শ্রীনগরে সংঘর্ষে পুলিশ নিহত, আহত প্রায় অর্ধশত

শামীম আহমেদ
মুন্সীগঞ্জ, জানুয়ারি ৩১ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- নতুন বিমানবন্দরের প্রতিবাদে সড়ক অবরোধকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে শ্রীনগরে এক পুলিশ নিহত এবং চার পুলিশ ও কয়েকজন সাংবাদিকসহ প্রায় অর্ধশত আহত হয়েছেন।

নিহত পুলিশ সদস্য হলেন উপ-পরিদর্শক (এসআই) মতিউর রহমান (৪৫)। চারজন পুলিশ সদস্য এবং কয়েকজন সাংবাদিকসহ আহত হন ৪২ জন। আহত সাংবাদিকদের দুজন বাংলা দৈনিক প্রথম আলো ও বেসরকারি টিভি এটিএন নিউজ’র প্রতিবেদক, এছাড়া স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিকও আহত হন। বাকি আহতদের পরিচয় জানা যায়নি।

মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরে নতুন বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির ডাকে স্থানীয়রা জনতা সোমবার ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করে। সোমবার সকাল থেকে এই মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিলো। বিকেল ৪টার দিকে যান চলাচল শুরু হয় বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত।”

রাজধানীর সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম প্রতিবেদক জানান, শ্রীনগরে সংঘর্ষে আহত পাঁচ পুলিশ সদস্যকে সোমবার বিকাল পৌণে ৩টার দিকে এই হাসপাতালে আনা হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক এদের মধ্যে মতিউরকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকি চারজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

নিহত পুলিশ সদস্যের বিস্তারিত পরিচয় জানা এবং এ বিষয়ে পুলিশ কর্তৃপক্ষের কোনো বক্তব্য এখনো পাওয়া যায়নি।

স¤প্রতি ঢাকার মুক্তাঙ্গনে সমাবেশ করতে বাধা দেওয়ায় এবং সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ হাজার ২৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রতিবাদে এই কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক শাজাহান বাদল।

‘সরাতে গেলে তারা মারমুখী’
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সকাল থেকেই ওই এলাকায় প্রায় ৫শ’ পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মহাসড়কে যানবাহন চলাচলে পুলিশের পক্ষ থেকে নিরুৎসাহিত করা হয়।

শ্রীনগর থানার ওসি শাখাওয়াত হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, উপজেলার শ্রীনগর বাজারে পুলিশ দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধকারী লোকজনকে সরাতে গেলে তারা মারমুখী হয়ে ওঠে। এক পর্যায়ে তারা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।

ওসি বলেন, “সকাল থেকেই বাড়ৈখালী, নবাবগঞ্জ ও দোহার এলাকার বহু লোক বিমানবন্দরের বিপক্ষ নিয়ে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের কাছে জড়ো হয়।”

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লোকজন ছনবাড়ি থেকে কুচিয়ামোড় পর্যন্ত মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেয়।

পুলিশ নিরাপদ স্থানে সরে গেলে জনতা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিচার্জ করে এবং রাবার বুলেট ছোড়ে। সংঘর্ষে ৪২ জন আহত হয়।

পানি ও শেল শেষ হলে হামলা করে জনতা
স্থানীয়রা জানায়, সংলগ্ন কেউটখালী, কড়িখালী, লস্করপুর, আলমপুর ও নিদারপুর এলাকারা প্রায় ১৫-২০ হাজার নারী-পুরুষ ঝাড়– রাম দা নিয়ে বেলা ১২টার দিকে স্থানীয় সাংসদ সুকুমার রঞ্জন ঘোষের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করে। পরবর্তী এক ঘণ্টা পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভরতদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে।

পরিস্থিতি সামাল দিতে এক পর্যায়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাফিউল ইসলামের নেতৃত্বে ঘটনাস্থলে আরো পুলিশ মোতায়েন হয়। পুলিশ বিক্ষোভরতদের ছত্রভঙ্গ করতে জলকামান ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে।

বেলা ১টার দিকে পুলিশের জলকামানের পানি এবং কাঁদানে গ্যাসের শেল শেষ হয়ে যায়। এ সময় পুলিশ পিছু হটতে শুরু করে। বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে ধাওয় দেয়। উত্তেজিত কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী ধাওয়া শুরু করলে পেছনে থাকা পুলিশ সদস্যরা দৌড়াতে শুরু করে। জলকামান ও রায়ট কার পেছন দিকে খুব ধীর চলার কারনে (ব্যাক গিয়ায়ে) এক সময় বিক্ষোভকারীদের নাগালের মধ্যে এসে যায়।

এ সময় জনতা জলকামানের গাড়ি ভাংচুর এবং রায়ট কারে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। রায়টকারে থাকা ৫/৬জন পুলিশ সদস্যদের লাটি ও ইট দিয়ে আঘাত করে আহত করে জনতা।

ওসি শাখাওয়াত হোসেন আরো জানান, দুপুর পৌনে ১টার দিকে একদল লোক হাঁসারা পুলিশ ফাঁড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। তবে স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সদস্যরা চেষ্টা চালিয়ে দ্রুত আগুন নিভিয়ে ফেলতে সক্ষম হয়। এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি এবং পুলিশ ফাঁড়িতে বড় ধরনের কোনো ক্ষতি হয়নি।

বেলা ১টার দিকে পুলিশকে ধাওয়া দেওয়ার সময় ঘটনাস্থলে থাকা সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালায় বিক্ষোভকারীরা। এ সময় প্রথম আলোর প্রতিবেদকের একটি মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগ করা হলে তা ভস্মিভূত হয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিক্ষোককারীরা প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক গোলাম মর্তূজাকে লাঠি দিয়ে আঘাত করলে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে রাজধানীর ট্রমা সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। বিক্ষোভকারীদের হামলায় কয়েকজন ফটো সাংবাদিকও আহত হন।

বিডি নিউজ 24
————————————-

শ্রীনগরে দিনভর পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে এসআই নিহত, আহত দেড় শতাধিক

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের বিরুদ্ধে আড়িয়াল বিল রা কমিটির উদ্যোগে সোমবার ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালনকালে শ্রীনগর বাজার এলাকায় সড়ক অবরোধকারীদের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষে আহত এক উপ-পরিদর্শক(এসআই) মিটফোর্ড হাসপাতালে মারা গেছেন।

পরে বিকেল সোয়া ৩টার দিকে আড়িয়ল বিল রা কমিটির আহবায়ক শাজাহান বাদল ও বারৌখালি ইউনিয়নের চেয়াম্যান ইকবাল হাসানসহ কয়েকজন নেতা তিনটি মোটর সাইকেলে বিক্ষোভ-এলাকায় টহল দিয়ে হাত-মাইকে উত্তেজিত জনতাকে বাড়ি ফিরে যেতে বলেন। তারা বলেন, ‘প্রয়োজন হলে আমরা আবারও রাস্তায় নামবো, আমরা আবারও বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেবো।’

তাদের আহ্বানে অবরোধকারী জনতা নিজ নিজ গ্রামে দল বেঁধে ফিরে যেতে থাকেন। এতে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

বিকেল ৩টা ২৫ মিনিট থেকে র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নেন। তারা সড়ক থেকে গাছ-পালাসহ অবরোধ সরিয়ে দেন।

পরে বিকাল পৌনে চারটার দিকে মহাসড়কে যান চলাচল শুরু হয়।

মুন্সিগঞ্জের আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর করার সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ঢাকা-মাওয়া সড়ক সকাল থেকে অবরোধ করে রাখে স্থানীয় জনতা। সকালের দিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলেও ১২টার দিকে তা উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে।

সংঘর্ষে আহত এক উপ-পরিদর্শক(এসআই) মিটফোর্ড হাসপাতালে মারা গেছেন।

নিহত উপ-পরিদর্শকের (এসআই) নাম মতিউর রহমান (৪৫)। তিনি রাজারবাগ পুলিশ লাইনের দাঙ্গা বিভাগে কর্মরত ছিলেন বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

এছাড়া আহত আরো দশ পুলিশ সদস্যকে মিটফোর্ড এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম পুলিশের একজন উপ-পরিদর্শক নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করে বাংলানিউজকে জানান, উত্তেজিত জনতার হামলায় ৩৫জনের মতো পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৭/৮ জনের অবস্থা আশঙ্কা জনক। তিনি জানান, সোয়া তিনটার দিকে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। জনতা রাস্তা থেকে সরে গেছে এবং রাস্তায় যান চলাচল শুরু হয়েছে ।

পুলিশের ওপর হামলার ঘটনাটি বর্ণনা করতে গিয়ে সাইফুল ইসলাম আরও জানান, বিুব্ধ জনতা হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়ি হঠাৎ করেই জ্বালিয়ে দেয়। তখন আগুন নেভাতে এগিয়ে গেলে পুলিশের ওপর চড়াও হয় তারা। তাদের হামলার মুখে পুলিশ পিছু হটতে বাধ্য হয়। এক পর্যায়ে উত্তেজিত জনতা পুলিশকে চারদিক থেকে ঘেরাও করে ফেলে। এ সময় তারা পুলিশ সদস্যদের লাঠিসোঁটা ও টেঁটা দিয়ে আঘাত করে। এতে গুরুতর আহত হন ৭/৮ জন। তাদের মধ্যে উপ-পরিদর্শক মতিউর রহমান পরে হাসপাতালে মারা যান।

অন্তত তিন পুলিশ সদস্যের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলেও জানান তিনি।

পরে র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌছালে তাদের সহায়তায় জনতাকে হটিয়ে দিয়ে মহাসড়ক মুক্ত করা হয় বলে জানান এডিশনাল এসপি সাইফুল ইসলাম।

রাজধানীর মিটফোর্ড হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আড়িয়াল বিলবাসীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে আহত পাঁচজন পুলিশ সদস্যকে সেখানে নেওয়া হয়। সোমবার বিকাল পৌনে ৩টার দিকে আহত পুলিশ সদস্যদের হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মতিউরকে মৃত ঘোষণা করেন।

আহতদের মধ্যে চারজনকে মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন, কনস্টেবল আলিমউদ্দিন (২৮), হাবিলদার আব্দুল হক (৩৫), মো. সাহাবুদ্দিন (৫০) এবং মো. গাজীউল ইসলাম (৪০)।

এছাড়া আরও ছয় পুলিশ সদস্যকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

ঢামেক হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সেখানে ভর্তি হওয়া আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন, সিরাজদিখান থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামাল পাশা (৪০), মুন্সীগঞ্জ পুলিশ লাইনের নায়েক মফিজুল (২৮) ও হাবিলদার আবুল কালাম (৪৫), রাজারবাগ পুলিশ লাইনের কনস্টেবল মো. আযান ((৩০) ও কনস্টেবল আনোয়ার (২৭), রাজারবাগ পুলিশ লাইনের ৩ নং কোম্পানি নিরস্ত্র শাখার হাবিলদার মো. মনির হোসেন (৪৫)। এদের মধ্যে মনির হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সাঈদুর রহমান রিমন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

——————————–
মুন্সিগঞ্জে বিলবাসীদের সাথে পুলিশের সংর্ঘষে এক পুলিশ কর্মকতার মৃত্যু
ম্যাজিস্ট্রেটসহ ৩০ পুলিশ আহত
মোহাম্মদ সেলিম: গতকাল সোমবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির সমর্থকরা মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় তারা পুলিশের একটি পিকআপ পুড়িয়ে দেয়। বিলবাসীরা পুলিশ লক্ষ্য করে গুলাইন দিয়া মার্বেল ছুরে মারছে। বিলবাসী পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে হাজার হাজার মার্বেল নিয়ে হাসাড়া পয়েন্টে জরো হয়েছে। এদিকে বিলবাসী অন্যখান থেকে দুপুর দেড়টার দিকে বেলিব্রীজের স্লিপার তুলে এনে হাসাড়ার ঢাকা মাওয়া মহাসড়কের উপর ফেলে রাখে। হাসাড়া থেকে ছনবাড়ি পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার এলাকার মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে গাছের গুড়ি ফেলে রেখে যাতায়াতে অসুবিধার সৃস্টি করে। যাতে পুলিশ দ্রুত কোথাও মোভ করতে না পারে। দাঙ্গার সময় এখানে পুলিশ জল কামান ব্যবহার করেছে।

এ ঘটনায় মুন্সিগঞ্জ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রে সাফিউল ইসলাম মারাতœক আহত হয়েছে। তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দাঙ্গার সময় প্রায় ৩০ জন পুলিশ আহত হয়। তাদের মধ্যে ডিএমপি থেকে আসা ৫ জন পুলিশকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বিলবাসীদের সাথে পুলিশের সংর্ঘষে সিরাজদিখান থানার এস আই মতিয়ার রহমান মারা গেছেন বলে মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ইনচার্জ অফিসার সূত্রে জানা গেছে।
আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির আহবায়ক শাহজাহান বাদল জানান তাদের প্রায় ৫০ লোক আহত হয়েছে। এদের বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে তিনি দাবি করেন। তবে তিনি তাদের কারও নাম দিতে পারেনি।

বিক্রমপুর সংবাদ
——————————————-

শ্রীনগরে জনতা-পুলিশ সংঘর্ষ, আহত ৪২

ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে শ্রীনগর বাজারে সড়ক অবরোধকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ৪২ জন আহত হয়েছে।

বিমানবন্দর নির্মাণের বিপক্ষে আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির ডাকে জনতা সোমবার ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করে। সোমবার সকাল থেকে এই মহাসড়কে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে।

মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থানার ওসি শাখাওয়াত হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, উপজেলার শ্রীনগর বাজারে পুলিশ দুপুর ১২ টার দিকে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধকারী লোকজনকে সরাতে গেলে তারা মারমুখী হয়ে ওঠে। এক পর্যায়ে তারা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

পুলিশ নিরাপদ স্থানে সরে গেলে জনতা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিচার্জ করে এবং রাবার বুলেট ছোড়ে। সংঘর্ষে ৪২ জন আহত হয়েছে।

ওসি শাখাওয়াত হোসেন আরো জানান, দুপুর পৌণে ১টার দিকে একদল লোক হাসারা পুলিশ ফাঁড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। তবে স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সদস্যরা চেষ্টা চালিয়ে দ্রুত আগুন নিভিয়ে ফেলতে সক্ষম হয়। এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি এবং পুলিশ ফাঁড়িতে বড় ধরনের কোন ক্ষতি হয়নি।

ওসি জানান, সোমবার সকাল থেকেই বাড়ৈখালী, নবাবগঞ্জ ও দোহার এলাকার বহু লোক বিমানবন্দরের বিপক্ষ নিয়ে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের কাছে জড়ো হয়।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লোকজন ছনবাড়ি থেকে কুচিয়ামোড় পর্যন্ত মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সকাল থেকেই ওই এলাকায় প্রায় ৫শ’ পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মহাসড়কে যানবাহন চলাচলে পুলিশের পক্ষ থেকে নিরুৎসাহিত করা হয়। গোয়েন্দা সংস্থা নাশকতার আশঙ্কা প্রকাশ করেছে।

স¤প্রতি ঢাকার মুক্তাঙ্গনে সমাবেশ করতে বাধাঁ দেওয়ায় এবং সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ হাজার ২৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রতিবাদে এই কর্মসূচী দেওয়া হয়েছে বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক শাজাহান বাদল।

শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম।

বিডি নিউজ 24
———————————————

অবরোধে অচল ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক

বিমানবন্দর নির্মাণের বিপক্ষে আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটি অবরোধের ডাক দেওয়ায় সহিংসতার আশঙ্কায় ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে সোমবার সকাল থেকে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

মহাসড়কটির ছনবাড়ি থেকে কুচিয়ামোড় পর্যন্ত এলাকায় প্রায় ৫শ’ পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

সম্প্রতি ঢাকার মুক্তাঙ্গনে সমাবেশ করতে বাধাঁ দেওয়ায় এবং সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ হাজার ২৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রতিবাদে এই কর্মসূচী দেওয়া হয়েছে বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক শাজাহান বাদল।

বাড়ৈখালী, নবাবগঞ্জ ও দোহার এলাকা থেকে বিমানবন্দরের বিপক্ষে বহু লোক মাহসড়কের কাছে জড়ো হয়েছে।

এই অবস্থায় পুলিশের পক্ষ থেকে মহাসড়কে যানবাহন চলাচলে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

গোয়েন্দা সংস্থা নাশকতার আশঙ্কা প্রকাশ করছে। শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম।

বিডি নিউজ 24
—————————————————-
আড়িয়ালে জমি অধিগ্রহণ নিয়ে ॥ প্রচণ্ড বিক্ষোভ, দারোগা নিহত

০ পুলিশ ফাঁড়িতে আগুন, গাড়ি ভাংচুর
০ অর্ধশত পুলিশসহ আহত দেড় শ’
০ মহাসড়ক নয় ঘণ্টা অবরোধ, জনদুর্ভোগ
০ প্রয়োজনে রক্ত ঢেলে বিল রৰা করব : কমিটি নেতৃবৃন্দ
০ আতঙ্কে গ্রামবাসী

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, শ্রীনগর থেকে ফিরে ॥ সোমবার ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে অবরোধকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে মোঃ মতিউর রহমান (৪৫) নামের এক সাব ইন্সপেক্টর নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেট, সাংবাদিক ও সাধারণ মানুষসহ অন্তত ১৫০ জন। আহতদের স্থানীয় ও ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। অবরোধকারীরা শ্রীনগর উপজেলার হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে। পুলিশের একটি গাড়ি ভাংচুর ও সাংবাদিকের একটি মোটরবাইক জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। সকাল সোয়া ৭টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত মহাসড়কটি বন্ধ ছিল। এতে দুর্ভোগে পড়ে বহু মানুষ। গোটা এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যান চলাচল স্বাভাবিক উল্লেখ করে রাত ৮টায় মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় আহত হয়েছে অন্তত ৫০ পুলিশ। এদের মধ্যে ১৭ জন এখনও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে আশঙ্কাজনক অবস্থায়।

অবরোধ চলাকালে বেলা সোয়া ৩টার দিকে আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক শাজাহান বাদল ও বাড়ৈখালী ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন মাস্টারসহ কয়েক নেতা ৩টি মোটরসাইকেলে বিক্ষোভরত এলাকায় টহল দিয়ে হ্যান্ড মাইকে উত্তেজিত জনতাকে বাড়ি ফিরে যেতে বলেন। তারা বলেন, প্রয়োজনে আমরা আবার রাস্তায় নামব, আমরা বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেব। এর পরই অবরোধকারীরা বাড়ি ফিরে যায়। পরে মহাসড়কে ফেলে রাখা গাছ পুলিশ সরিয়ে নিলে যান চলাচল শুরম্ন হয়। আহতদের মধ্যে রয়েছেন মুন্সীগঞ্জের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শফিউল আলম, প্রথম আলোর সাংবাদিক সাজেদুল ইসলাম, ফটো জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন সভাপতি শফিউদ্দিন লিটু, এএসপি দেওয়ান লালন আহমেদ, সিরাজদিখান থানার এসআই কামাল পাশা, এএসআই মনির, কনস্টেবল আজিজুল ইসলাম, হাবিলদার মনির, মনিরম্নজ্জামান, রিজার্ভ কনস্টেবল আনোয়ার, মফিজুল ইসলাম, আর্মড পুলিশ সদস্য রফিকুল, মোঃ আজান ও শাকিল। মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি চারজন হলেন কনস্টেবল আলিমউদ্দিন, হাবিলদার আব্দুল হক, মোঃ শাহাবুদ্দিন ও গাজীউল ইসলাম।

নিহত মতিউর রহমান রাজারবাগ পুলিশ লাইনে দাঙ্গা পুলিশে কর্মরত ছিলেন। তাকে আহত অবস্থায় মিটফোর্ড হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ খবর এখানে বেলা ৩টায় পেঁৗছলে পুলিশের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে।

এদিকে বেলা পৌনে ১টায় বিমানবন্দরবিরোধী অবরোধকারীরা শ্রীনগর উপজেলার হাসাড়া পুলিশ ফাঁড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এর পর পুলিশের সঙ্গে অবরোধকারীদের ব্যাপক সংঘর্ষ শুরম্ন হয়। এতে পুলিশসহ বেশ ক’জন আহত হয়। কয়েক পুলিশকে মুমূষর্ু অবস্থায় বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে পাঠানো হয়েছে। পরে আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও ফাঁড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এর আগে ১২টার দিকে ছনবাড়ি এলাকায় অবরোধকারীরা মিছিল নিয়ে শ্রীনগর বাজারের দিকে প্রবেশকালে পুলিশ বাধা দেয়। পরে অবরোধকারীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড রবার বুলেট ছোড়ে। এখানে কয়েক পুলিশ আহত হয়েছে। এর পরই ষোলোঘর এলাকায় অবরোধকারীরা ভাংচুর চালায়। মহাসড়কে পড়ে থাকা আহত কয়েক পুলিশকে এ্যাম্বুলেন্সে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়। ১০ পুলিশকে ঢাকা পাঠানো হয়েছে বলে পুলিশের একটি সূত্র জানায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এক পুলিশকে অবরোধকারীরা চাপাতি দিয়ে নির্মমভাবে কোপায়।

শ্রীনগর উপজেলার ছনবাড়ি এলাকা থেকে সিরাজদিখান উপজেলার কুচিয়ামোড়া পর্যনত্ম প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকা ছিল অবরোধকারীদের দখলে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে অবরোধকারীদের একটি বড় দল হাতে বড় রামদা, লাঠি ও ঝাড়ুসহ নানা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হাসাড়া পয়েন্টে অবস্থান নেয়। রাসত্মার পাশের প্রায় ৫০টি গাছ কেটে রাসত্মায় ফেলে রাখে, মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে দেয়। কয়েকটি তোরণ ভেঙ্গে আগুন দেয় বিলবাসী।
প্রসত্মাবিত বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নির্মাণের বিপক্ষে আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটি অবরোধের ডাক দেয়ায় সহিংসতার আশঙ্কায় যান চলাচল সকালে হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায়। মহাসড়কটিতে প্রায় ৫শ’ পুলিশ মোতায়েন করা হয়। বিরাজ করছে উত্তেজনা। গুরম্নত্বপূর্ণ মহাসড়ক বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়ে সাধারণ মানুষ। লোকজন হেঁটে বিভিন্ন বিকল্প পথে গনত্মব্যে যাওয়ার চেষ্টা করছে। সকালে ঢাকা থেকে মাওয়া যাওয়ার পথে কুচিয়ামোড়া এসে অবস্থা খারাপ দেখে যানগুলো থেমে যায়। আবার মাওয়া থেকেও কোন যান ছেড়ে আসেনি।

সমপ্রতি ঢাকার মুক্তাঙ্গনে সমাবেশ করতে বাধা প্রদান এবং ওই দিন সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ হাজার ২৬ জনের বিরম্নদ্ধে মামলা করার প্রতিবাদে এ কর্মসূচীর ডাক দেয়ার কথা জানিয়েছেন আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক শাজাহান বাদল।

বাড়ৈখালী, মদনখালীসহ নবাবগঞ্জ ও দোহারের আশপাশ এলাকার প্রায় ৩০ হাজার লোক বিমানবন্দরের বিপক্ষে মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে জড়ো হয়। অবরোধকারীরা চলে যাওয়ার পর এখন মহাসড়কে যান চলাচল করছে।
সন্ধ্যায় বাড়ৈখালী ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন মাস্টার জানান, অবরোধকারীরা গ্রামে ফিরে এসেছে। তবে তাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক ঘটনাস্থলে জানান, এ ঘটনা দুঃখজনক। মানুষের জানমাল রক্ষায় আমরা সর্বাত্মক ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছি। বর্তমানে পরিস্থিতি শানত্ম রয়েছে।

গুজবই ক্ষুব্ধ করেছে ॥ গুজবই আড়িয়ালবিলবাসীকে ক্ষুব্ধ করেছে। আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের খবরের পরই নানা রকম গুজব ছড়িয়ে দেয় স্বার্থান্বেষী মহল। এই গুজবের ডালপালা দ্রম্নত ছড়িয়ে পড়ে বিলের সহজ সরল সাধারণ অধিবাসীর মধ্যে। ‘বাড়ি-ঘর মসজিদ কবরস্থান সবই নিয়ে যাবে সরকার। বিমানবন্দর হলে না খেয়ে মরতে হবে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষকে’_ এমন গুজবেই ফুঁসে ওঠে মানুষজন। মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক জানান, বাসত্মবতা হচ্ছে একটি বাড়িও অধিগ্রহণ করা হবে না। কোন মসজিদ মাদ্রাসা কিংবা কবরস্থান অধিগ্রহণ করা হবে না। মুন্সীগঞ্জে শ্রীনগরের ১৫টি মৌজার ১০ হাজার ৭৪৭ একর জমি অধিগ্রহণের আওতায় আনা হয়েছে। জেলা ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ খান চ্যালেঞ্জ দিয়ে জানান, একটি স্থাপনাও এই আওতায় নেই। শুধু বিলের জমি নেয়া হবে ন্যয্য মূল্য দিয়ে। শ্রীনগরের গাদীঘাটের আব্দুল মান্নান বলেন, আমরা এসব বিশ্বাস করি না, আমাদের বাড়িছাড়া করার জন্যই এই বিমানবন্দর করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

কর্মসূচীতে অংশ নিতে বাধ্য করা হয়েছে ॥
আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটি আন্দোলনে সাধারণ মানুষকে আসতে বাধ্য করেছে। গোয়েন্দা সূত্র জানায়, এই অবরোধে আসার জন্য অনেক সাধারণ গ্রামবাসীকে বাধ্য করা হয়েছে। এ ছাড়া এই কমিটি বড় অঙ্কের চাঁদা উত্তোলন করেছে আন্দোলন চালিয়ে নিতে। প্রথমে ২৮ ডিসেম্বর আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটি ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে মানববন্ধন করে। এদিন বিমানবন্দরের পক্ষেও সচেতন নাগরিক কমিটি মানববন্ধন করে একই মহাসড়কে। এরপর ৪ জানুয়ারি বিমানবন্দরের পক্ষে একই মহাসড়কে বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়। ২৬ জানুয়ারি আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটি মুক্তাঙ্গনে সমাবেশ ডাকে। ঐ সমাবেশ করতে না পেরে এবং বাধা দেয়ার অভিযোগে চলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ। এতে পুলিশসহ ৩০ জন আহত হয়। এই ঘটনায় বিলের ৪ হাজার ২৬ জনের বিরম্নদ্ধে মামলা হয়। এর প্রতিবাদেই সোমবারে এই কর্মসূচী। রক্তক্ষরণের ঘোষণা দেয় অবরোধকারীরা।

রাজনৈতিক ফায়দা লোটার চেষ্টা ॥ রাজনৈতিক ফয়দা লুটতে বিএনপিপন্থী কিছু লোক এর বিরোধিতায় লোকজনকে আগে থেকেই ভুল বুঝিয়ে উস্কে দিচ্ছে। এদিকে বিরোধীদলীয় নেত্রীর ঘোষণার পর মহলটি আরও বেশি তৎপর। তা ছাড়া অর্পিত ও খাস জায়গা জবরদখলকারীরাও দেশের বৃহৎ এই প্রকল্পটির বিরম্নদ্ধে নানাপন্থা অবলম্বন করছে। নিজস্ব মালিকানায় সাত একর জমির মালিক বাড়ৈখালী গ্রামের বাসিন্দা খন্দকার জামান বলেন, জান দেব তবু জমি দেব না। আমার জমি রক্ষার জন্য যা যা করতে হয় সবই করব।

জমির পরিসংখ্যান ॥ প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা বাজেটের আধুনিক এই বিমানবন্দরের জন্য আড়িয়াল বিলের ২৫ হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে। এর মধ্যে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ১০ হাজার ৭৪৭ একর জমি। ১৪টি মৌজার এই জমির ক্ষতিগ্রসত্মের সংখ্যা প্রায় দেড় লাখ। এ ছাড়া ঢাকার দোহার উপজেলার ৭টি মৌজায় রয়েছে ৭ হাজার ১শ’ ৮৮ একর ভূমি। বাকি জমি ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার ১৮টি মৌজায়। তবে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা এলাকায় আড়িয়াল বিলের কিছু অংশ পড়লেও বেশি বসতি থাকায় তা বাদ দেয়া হয়েছে। শ্রীনগরের জমির মধ্যেই হবে মূল বিমানবন্দর। বঙ্গবন্ধু সিটি না করে এই জমির পরিমাণ আরও কমিয়ে আনাসহ পরিবেশ সংরক্ষণের দিকে যত্নবান হয়ে এই প্রকল্পের কাজ চলছে বলে জানান প্রকল্পটির সেলপ্রধান যুগ্ম সচিব জয়নাল আবেদীন তালুকদার।

সম্ভবনার দুয়ার ॥ ‘বঙ্গবন্ধু আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দরটি হবে একবিংশ শতাব্দীর আধুনিক একটি বিমানবন্দর। এটিকে কেন্দ্র করেই দেশের রেল ও নতুন সড়ক যোগাযোগে আধুনিক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হবে। তাই প্রসত্মাবিত বিমানবন্দর এলাকা শ্রীনগর, নবাবগঞ্জ ও দোহার হবে দেশের যোগাযোগ, অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যের কেন্দ্রবিন্দু।’_ এ কথা বলেছেন প্রকল্পটির সেলপ্রধান যুগ্ম সচিব জয়নাল আবেদীন তালুকদার।

সেলপ্রধান জানান, পদ্মা ব্রিজ হতে শ্রীনগরের এই বিমানবন্দর থেকে রেললাইন সীমপাড়া, সিরাজদিখানের ইছাপুরা টঙ্গীবাড়ির বেতকা ও বজ্রযোগিনী (মুন্সীগঞ্জ সদর) হয়ে মেঘনা পাড়ি দিয়ে গজারিয়া ও দাউদকান্দি হয়ে সোজা লাকসাম জংশনে গিয়ে মিলবে।

রেললাইনের আরেকটি প্রসত্মাব রয়েছে_ এই বিমানবন্দর থেকে সিরাজদিখান উপজেলা সদর হয়ে বয়রাগাদি বালুরচর হয়ে নারায়ণগঞ্জের ফতুলস্না স্টেশন পর্যনত্ম। এ ছাড়া পদ্মা সেতু থেকে এই বিমানবন্দর হয়ে ধলেশ্বরী সেতু অতিক্রম করে ঢাকার পশ্চিম পাশ দিয়ে আশুলিয়া হয়ে রেললাইন গাজীপুরের জয়দেবপুরে মিলবে।

পরবতর্ীতে বিমানবন্দর স্থান হতে দৌলতিয়া-পাটুরিয়া দ্বিতীয় পদ্মা সেতু (ভবিষ্যতে নির্মিত হবে) দৌলতদিয়া রেললাইনের সঙ্গে মিলবে। এ ছাড়াও পাটুরিয়া দোহার নবাবগঞ্জ উপজেলা সদর হয়ে সিঙ্গাইর টঙ্গী রেললাইন পর্যনত্ম যাবে।

সড়কপথে নিমতলা থেকে ঢাকার পশ্চিম প্রান্ত বসিলা দিয়ে আশুলিয়া হয়ে কালিয়াকৈর বঙ্গবন্ধু এ্যাঙ্সেস রোডে মিলবে। শ্রীনগরের বিমানবন্দর হতে সিমাপাড়া হয়ে গজারিয়া পর্যনত্ম ঠেকবে প্রশসত্ম রাসত্মা। গজারিয়া গার্মেন্টস পলস্নী থেকে এই রাসত্মা ট্রেনের পাশপাশি সরাসরি বিমানবন্দরে যাবে। ৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সড়কে সামান্য সময়ে লাখ লাখ টন রফতানি পোশাকসহ যাবতীয় সামগ্রী বিমানবন্দরে আসতে পারবে অতি সহজে ।

বিমানবন্দরটির জন্য ফুয়েল আসবে চট্টগ্রাম এবং মংলা বন্দর থেকে লাইটারেজ জাহাজে। এই জাহাজ ভিড়বে পাশ্ববর্তী পদ্মা নদীর ভাগ্যকূল বন্দরের যেখান থেকে এই তেল খালাস হবে। বিমানবন্দরটির সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল ও খুলনা বিভাগের জেলাগুলোর সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হবে।

এই বিমানবন্দর থেকে বঙ্গবন্ধুর মাজারে দু’দিক দিয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকবে। মাওয়া দিয়ে দূরত্ব হবে ৭৬ কিলোমিটার আর দৌলতদিয়া হয়ে দূরত্ব হবে ৮৬ কিলোমিটার।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ প্রকল্পের সেলপ্রধান জয়নাল আবেদীন তালুকদার বলেন, প্রকল্পটি দ্রম্নততম সময়ের মধ্যে বাসত্মবায়নের কাজ এগিয়ে চলেছে। এতে যেহেতু দেশ তথা জনগণের উন্নয়ন হবে তাই এটি করা হচ্ছে। সকলের সহযোগিতা করাই হবে প্রকৃত দেশপ্রেমিকের কাজ।

তিনি নিশ্চয়তা দিয়ে বলেন, এই বিমানবন্দরের জন্য কোন রকম বসতিজমি অধিগ্রহণ করা হবে না। জমির পরিমাণ আরও কমিয়ে আনাসহ পরিবেশ সংরক্ষণের দিকে যত্নবান হয়ে এই প্রকল্পের কাজ চলছে বলে জানান প্রকল্পটির সেল প্রধান যুগ্ম সচিব জয়নাল আবেদীন তালুকদার।

মাওয়ায় যাত্রীদের কষ্ট ॥ ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধের কারণে চরম দুর্ভোগে পড়ে যাত্রীসাধারণ। মাওয়ায় হাজার হাজার মানুষ আটকা পড়ে। সকাল থেকেই মাওয়া থেকে কোন যানবাহন ঢাকার সঙ্গে চলাচল করতে পারেনি। তাই দক্ষিণাঞ্চল থেকে ঢাকামুখী মানুষের বিড়ম্বনা ছিল অবর্ণনীয়।

কিছু যাত্রীবাহী বাস মাওয়া হতে লৌহজং-টঙ্গীবাড়ি হয়ে মুক্তারপুর ব্রিজ দিয়ে নারায়ণগঞ্জের পাগলা হয়ে ঢাকায় চলাচল করে। এতে এই সড়কে যানজট বেড়ে যায়। বাসগুলোতে ছিল উপচেপড়া ভিড়। ছাদে করে যাত্রীরা চলাচল করেছে ঢাকায়। এ সুযোগে রাসত্মায় বাসের ভাড়া কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয় বাস কর্তৃপক্ষ। বাসের ভিতরে ২ শ’ টাকা, ছাদে ১ শ’ টাকা করে ভাড়া নিয়েছে বাস চালকরা । অসহায় যাত্রীরা গনত্মব্যে যাবার জন্য যা ভাড়া চেয়েছে তাই দিয়ে ঢাকায় ছুটেছে। সিএনজি স্কুটারের ভাড়াও কয়েকগুণ বেড়ে যায়। মহাসড়কে শত শত যাত্রীকে দেখা গেছে হেঁটে চলাচল করতে।

এজতেমাফেরা মুসলিস্নদের কষ্ট ॥ একই অবস্থা ছিল এ প্রানত্ম কুচিয়ামোড়া এলাকায়। ধলেশ্বরী-১ সেতু আর পার হতে পারেনি। অনেকে ফিরে গেছেন। আবার অনেকে বিকল্প পথে বা হেঁটে গনত্মব্যে রওনা দেন। টঙ্গী বিশ্ব এজতেমা থেকে বাড়িফেরা মুসলিস্নদের কষ্ট ছিল সবচেয়ে বেশি। মোঃ রাশেদুজ্জামান নামের এক মুসলিস্ন বলেন, মাওয়া রম্নটে এসে বিপাকে পড়েছি। আমার মতো শত শত মুসলিস্ন বিপদে পড়েছে।

কেরানীগঞ্জে অতিরিক্ত র্যাব-পুলিশ মোতায়েন ॥ কেরানীগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগরে আড়িয়াল বিল রৰা কমিটির কর্মসূচী থাকায় সোমবার কেরানীগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে অতিরিক্ত র্যাব-পুলিশ মোতায়েন ছিল। ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে যান চলাচল করতে দেয়নি পুলিশ। এতে চরম ভোগানত্মিতে পড়ে সাধারণ যাত্রী। এ ঘটনায় মিটফোর্ড হাসপাতালে গুরম্নতর আহত চার পুলিশ সদস্যকে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন হাবিলদার আব্দুল হক (৩৫), নায়েক গাজিউল ইসলাম (৪৫), কনস্টেবল আলিম (২৮) ও কনস্টেবল শাহাবুদ্দিন (৫০) নিহত এসআই মতিউর রহমান ও আহতদের দেখতে বিকেলে মিটফোর্ড হাসপাতালে যান ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোসত্মফা জালাল মহিউদ্দিন, পুলিশের মহাপরিদর্শক খন্দকার হাসান মাহমুদ, ডিএমপি কমিশনার বেনজির আহমেদ।

জনকন্ঠ
——————————————-

[ad#bottom]

Leave a Reply