আড়িয়ল বিলে নয়, পদ্মার চরাঞ্চলে বিমানবন্দর : প্রধানমন্ত্রী

আড়িয়ল বিলে প্রস্তাবিত বিমানবন্দর নির্মাণ হচ্ছে না। পদ্মার চরাঞ্চলে বিমানবন্দর করার কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার মন্ত্রী পরিষদের নিয়মিত সভায় প্রধানমন্ত্রী এ কথা জনিয়েছেন বলে সূত্র জানায়। প্রধানমন্ত্রী সরাসরি জনিয়ে দিয়েছেন আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে না। প্রয়োজনে পদ্মার চরাঞ্চলে বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে। মন্ত্রিসভার বৈঠকে যোগ দেওয়া সংশ্লিষ্ট সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বিমানবন্দরের ব্যাপারে জনগণের মতের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ সরকার কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না বলেও মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘জনগণ না চাইলে প্রস্তাবিত বিমানবন্দর অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হবে বলেও মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী।’

সভায় বিমানমন্ত্রী বলেন, ‘এ ধরণের বিমানবন্দরের প্রয়োজনীয়তা নেই বলে কয়েকটি পত্রিকা উদ্দেশ্যমূলক প্রচার চালাচ্ছে।’

সূত্র জানায়, সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আড়িয়ল বিলে ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘২০২১ সালের মধ্যে আমরা উন্নত, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে চাই। যাদের দূরদর্শিতার অভাব তারাই এর বিরোধিতা করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যদি আমরা থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া বা সিঙ্গাপুরের মতো দেশ গড়তে চাই, তাহলে এ ধরনের বিমানবন্দর অবশ্যই লাগবে। আমরা চট্রগ্রাম, কক্সবাজার ও কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতকে বিদেশি পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় ও গুরুত্বপূর্ণ করতে চাচ্ছি। এসব করতে হলে তো এ ধরণের বিমানবন্দর অবশ্যই দরকার।’

সূত্র আরও জানায়, এ সময় প্রধানমন্ত্রী অনেকটা মনোকষ্ট নিয়ে অভিমানের সুরেই বলেন, ‘সবাই যদি এখানে বিমানবন্দর না চায় তাহলে নদীর ওপাড়ে বা চরে কোথাও তা করব। জনগণ না চাইলে আওয়ামী লীগ সরকার জোর করে তাদের মতের বিরুদ্ধে কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না।’

আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণ নিয়ে ঘটে যাওয়া সহিংসতার প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘যারা এই ঘটনার উস্কানি দিয়েছে তারা ঠিক করেনি।’

এই ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হওয়ায় তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন। পুলিশ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে যে ভূমিকা পালন করেছে, তার জন্য প্রধানমন্ত্রী পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

তবে এ ধরণের ঘটনা এড়ানোর জন্য মুন্সিগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেননি বলেও প্রধানমন্ত্রী মন্তব্য করেন।

সূত্র জানায়, সভায় এই বিমানবন্দর নির্মাণের বিষয়ে কিছু কিছু পত্রিকার ভূমিকা নিয়েও সভায় সমালোচনা করা হয়।

এ সময় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী জিএম কাদের বলেন, ‘আগেই এতো বাড়াবাড়ি না করে বিষয়টি নিয়ে কারো কোনো মত থাকলে তা নিয়ে আমরা আলোচনা করতে পারতাম।’

প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সচিবালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শামীম খান, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

——————————————–

‘জনগণ না চাইলে আড়িয়লে বিমানবন্দর নয়’

মুন্সীগঞ্জের মানুষ না চাইলে আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর হবে না- মন্ত্রিসভার বৈঠকে শেখ হাসিনা এ কথা বলেছেন বলে জানিয়েছেন এক মন্ত্রী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই মন্ত্রী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সহিংসতা বা বিশৃঙ্খলা হোক, এমন কোনো কাজ বর্তমান সরকার করবে না। কারণ আওয়ামী লীগ হচ্ছে জনগণের দল। জনগণের কাছে আওয়ামী লীগের জবাবদিহিতা রয়েছে। এজন্য জনগণ না চাইলে প্রয়োজনে প্রস্তাবিত নতুন বিমানবন্দর আড়িয়ল বিলের পরিবর্তে অন্যত্র হবে।”

“তবে অদূরদর্শী লোকরাই আড়িয়ল বিলে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর স্থাপনের বিরোধিতা করছেন বলে প্রধানমন্ত্রী মন্তব্য করেছেন”, বলেন ওই মন্ত্রী।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দরের স্থান নিয়ে পুলিশ ও স্থানীয়দের মধ্যে সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার জন্য মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপারকে (এসপি) সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দরের বিরোধিতা করে সোমবার স্থানীয়দের ঢাকা-মাওয়া সড়ক অবরোধের সময় সংঘর্ষে মতিউর রহমান নামে এক পুলিশ উপপরিদর্শক নিহত হন। ব্যাপক সংঘর্ষে আহত হয় অর্ধশত।

ওই ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে তিনটি মামলা করে। এছাড়া মুন্সীগঞ্জ শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান বাদি হয়ে আদালতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে প্রধান আসামি করে আরেকটি মামলা করে। চারটি মামলায় মোট ২১ হাজার জনকে আসামি করা হয়েছে।

সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে বুধবার বৈঠকে আড়িয়াল বিল নিয়ে আলোচনার কথা একাধিক মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান।

বৈঠকে নেওয়া বিভিন্ন সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব আবুল কালাম আজাদ তথ্য অধিদপ্তরের (পিআইডি) সম্মেলন কক্ষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান।

তিনি বলেন, বৈঠকে আন্তর্জাতিক সমুদ্র আইন অনুযায়ী বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা নির্ধারণ করার একটি প্রস্তাব মন্ত্রিসভা অনুমোদন করেছে। পররাষ্ট্র ও অর্থ মন্ত্রণালয় সমুদ্রসীমা নির্ধারণের যে প্রস্তাব উপস্থাপন করেছে, তাই অনুমোদন করা হয়েছে। এটি প্রস্তাব দাবি আকারে জাতিসংঘে উপস্থাপন করা হবে।

বৈঠকে অংশ নেওয়া এক মন্ত্রী বলেন, সমুদ্রসীমার তিনটি স্তরে প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার এলাকায় বাংলাদেশের মালিকানা দাবি করে এ প্রস্তাবটি চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। এর মধ্যে অর্থনৈতিক জোনও রয়েছে। এটিই জাতিসংঘে জমা দেওয়া হবে।

সমুদ্রসীমা নিয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে বিরোধ অবসানে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে জাতিসংঘের সালিশ আদালতের দ্বারস্ত হয়েছে।

আবুল কালাম আজাদ জানান, বৈঠকে বর্তমান সরকারের গত দুই বছরে মন্ত্রিসভার ৯৫টি বৈঠকে নেওয়া সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয়। এতে সর্বশেষ অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত অগ্রগতির ওপর একটি প্রতিবেদনও উপস্থাপন করা হয়।

দু’বছরের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা প্রসঙ্গে আবুল কালাম আজাদ জানান, গত বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত দু’বছরে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ৬২৭টি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরমধ্যে ৫৪৮টি সিদ্ধান্ত ইতোমধ্যে বাস্তবায়ন হয়েছে। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার ৮৭ শতাংশ।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, গত জোট সরকারের সময় প্রথম দুই বছরে ৩২৮টি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিলো। বাস্তবায়নের হার ছিলো ৬৫ শতাংশ।

বর্তমান সরকারের গত দু’বছরের ১৪৫টি আইন (প্রস্তাবিত) মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হয়। এরমধ্যে ১৩০টি জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। বাকিগুলোর মধ্যে ১০টি সংসদে এবং পাঁচটি মন্ত্রণালয়ের বিবেচনায় রয়েছে।

জোট সরকারের সময় একই সময়ে আইন অনুমোদন হয় ৭৮টি।

সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতিতে প্রধানমন্ত্রী সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বলে জানান প্রেসসচিব।

বৈঠকে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) অধীনে ‘কোস্টাল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেড’ গঠনের প্রস্তাব উপস্থাপন হয়। প্রস্তাবটি আরো যাচাই-বাছাই করে দু’সপ্তাহ পরে উপস্থাপনের নির্দেশ দেওয়া হয়।

এছাড়া মন্ত্রিসভায় বৃক্ষরোপণ আইন-২০১১ এবং বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ) আইন-২০১০ এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য উপস্থাপনের প্রস্তাব থাকলেও তা স্থগিত রাখা হয়।

পরিবেশ প্রতিমন্ত্রীর বাবা’র মৃত্যুর কারণে তিনি উপস্থিত থাকতে না পারায় এগুলো স্থগিত করা হয় বলে জানান প্রেস সচিব।

বিডি নিউজ 24
———————————————-

মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা ॥ আড়িয়ালে বিমানবন্দর নয়
দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ মুন্সীগঞ্জের এসপি সাসপেন্ড

তপন বিশ্বাস ॥ অবশেষে আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর হচ্ছে না। স্থানীয় জনগণের প্রবল আপত্তির মুখে সরকার তার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে। বুধবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের আবেগের সঙ্গে একমত পোষণ করে বলেছেন, জনগণ না চাইলে আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর হবে না। আর মুহূর্তের মধ্যেই তা পৌঁছে যায় আড়িয়াল বিল এলাকার জনগণের কাছে। স্থানীয় জনগণের মাঝে নেমে আসে স্বসত্মি। আনন্দে উল্রাস ও মিষ্টি বিতরণ করে ওই এলাকার জনগণ। মসজিদে মসজিদে মাইকযোগে প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা জনগণের মাঝে পেঁৗছে দেয়া হয়।

সংশিস্নষ্ট সূত্র জানায়, মন্ত্রিসভা বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের সরকার। জনগণের স্বার্থের হানি ঘটে এমন কোন পরিকল্পনা এই সরকার নেবে না। আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণে স্থানীয় জনগণ না চাইলে অন্য জায়গা ঠিক করা হবে। প্রয়োজনে পদ্মার ওপারে আধুনিক বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা বিমানবন্দর স্থাপনে বিরোধিতা করছে তাদের দূরদর্শিতার অভাব রয়েছে। সভায় প্রধানমন্ত্রী মুন্সীগঞ্জের সহিংস ঘটনায় দায়িত্ব পালনে গাফিলতির কারণে এসপিকে সাসপেন্ডের নির্দেশ দিয়েছেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, বৈঠকে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেন, আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর স্থাপনের বিষয়ে জনমত যাচাইয়ের লৰ্যে প্রয়োজনে মতবিনিময় সভা করা যেতে পারে।

গত সোমবার আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধানত্ম বাতিলের দাবিতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ব্যাপক বিক্ষোভ করে হাজার হাজার এলাকাবাসী। এই সঙ্গে স্থানীয় জনগণ রাসত্মা অবরোধ করে রাখে। দিনভর এ বিক্ষোভে জনতার সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশের এক কর্মকর্তা নিহত হয়। আহত হয় ৪০ পুলিশ সদস্য, একজন ম্যাজিস্ট্রেট, পাঁচ সাংবাদিক ও বিক্ষোভকারী শতাধিক গ্রামবাসী। বিক্ষুব্ধ জনতা হাঁসাড়া পুলিশ ফাঁড়ি, পুলিশের তিনটি গাড়ি ও দুটি মোটরসাইকেল ভাংচুর-অগি্নসংযোগ করে। পুলিশের অস্ত্র লুটের মতো ঘটনাও ঘটে।

আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির ব্যানারে এলাকাবাসী মাসখানেক ধরে মিছিল, সভা-সমাবেশ করে আসছে। ২৬ জানুয়ারি ঢাকার মুক্তাঙ্গনে তাদের সমাবেশ কর্মসূচী ছিল। সমাবেশ করতে বাধা দেয়া এবং ওই দিন সংঘর্ষের ঘটনায় দুই হাজার গ্রামবাসীর বিরম্নদ্ধে মামলা করার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধের এই কর্মসূচী ঘোষণা করা হয় বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

সরকারের সিনিয়র এক মন্ত্রী জনকণ্ঠকে বলেন, দেশকে সামনে এগিয়ে নিতে আধুনিক বিমানবন্দর নির্মাণ জরম্নরী। তিনি বলেন, চট্টগ্রাম ও কঙ্বাজারের সমুদ্র সৈকতের উন্নয়ন, কুয়াকাটায় আধুনিক পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা, সুন্দরবনকে পর্যটন কেন্দ্রে রূপ দেয়া হলে বাংলাদেশে পর্যটকের আগমন অনেকাংশে বেড়ে যাবে। এ ৰেত্রে আধুনিক বিমানবন্দর নির্মাণ জরম্নরী। যাদের দূরদর্শিতার অভাব রয়েছে তারাই চায় না এদেশে আধুনিক বিমানবন্দর নির্মাণ হোক। তিনি বলেন, নতুন বিমানবন্দরটিকে সিঙ্গাপুর বা দুবাইয়ের মতো দক্ষিণ ও পূর্ব এশিয়ায় বিমান চলাচলের পথে কেন্দ্রস্থলে পরিণত করার চিনত্মা নিয়ে এই বিমানবন্দর করার সিদ্ধানত্ম নেয়া হয়। এতে এ খাত থেকে দেশে প্রচুর রাজস্ব আসবে বলেও ধারণা করা হয়।

নতুন বিমানবন্দরের সিদ্ধান্ত ॥ সরকার দেশে এই আধুনিক বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধানত্ম নেয়। এই সিদ্ধান্ত মোতাবেক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে একটি আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়। গত বছরের ২৯ আগস্ট প্রসত্মাবিত বঙ্গবন্ধু আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের ব্যাপারে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রানত্ম মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে নীতিগত সিদ্ধানত্ম হয়। ওই বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, প্রকল্পটি সরকারী ও বেসরকারী অংশীদারির (পিপিপি) মাধ্যমে বাসত্মবায়ন করা হবে। নতুন বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য প্রাক-সম্ভাব্যতা কমিটি সাতটি স্থান সরেজমিনে পরিদর্শন করে তিনটি স্থানের নাম প্রসত্মাব করে। এক. ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ত্রিশাল, আমিরাবাড়ী, মোক্ষপুর ও মঠবাড়ী ইউনিয়ন। দুই. ত্রিশাল উপজেলার রামপাল, কানহর, কাঁঠাল ও বৈলর ইউনিয়ন। তিন. টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর। এই তিনের মধ্যে প্রথম প্রস্তাবের পক্ষে (ময়মনসিংহের ত্রিশাল) গত বছরের ৭ এপ্রিলের বেসরকারী বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভায় সুপারিশ করা হয়।
এরপর কমিটি ১৫ নবেম্বর আবার বিমানবন্দরের স্থান নির্বাচনের জন্য ফরিদপুরের ভাঙ্গা, মাদারীপুরের শিবচর ও রাজৈর, শরীয়তপুরের জাজিরা এবং মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের আড়িয়াল বিল এলাকা পরিদর্শন করে। ৩০ নবেম্বর বিমান মন্ত্রণালয়ের সচিব সাংবাদিকদের জানান, বঙ্গবন্ধু আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের স্থান হিসেবে আড়িয়াল বিলকেই চূড়ানত্ম করার সুপারিশ করেছে এ-সংক্রানত্ম কমিটি।

গত ১২ ডিসেম্বর আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর এবং পাশেই বঙ্গবন্ধু সিটি নির্মাণের বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর আড়িয়াল বিলের ২৫ হাজার একর জমি অধিগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরম্ন হয়।
নতুন বিমানবন্দরের পক্ষে যুক্তি ॥ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ সেলের প্রধান (যুগ্ম সচিব) জয়নাল আবেদীন তালুকদার গত ৬ ডিসেম্বর স্থান নির্বাচন-সংক্রানত্ম প্রতিবেদন পাঠান বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে। প্রতিবেদনে নতুন বিমানবন্দরের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বলা হয়, দেশে এখন ১৭টি বিমান সংস্থা ফ্লাইট পরিচালনা করছে। ঢাকায় শাহজালাল আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমান চলাচল বাড়ছে। ভবিষ্যতের চাহিদা মেটাতে এর বর্তমান অবকাঠামো যথেষ্ট নয়। ক্ষমতার ৮০ শতাংশ এখন ব্যবহৃত হচ্ছে। এ বিমানবন্দরের একটি রানওয়ে এবং বছরে ৮০ লাখ যাত্রী পরিচালন ক্ষমতা রয়েছে। ক্রমবর্ধমান বিমানযাত্রীর তুলনায় তা অপ্রতুল। এই বিমানবন্দরের চারদিকে আবাসিক এলাকা ও সেনানিবাস থাকায় ভবিষ্যতে সম্প্রসারণ করা সম্ভব নয়। এর যাত্রী টার্মিনাল ভবন অপ্রশসত্ম এবং পাঁচ সত্মরের আধুনিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার ধারণা বাসত্মবায়নের যথেষ্ট সুযোগ নেই। এ ছাড়া বর্তমান বিমানবন্দরে সর্বশেষ প্রযুক্তির সুপরিসর উড়োজাহাজ এয়ারবাস এ-৩৮০ পরিচালনের ক্ষমতা নেই। এ অবস্থায় আধুনিক সুবিধাসম্পন্ন নতুন আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ এবং এর সঙ্গে রাজধানীর সংযোগ সড়ক এঙ্প্রেসওয়ে জরম্নরী।

স্থানীয় জনগণের উলস্নাস আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণে জনগণ না চাইলে অন্য জায়গায় হবে- প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণা ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে উলস্নাসে ফেটে পড়েছে আড়িয়াল বিল এলাকার জনগণ। মসজিদের মাইকে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য প্রচার করা হয়। পুলিশের গ্রেফতার এড়াতে যারা আত্মগোপনে ছিলেন তারাও আনন্দ-উলস্নাস করতে রাসত্মায় নেমে পড়েছেন। গ্রামে গ্রামে মিষ্টি বিতরণের খবরও পাওয়া গেছে।

হাসাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন বলেন, আজকের এ দিনটিকে আড়িয়ালবাসী মনে রাখবে। প্রতি বছর এই দিনে আড়িয়াল বিল মুক্ত দিবস পালন করার উদ্যোগ গ্রহণ করব আমরা। এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জনগণের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান।

প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভাকে ধন্যবাদ ॥ এদিকে আড়িয়াল বিলে নতুন বিমানবন্দর স্থাপনের সিদ্ধানত্ম থেকে সরে আসায় প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভাকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বিভিন্ন সংগঠন। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)’র সাধারণ সম্পাদক ডা. মোঃ আব্দুল মতিন স্বাৰরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিপরিষদ মুন্সীগঞ্জের আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর না করার সিদ্ধানত্ম গ্রহণ করায় বাপার পৰ থেকে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর মন্ত্রিপরিষদকে আনত্মরিক ধন্যবাদ ও অভিনন্দন। এ সিদ্ধানত্মের ফলে দেশের জনস্বার্থের সম্পূরক বিষয়াদি বিশেষ করে নদী-জলাশয় ও সার্বিক পরিবেশ সংরৰণে প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ় ইতিবাচক অবস্থান আবারও প্রমাণিত হলো। এক বিজ্ঞপ্তিতে গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার কেন্দ্রীয় নেতর্ৃবৃন্দ জানান, বিলম্বে হলেও সরকারের এই বিষয়ে বোধোদয় হয়েছে। তারা উন্নয়নের নামে জমি, জলাশয়, পরিবেশ ও জীবিকা ধ্বংসকারী এ ধরনের প্রকল্প গ্রহণ না করার জন্য সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছে।

জনকন্ঠ
—————————————————

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় আড়িয়াল বিল এলাকায় স্বস্তি
মিষ্টি বিতরণ

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, শ্রীনগর থেকে ফিরে ॥ শ্রীনগরে সংঘর্ষের ঘটনায় এ পর্যন্ত ২০ জন গ্রেফতার হয়েছে। এদের মধ্যে সাতজনকে দু’দিন করে রিমান্ড এবং আরও দু’জনকে জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমিত দিয়েছে। পুলিশ ঠেকাতে হাসাড়া-বাড়ৈখালী সড়কের অনত্মত ১০ পয়েন্টে গাছের গুঁড়ি ফেলে বুধবার ব্যারিকেড সৃষ্টি করে। একটি বেইলি ব্রিজের সিস্নপার খুলে ফেলেছে গ্রামবাসী। এতে এই সড়কে সরাসরি যাতায়াত বন্ধ হয়ে গেছে। আড়িয়াল বিলের উপকণ্ঠের গ্রামগুলোতে ভিন্ন রকমের পরিবেশ বিরাজ করছে। গ্রাম ঘুরে মনে হয়েছে-মানুষের মধ্যে পুলিশ ভীতি রয়েছে। তবে বিকেলে ‘জনগণের মতের বিরম্নদ্ধে বিমানবন্দর করব না’ প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের খবরে স্বসত্মি লক্ষ্য করা গেছে।

গ্রেফতারকৃত ২০ জনকে বুধবার বিকেলে মুন্সীগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। পুলিশ এদের মধ্যে ৯ জনের ৫ দিন করে রিমান্ড আবেদন করে। শুনানি শেষে বিচারক আবুল হাসনাত সকলের জামিন নামঞ্জুর করে আদেশ দেন। এই সংক্রানত্ম ৪টি মামলা হলেও এই ২০ জনকে দারোগা ফরিদের দায়ের করা পুলিশ হত্যা মামলায় নং ২৫(১)২০১১ গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম এসব তথ্য জানিয়ে বলেছেন, রিমান্ডে অনেক তথ্য বেরিয়ে আসবে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় এলাকায় আনন্দের বন্যা বইছে বলে তিনি জানান।
রিমান্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছেন রাশেদ হোসেন, মোঃ জাহাঙ্গীর, মোঃ শুকুর শেখ, মোজাম্মেল, আলমগীর হোসেন মুন্না, মিলস্নাদ ও জায়েদুল ইসলাম কাজল। এছাড়া সাবি্বর ও এসহাক নামের দুই আসামিকে মুন্সীগঞ্জ জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেয়। বাকি ১১ জনকেও জেলহাজতে পাঠানো হয়।

এদিকে বিকেল সোয়া ৪টায় শহরের সুপার মার্কেটস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে বিএনপি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাইয়ের নেতৃত্বে মিছিলটি শহরের পুরনো বাসস্ট্যান্ডে পেঁৗছে পথসভা করে। এতে আব্দুল হাই ছাড়াও বক্তব্য রাখেন আতোয়ার হোসেন বাবুল ও এ্যাডভোকেট তোতা মিয়া।
এদিকে আড়িয়াল বিলের উপকণ্ঠের গ্রামগুলোতে এখনও উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। গ্রেফতার এড়াতে গ্রামের পুরম্নষরা নানা কৌশল অবলম্বন করেছে। হাসাড়া-বাড়ৈখালী সড়কে গাছের গুঁড়ি ফেলে বুধবার ব্যারিকেড সৃষ্টি করে রেখেছে গ্রামবাসীর। এতে এই সড়কে সরাসরি যাতায়াত বন্ধ হয়ে গেছে। হেঁটে বা ভ্যানে করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এছাড়া গ্রামে ঢোকার সড়কগুলোতে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। চেকপোস্টগুলোতে নারীরা ডিউটি করছে। মসজিদের মাইকগুলোও সচল থাকছে। মাইকে নানা রকমের সতর্কতার নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। চেকপোস্টের কাছাকাছি লোক আসলেই মোবাইলের মাধ্যমে মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ছে গ্রামে। গ্রামগুলোতে পুরম্নষের সংখ্যা কম। তারাও আছে খুবই সতর্কতার মধ্যে। রাতে অধিকাংশ পুরম্নষই ঘরে ঘুমায় না। এদিকে আলমপুর, লস্করপুর, বাড়ৈখালী, মদনখালীসহ বিলের উপকণ্ঠে গ্রামগুলোর লোকজনও বাইরে যাচ্ছে না। কারণ হাটবাজারে গেলেও পুলিশ গ্রেফতার করবে এমন আশঙ্কায় গ্রামের লোকজন বাইরে যাচ্ছে কম। তবে গ্রামগুলোতে মাঝেমধ্যেই বিক্ষোভ চলছে। এই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মাহী বি চৌধুরী বুধবার গ্রামগুলো পরিদর্শন করে লোকজনের সঙ্গে কথা বলেছেন।

শ্রীনগর থানার ওসি শাখাওয়াত হোসেন জানান, বুধবার ভোর এবং গভীর রাতে আরও ১৪ জন গ্রেফতার হয়। এর আগে গ্রেফতার করা হয়েছিল ৬ জন। মোট গ্রেফতার সংখ্যা দাঁড়ায় ২০। তিনি জানান, সোমবারের অবরোধের নামে গ্রেফতারকৃতরা পুলিশের ওপর হামলাসহ ধ্বংসাত্মক কাজে জড়িত ছিল।

পুলিশের খোয়া যাওয়া আরও ৩টি অস্ত্র ও গুলি এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি এবং এজাহারনামীয় গুরম্নত্বপূর্ণ কোন আসামি এখনও গ্রেফতার হয়নি উলেস্নখ করে ওসি জানান, অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

‘জনগণের মতের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর করব না’ প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের খবরে বিকেলে এলাকার লোকজনের মধ্যে স্বসত্মি লক্ষ্য করা গেছে। আলমপুরসহ কয়েকটি এলাকায় আনন্দ উলস্নাস এবং মিষ্টি বিলানোর খবর পাওয়া গেছে।

জনকন্ঠ
—————————————————

[ad#bottom]

Leave a Reply