রঙে জয়ধ্বনিতে উৎসবমুখর আড়িয়াল বিল

মামলা প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে
অমিতাভ অপু, দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা) ও মাসুদ খান, লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ)
ঘড়ির কাঁটায় তখন বিকেল ৩টা। আড়িয়াল বিল এলাকার মুন্সীনগর, দীঘিরপাড়, আর্দিপাড়া, গোবিন্দপুর, বাড়ৈখালী, আলমপুর, মোছলেমহাটিসহ ১৪ গ্রামের হাজারো নারী-পুরুষ প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন বিমানবন্দর নির্মাণবিরোধী মিছিলে শামিল হওয়ার। কিন্তু হঠাৎ মসজিদের মাইকে ঘোষণা এল-বিমানবন্দর হচ্ছে না। মিনিটেই পাল্টে গেল দৃশ্যপট। আড়িয়াল বিল এলাকার উল্লসিত জনতা বাঁধভাঙা জোয়ারের মতো নেমে এল রাস্তাঘাট আর স্কুলের মাঠে। পুরো এলাকা মুখর হয়ে উঠল মিষ্টি বিতরণ, রংখেলা আর হাজারো মানুষের সম্মিলিত জয়ধ্বনিতে।

তবে মামলা প্রত্যাহার ও পুলিশি হয়রানি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির নেতারা। গতকাল বুধবার পর্যন্ত তিন মামলায় ২০ জন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে স্বীকার করেছে পুলিশ। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আসামিদের মধ্যে সাতজনকে দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

বিমানবন্দর না হওয়ার ঘোষণায় এলাকার নারী-পুরুষ মিছিল নিয়ে জড়ো হতে থাকে আকারবাগ মাঠে। মুহূর্তেই কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় মাঠ। ১০-১২ হাজার মানুষের সম্মিলিত জয়ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে এলাকা। সবার মুখে একই স্লোগান-‘এয়ারপোর্ট হবে না’, ‘জয় বাংলা’, ‘জয় আড়িয়াল বিলবাসী’। শুরু হয় মিষ্টি বিতরণ, রংখেলা। ৭৫ বছর বয়সী অলেছা বেগম শুধু একটি কথাই বললেন, ‘আমার মন কইছিল হাসিনা আমাগো মনের কতা বুঝব।’ অলেছা বেগমের মতো অনেক বৃদ্ধাই এসেছিলেন মুন্সীনগর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আনন্দে শরিক হতে।
সোমবারের ঘটনার পর আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির বেশির ভাগ সদস্য আÍগোপন করে থাকলেও গতকালের ঘোষণার পরপরই আনন্দ মিছিলের নেতৃত্ব দিয়ে মুন্সীনগর মাঠে জড়ো হন। আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আবু সাঈদ, জিয়াউর রহমান জিয়ন, মুজিবুর রহমানসহ কয়েকজনকে সেখানে দেখা যায়। মুন্সীনগর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে বাড়ৈখালীর দিকে প্রতিটি রাস্তা ও স্কুলের মাঠেই চোখে পড়ে বিজয়ী মানুষের মিলনমেলা। নবাবগঞ্জের চূড়াইন থেকে শ্রীনগরের হাসাড়া বাড়ৈখালী পর্যন্ত মিছিল আর মিছিল।

আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির সদস্য মুজিবুর মেম্বার বলেন, ‘এ আন্দোলন কোনো দলের বা গোষ্ঠীর আন্দোলন ছিল না। আর এখন যে আনন্দ মিছিল হচ্ছে এটাও কোনো দলের বা গোষ্ঠীর আনন্দ মিছিল নয়। এটা মৃত্যুর মুখ থেকে মায়ের কোলে ফিরে আসার আনন্দ। এই আড়িয়াল বিল আমাদের মা।’

জানা গেছে, আড়িয়াল বিল রক্ষা কমিটির সদস্যরা গত রাতে বৈঠক করেছেন। তাঁরা জানিয়েছেন, মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেপ্তার বন্ধের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া হবে। বিল রক্ষা কমিটির সদস্য আবু সাঈদ তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘বিলের প্রায় ২১ হাজার মানুষের নামে দায়ের করা একাধিক মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।’
গ্রেপ্তার ঠেকাতে ব্যারিকেড : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ নেতা-কর্মীর নামে মিথ্য মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে শ্রীনগরের বিভিন্ন স্থানে গতকাল পথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পুলিশকে এলাকায় ঢুকতে বাধা দিতে গত রাতেও বেশির ভাগ রাস্তায় ব্যারিকেড সৃষ্টি করা হয়। শ্রীনগর, হাসাড়া, বাড়ৈখালী থেকে নবাবগঞ্জের চূড়াইন পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার রাস্তায় গাছ ফেলে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে এলাকাবাসী। বেইলি ব্রিজের পাটাতনও খুলে ফেলা হয়েছে। সন্ধ্যা ৬টা থেকে শ্রীনগরের হাসাড়া মোড়, পুলিশ ফাঁড়ি ও ছনবাড়ী মোড়ে দাঙ্গা পুলিশের টহল দেখা গেছে।

খালেদার বিরুদ্ধে মামলা থানায় নথিভুক্ত হয়নি : মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার জানান, গত মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ তিন হাজার মানুষের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি শ্রীনগর থানায় গত রাত পর্যন্ত নথিভুক্ত করা হয়নি। এর আগে থানার ওসি জানিয়েছিলেন, মামলাটি থানায় নথিভুক্ত হয়েছে। ওই মামলার বাদী হলেন মুন্সীগঞ্জ শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন।

গ্রেপ্তার ২০, রিমান্ডে ৭ : পুলিশ জানায়, তিন মামলায় গতকাল পর্যন্ত ২০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে সাতজনকে পুলিশ দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। তারা হলো রাশেদ হোসেন, জাহাঙ্গীর, শুকুর শেখ, মোজাম্মেল, আলমগীর হোসেন মুন্না, মিল্লাদ ও জাহেদুল ইসলাম। শ্রীনগর থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন কালের কণ্ঠকে জানান, পুলিশ হত্যা মামলায় মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত ২০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কোনো গ্রামে অভিযান চালানো হয়নি। তবে ঢাকা-মাওয়া সড়কসহ আশপাশে প্রায় ৩০০ ফোর্স নিরাপত্তা টহলে আছে। তিনি বলেন, ‘নির্দোষ কাউকে আমরা হয়রানি করব না।’

দুই ধরনের প্রতিক্রিয়া : শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও উপজেলা চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন ঢালী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আড়িয়াল বিলে শ্রীনগর উপজেলার এক হাজার ৮০০ একর খাসজমি রয়েছে। নবাবগঞ্জ ও সিরাজদীখান এলাকায়ও অনেক খাসজমি আছে। বাড়ৈখালী ইউনিয়ন ছাড়া কোনো এলাকায় জনবসতি নেই। ভুল বোঝাবুঝির কারণে আমার এলাকার জনগণ উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘জনগণের দাবি অন্যভাবে উপস্থাপন করতে পারত তারা। জমির জন্য বেশি দাম দেওয়ার দাবি জানাতে পারত এলাকাবাসী। এটি একটি রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র।’

এদিকে বিল রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক শাহজাহান বাদল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ, দেরিতে হলেও তিনি জনগণের প্রাণের কথা বুঝতে পেরেছেন। এখন আমাদের দাবি, নিরীহ বিলবাসীর ওপর থেকে যেন মামলা তুলে নেওয়া হয়।’

মুন্সীগঞ্জে বিএনপির বিক্ষোভ : খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে গতকাল বিকেল ৪টায় মুন্সীগঞ্জ শহরের সুপার মার্কেট থেকে বিএনপি একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। জেলা সভাপতি আবদুল হাইয়ের নেতৃত্বে মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

মাহী বি চৌধুরীর পরিদর্শন : শ্রীনগর ও সিরাজদীখান এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য মাহী বি চৌধুরী গতকাল দুপুরে শ্রীনগর ও আশপাশের গ্রামগুলো পরিদর্শন করেন। ওই সময় তিনি এলাকাবাসীকে সান্ত্বনা দেন।

[ad#bottom]

Leave a Reply