রাতে পুলিশের অভিযান

শ্রীনগরে দিনভর সংঘর্ষ শেষে সন্ধ্যার পরপরই আড়িয়ল বিলের উপকণ্ঠে অবস্থিত গ্রামগুলোতে অভিযান চালায় র‌্যাব-পুলিশ। অভিযানের ফলে মরিচপট্টি, মদনখালউসহ আড়িয়ল বিল ঘিরে থাকা সাত গ্রাম প্রায় পুরুষশূন্য হয়ে পড়েছে। দিনের বেলা এ গ্রামগুলোর লোকজনই সহিংসতা চালায় বলে অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, শ্রীনগর, নবাবগঞ্জ, সিরাজদিখান ও দোহার উপজেলাজুড়ে বিস্তৃত আড়িয়ল বিলের শ্রীনগর অংশ ঘিরে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন র‌্যাব-পুলিশ সদস্যরা। সন্ধ্যায় পুলিশের এআইজি মাহাবুবুর রহমান ভূঁইয়া সরজমিনে পুড়ে যাওয়া হাসড়া পুলিশ ক্যাম্পসহ আশপাশ এলাকা পরিদর্শন করেন। এরপর সন্ধ্যা ৭টার দিকে শুরু হয় র‌্যাব-পুলিশের অভিযান। এ সময় মহাসড়কেও অবস্থান নেয় র‌্যাব, পুলিশ ও আর্মড পুলিশের শত শত সদস্য। বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে তারা ঢুকে পড়ে আড়িয়ল বিলের গ্রামগুলোতে। এর আগেই গ্রামে পুলিশ আসবে এমন খবর ছড়িয়ে পড়েছিল। ফলে গ্রামের অধিকাংশ পুরুষ পালিয়ে যান। র‌্যাব-পুলিশ সদস্যরা ঘরে ঘরে অভিযান চালান। কয়েকজনকে প্রহার করা হয় বলেও গ্রামবাসী অভিযোগ করে।

পুরো বিল এলাকায় আতঙ্কজনক অবস্থা বিরাজ করছে। নিস্তব্ধ আড়িয়ল বিলের অলিগলি, মেঠোপথে এখন শুধু আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী সদস্যদের সশব্দ পদচারণা চলছে।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, আড়িয়ল বিল এলাকার গ্রামবাসীর আন্দোলনকে সরকারবিরোধী বড় আন্দোলনে রূপ দেওয়ার জন্য একটি রাজনৈতিক মহলের ইন্ধন রয়েছে বলে পুলিশের কাছে সুনির্দিষ্ট তথ্য রয়েছে। তবে সরকারের পক্ষ থেকে সহনশীলতা প্রদর্শনের নির্দেশ ছিল। ফলে পুলিশ সংযম প্রদর্শন করে। সোমবার দিনব্যাপী বিক্ষোভে পুলিশের ওপর সহিংস হামলা এবং একজন পুলিশ নিহত হয়। এরপর সরকারের উপর মহল থেকে ইন্ধনদাতাদের খুঁজে বের করার নির্দেশ দেওয়া হয়। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে এমন ইন্ধনদাতাদের খুঁজতেই শুরু হয় অভিযান। বিকেলে স্থানীয় সাংসদ সুকুমার রঞ্জন ঘোষ আরও পরিষ্কার করেই সাংবাদিকদের বলেন, বিরোধী দল মহাজোট সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য পরিকল্পিতভাবে আড়িয়ল বিল এলাকার গ্রামবাসীকে উস্কানি দিচ্ছে। তারাই পরিকল্পিতভাবে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমাম নিহত পুলিশ সদস্য মতিউর রহমানের জানাজা শেষে সাংবাদিকদের বলেন, মানববন্ধনের কথা বলে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা অবশ্যই পূর্বপরিকল্পিত এবং এর পেছনে একটি বিশেষ দলের ইন্ধন রয়েছে।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাখাওয়াত হোসেন অভিযানের ব্যাপারে বলেন, পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় জড়িত সুনির্দিষ্ট কাউকে কাউকে খুঁজতেই অভিযান চলছে। তবে কাকে কাকে খোঁজা হচ্ছে তা এ মুহূর্তে প্রকাশ করা হবে না। অভিযুক্তরা ধরা পড়লে তা অবশ্যই সাংবাদিকদের জানানো হবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply