বিল রক্ষায় রাজিয়া-সখিনার উত্তসূরিরা রাজপথের রণাঙ্গণে

আড়িয়ল বিল (মুন্সীগঞ্জ) থেকে ফিরে : আড়িয়ল বিলের জল হাওয়ায় বেড়ে ওঠা সুলতানা রাজিয়া আর বীরাঙ্গনা সখিনার উত্তরসূরীদের দেখল বাংলা, দেখল গোটা বিশ্ব। জীবন আর জীবিকার সঙ্গে জড়িত প্রাণের বিল রক্ষার দাবিতে তারা রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন রাজপথে, অস্ত্র হাতে।

সোমবারের সংঘর্ষে তারা কখনো ছিলেন পরিবারের পুরুষ সদস্যদের পাশে, কখনো ছিলেন আগে আগে। পুলিশের বাধার মুখে রণমূর্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে তাদের মধ্যে ছিল না কোনো দ্বিধা কিংবা সঙ্কোচ।

প্রশিক্ষণ, দক্ষতা, আধুনিক যানবাহন, অত্যাধুনিক অস্ত্রশস্ত্র নিয়েও গর্জে ওঠা এইসব নারী-পুরুষের সামনে টিকতে পারেনি পুলিশ। সংঘর্ষস্থলসহ আশপাশের এলাকা পুরো সময়ই ছিল আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর না করার দাবিতে বিুব্ধ জনতার দখলে। উত্তেজিত জনতার হাতে ছিল লাঠি, বৈঠা, লাকড়ি খণ্ড, দা, কাস্তে, হাসুয়া, কিরিচ আর গুলতি।

দুপুর ১২টার দিকে হাঁসাড়া মোড়ে অবরোধকারী জনতার ওপর পুলিশ কাঁদানে গ্যাস, জলকামান ও রবার বুলেট ব্যবহারের পর পরিস্থিতি ক্রমেই পাল্টে যেতে থাকে। থমথম ঝমঝম করে যেন ঢেউয়ের পরে ঢেউ নাচতে থাকে আড়িয়ল বিলে। জনতার সিনায় সিনায় বাড়তে থাকে ক্ষোভ। শুরুতে যে নারীরা শুধু ঝাড়–-লাকড়ি হাতে মিছিলে যোগ দিয়েছিলেন তারা হাতে তুলে নেন রামদা, হাসুয়া আর বটি। উত্তাল জনস্রোতের মধ্য থেকে মাথার ওপর রামদা উঁচিয়ে পুলিশের দিকে তারা সক্রোধে তেড়ে যান। পুলিশকে লক্ষ্য করে হাসুয়া আর রামদার কোপ দিতেও তারা বিন্দুমাত্র দ্বিধা করেননি। পুরো এলাকায় রামদা আর কিরিচ ছিল কয়েক শ’ যুবকের হাতেও।

লাঠি-সোটার পাশাপাশি পুলিশের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীদের সবচেয়ে বড় অস্ত্র ছিল ইট-পাটকেল। সংঘর্ষের সময় মনে হচ্ছিল ভাঙা ইটের টুকরোগুলোর যেন পাখা গজিয়েছে। শত শত ইটের টুকরো উড়তে উড়তে গিয়ে আঘাত করছে পুলিশের ওপর। আর পুলিশ সদস্যরা ঢালের আড়ালে রক্ষা করছেন নিজেদের।

পুলিশের প্রতি আক্রমনের অস্ত্র হিসেবে গুলতির ব্যবহারও করেছেন যুবকরা। পুলিশের খুব কাছ থেকে টার্গেট করে গুলতির মাধ্যমে কাচের মার্বেল ছোঁড়া হয়েছে শত শত। এসব গুলতি-মার্বেলের আঘাত থেকে চোখ-কান বাঁচাতে হাঁপিয়ে ওঠেন পুলিশ সদস্যরা।

উত্তেজিত জনতার হাতে বৈঠা, লাঠি, হাসুয়া সবই ছিল আকারে লম্বা। তাই ছোট ছোট লাঠি হাতে দাঙ্গা পুলিশ তাদের কাছে ছিল অসহায়। ফলে বিুব্ধ জনতার ব্যাপক পিটুনি খেয়ে পিছু হটতে হয় তাদের। এ সময় ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকর্মী পুলিশ সদস্যদের বিুব্ধ জনতার ঘেরাওয়ের মধ্যে ফেলে রেখেই তিন শতাধিক পুলিশ সদস্য নিমতলী ব্রিজের দিকে দৌড়ে পালিয়ে যান। এ দৃশ্য দেখেছেন অনেকেই।

সাঈদুর রহমান রিমন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

[ad#bottom]

Leave a Reply