‘কেউ পিছাইবা না, জমির লিগা জান দিয়া দ্যাও’

আড়িয়ল বিল (মুন্সীগঞ্জ) থেকে : হাসাড়ায় অবরোধস্থলে পুলিশের সঙ্গে তুমুল সংঘর্ষ চলার সময় ছড়রা গুলিতে আহত মোবারক আলীর (৬৫) চিৎকার তবুও থামে না। উত্তেজনায় ফেটে পড়তে চান তিনি। মুখে হাঁক ছাড়েন-‘কেউ পিছাইবা না, জমির লিগা জান দিয়া দ্যাও।’ শালারা কয়টা জান নিবে আজক্যাই নিয়া নিক।’

অশীতিপর বৃদ্ধ সামসুদ্দিন মিয়াও লাঠি হাতে পুলিশের দিকে তেড়ে যান। ভালভাবে চোখে দেখেন না, বয়সের ভারে দেহটাও ন্যুব্জ হয়ে পড়েছে প্রায়। এরপরও সামসুদ্দিন মিয়া বলে উঠেন, ‘জমি দিবো না-রক্তের গঙ্গা বহাইয়া দিমু, আয় দেখি কে জমি নিতে চাস, আয়.. আয় কাছে আয়।’

হাসাড়া মোড়ে পুলিশের সঙ্গে ক্ষুব্ধ জনতার রক্তক্ষয়ী সংঘাতে ৩৫ জন পুলিশ সদস্য, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও শতাধিক জনতা আহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশের জলকামান, টিয়ারসেল আর মুহুর্মূহু গুলিবর্ষণের মুখেও বিক্ষোভরত জনতাকে রাস্তা থেকে হটানো সম্ভব হয়নি। উপরন্তু কয়েক হাজার নারী-পুরুষ কুচিয়ামারার দিক থেকে এগিয়ে ঘিরে ফেলে তিন শতাধিক পুলিশ সদস্যকে। অবস্থা বেগতিক হওয়ায় পুলিশ সদস্যরা নীমতলী ব্রিজের দিকে পিছু হটতে বাধ্য হয়।

এ সময় অবরোধস্থলে জনতার ভিড় বাড়তে থাকে আরও। কেউ কেউ দলবেঁধে পিছু হটে যাওয়া পুলিশ সদস্যদের ধাওয়া করতেও যান। সেখানেই বাংলানিউজের সঙ্গে কথা হয় মোবারক আলীর সঙ্গে।

আড়িয়ল বিলের মাঝামাঝি স্থানে দ্বীপের মতো গড়ে ওঠা দুবলি গ্রামেই তার বাড়ি। মোবারক আলী বলেন, ‘আমরাও আমলীক (আওয়ামী লীগ) করি, আমরাও বঙ্গবন্ধুর সৈন্য। ৭ মার্চের ভাষণে আমি নিজে ফালা-সড়কি নিয়া রেসকোর্স ময়দানে হাজির ছিলাম।’

মোবারক আলী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর নামে বিমানবন্দর বানানো হইলে আমরাও খুশি-তাই বইল্যা আমার জমিতে ক্যান ? ঢাকায় যে এয়ারপোর্ট আছে সেইটারে ভাইঙ্গা বড় বানায়া বঙ্গবন্ধুর নাম লাগাইয়া দিক-আমরাও ফুল নিয়া উদ্বোধন করতে যাবো।’

বৃদ্ধ সামসুদ্দিন মিয়া ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বাংলানিউজকে বলেন, ‘দেশে কত্তো চর-পাহাড় অনাবাদী পইড়া আছে, হেগুলান বাদ দিয়া আমাগো জীবন চালানো জমি-জিরেতের উপর বিমান-আলাগো নজর পড়লো ক্যান ? আমরা কি কারো খাই, না পড়ি ?’

সাঈদুর রহমান রিমন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

[ad#bottom]

Leave a Reply