছে এজন্য সরকারই দায়ী বলে তিনি দাবি করেন।’

সংসদে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রুপ দেয়ার জন্য আমরা শুরু থেকেই আগ্রহী ছিলাম। কিন্তু তাদের মধ্যে কোনো গণতান্ত্রিক আচরণ ছিলো না। তারা সংসদের সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট করে দিয়েছে। ইতিমধ্যে সংসদের পরিবেশ যেভাবে বিনষ্ট করা হয়েছে তা ফিরিয়ে আনতে হবে।’

বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের ৯০ দিনের ভয় দেখানো হচ্ছে। তারা যা করেছিলো তার থেকে আমরা অনেক কম করেছি।’

সংসদে যাওয়ার সে পরিবেশ আর ফিরে আসবে কিনা সন্দেহ পোষণ করে তিনি বলেন, ‘সংসদে যাওয়ার ব্যাপারে দলীয় ফোরাম ও সংসদীয় কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে।’

আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণ বিরোধী আন্দোলনে পুলিশ নিহত হওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘জনগণের দাবির আন্দোলনের মুখে পূর্তপ্রতিমন্ত্রী বললেন-এ আন্দোলন স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচার ঠেকানোর জন্য ষড়যন্তের অংশ।’

তিনি বলেন, ‘মুন্সিগঞ্জের সকল মানুষইতো এর বিরোধীতা করছে। তারা সবাইকি যুদ্ধাপরাধী?’

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইসচেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক আবদুল মান্নান, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, যুগ্ম-মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনু, সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী প্রমুখ।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

[ad#bottom]

Leave a Reply