গোয়েন্দা প্রতিবেদনে যা বলা হয়েছে

আড়িয়াল বিলে সংঘর্ষ
শংকর কুমার দে ॥ আড়িয়াল বিলে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে রক্তৰয়ী সংঘর্ষে মর্মানত্মিক হতাহতের ঘটনার ব্যাপারে তদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছে গোয়েন্দা সংস্থা। গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যেদিন থেকে ঢাকার জিয়া আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর নাম পরিবর্তন করে হযরত শাহ্জালাল (র) বিমানবন্দর রাখা হয়েছে সেদিন থেকেই পূর্বপরিকল্পিতভাবে তৈরি করা হয়েছে ষড়যন্ত্রের নীলনকশা। যেখানেই বঙ্গবন্ধুর নামে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের প্রস্তাব করা হবে সেখানেই প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ করার ব্যাপারে গোয়েন্দা প্রতিবেদনে আশঙ্কা ব্যক্ত করা হয়েছে। সোমবার হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়ে যেভাবে পুলিশের এসআই মতিউর রহমানকে নির্মমভাবে হত্যা ও সাত পুলিশকে আহত হওয়ার ঘটনাসহ উত্তেজনাকর পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে তার নেপথ্য কাহিনীর উল্লেখ করা হয়েছে গোয়েন্দা প্রতিবেদনে।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কমান্ড ভেহিক্যাল(রায়ট কার) স্টার্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারনে পুলিশের এসআই মতিউর রহমানকে নির্মমভাবে প্রাণ দিতে এবং সাত পুলিশ গুরম্নতর আহত হয়েছে। সোমবার ঢাকা-মাওয়া সড়কে হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়ির সামনে কমান্ড ভেহিক্যালের (রায়ট কার) স্টার্ট বন্ধ হয়ে যায় তখন এসআই মতিউর রহমান ছিলেন সেই কমান্ড ভেহিক্যালের ভেতরে। আড়িয়াল বিলে প্রসত্মাবিত বঙ্গবন্ধু আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধানত্মের প্রতিবাদে মানববন্ধন যে কোন সময়ে সহিংস রূপ নিতে পারে গোয়েন্দা সংস্থা আগে থেকেই আশঙ্কা প্রকাশ করে আসছে। সহিংস পরিস্থিতির আশঙ্কার মোকাবেলায় প্র্রস্তুতি হিসেবে মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাছ থেকে একটি কমান্ড ভেহিক্যালও (টিয়ার গ্যাস শেল নিক্ষেপের গাড়ি) নেয়। মানববন্ধন পয়েন্টের অনেকটাই দূরেই অপেক্ষমাণ ছিল কমান্ড ভেহিক্যাল কারটি।

সোমবার দুপুর প্রায় সোয়া ১২টা। উত্তেজিত জনতা মহাসড়কের পাশে হাসাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে হামলা ও লুটপাট চালায়। কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা বিক্ষোভকারীদের ঠেকাতে লাঠিচার্জ করে। এতে আরও উত্তেজিত হয়ে ওঠে বিক্ষোভকারীরা। এক পর্যায়ে তারা ফাঁড়িতে আগুন ধরিয়ে দিলে হাইওয়ে পুলিশের প্রাণ ভয়ে ফাঁড়ির পাশে দাঁড়িয়ে ফাঁড়িটি পুড়ে যাওয়ার দৃশ্য দেখা ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না। এই দৃশ্যের খবর পেয়ে সেখানে ছুটে যায় পুলিশের একটি দল। উত্তেজিত জনতা দা-লাঠিসহ দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পুলিশের এ দলটিকে ঘেরাও করে ফেলে। আটকে পড়া পুলিশ সদস্যদের তারা নির্বিচারে মারধর করতে থাকে। এ সময় উত্তেজিত জনতাকে নিবৃত্ত করতে ঢাকা থেকে যাওয়া কমান্ড ভেহিক্যালটি সচল হয়ে ওঠে। আর্মড ভেহিক্যালের সঙ্গে যাওয়া এসআই মতিউর রহমানসহ অপর ৫ পুলিশ সদস্য টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করতে করতে হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়ির দিকে এগুতে থাকে। উত্তেজিত জনতাও তাদের লক্ষ্য করে বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। ছোট্ট গাড়িটির ভেতরই পুলিশের ৫ সদস্য কোন রকম জীবন রক্ষা করে মহাসড়ক ধরে যেতে থাকে সামনের দিকে। জনতার প্রচ- প্রতিরোধের মুখে পেছনে থাকা পুলিশ সদস্যরা গাড়ি নিয়ে পিছু হটতে থাকে। তবে লাঠিসোঁটা ও ইটপাটকেলে সজ্জিত জনতার ভিড় ঠেলে আর্মড ভেহিক্যালটি অনেকটা পেঁৗছে যায় হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়ির দিকে। জনতার প্রতিরোধের মুখে এক পর্যায়ে সেটিও পিছু নেয়ার চেষ্টা চালায়। এ সময়ই স্টার্ট বন্ধ হয়ে যায় আর্মড ভেহিক্যালটি। মুহূর্তের মধ্যে বৃষ্টির মতো পড়তে থাকে বিৰুব্ধ জনতার ইটপাটকেল। ইটপাটকেলে দিশেহারা এসআই মতিউর রহমান ও তার সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যরা আত্মরক্ষার চেষ্টা চালান আর্মড ভেহিক্যালের ভেতরে। তারা সেখানে বন্ধ হয়ে যাওয়া গাড়িটি চালু দেয়ার জন্য বারবার চেষ্টা চালাচ্ছিলেন। এ সময় উত্তেজিত জনতা তাদের টেনেহিঁচড়ে গাড়ি থেকে নিচে নামিয়ে আনে। সেখানে তাদের মারধর করে রাসত্মার উপর ফেলে রাখা হয়। কোন গুলি করার নির্দেশ না থাকায় তাদের দূরে দাঁড়িয়ে থেকে সহকমর্ীরা নির্মম এসব দৃশ্য দেখছিলেন। হাসপাতালে নেয়ার আগেই মতিউর করম্নণ মৃতু্যর কোলে ঢলে পড়েন।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশেষ রাজনৈতিক দলের প্রভাবশালী মহলকে মাঠে নামিয়ে এই ধরনের রক্তৰয়ী সংঘর্ষ ও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে পারে তা আগে থেকেই আশঙ্কা করেছে গোয়েন্দা সংস্থা। গুজব রটিয়ে বিভ্রানত্মি সৃষ্টির মাধ্যমে মানুষজনকে সংগঠিত করে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য কোটি কোটি টাকা ব্যয় করা হচ্ছে। আড়িয়াল বিলে প্রসত্মাবিত বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দ নির্মাণের সিদ্ধানত্মের প্রতিবাদে সোমবার মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে পুলিশের এসআই মতিউর রহমানকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা ও সাত পুলিশসহ শতাধিক আহত হওয়ার রক্তৰয়ী সংঘর্ষে নেপথ্যে কাহিনী সম্পর্কে গোয়েন্দা প্রতিবেদনে এই ধরনের তথ্যের উলেস্নখ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

[ad#bottom]

Leave a Reply