হঠাৎ পাল্টে গেল আড়িয়ল বিলের দৃশ্যপট

মো. নুরুল্লাহ খান, দোহার থেকে: ঘড়ির কাটায় তখন অনুমান বেলা ৩টা। আড়িয়ল বিল এলাকার মুন্সীনগর, দীঘিরপার, আর্দিপাড়া, গোবিন্দপুর, বাড়ৈখালী, আলমপুর, মোছেলমহাটিসহ ১৪ গ্রামের হাজার হাজার নারী-পুরুষ প্রস্তুতি নিচ্ছিল বিমানবন্দর নির্মাণ বিরোধী মিছিলে শামিল হতে। তখনই মসজিদের মাইকে ঘোষণা এল আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর হচ্ছে না। মিনিটেই পাল্টে গেল দৃশ্যপট আড়িয়লবিলের গ্রামের রাস্তাঘাট ও স্কুলের মাঠগুলো ভরে গেল হাজার হাজার নারী-পুরুষের উপস্থিতিতে। ৩টা ১০মিনিটে নবাবগঞ্জ উপজেলার মুন্সীনগর উচ্চবিদ্যালয় ও আকারবাগ মাঠে নারী-পুরুষ এলাকার সরু রাস্তার গলি থেকে মিছিল নিয়ে জড়ো হচ্ছিল। সবার মুখে একই স্লোগান, ‘এয়ারপোর্ট হবে না’ জয় বাংলা, জয় আড়িয়ল বিলবাসী। এরপরই শুরু হয় মিষ্টি বিতরণ।

৭৫ বছর বয়সী বৃদ্ধা অলেছা বেগম শুধু একটি কথাই বললেন ‘আমার মন কইছিলো হাসিনা আমাগো মনের কতা বুঝবো। তিনি আরেকজনকে উদ্দেশ্য করে বলছেন, কইছিলাম না এয়ারপোর্ট আইবো না, সব দোষ অই সুকুমার আর মান্নানের। অলেছা বেগমের মতো অনেক বৃদ্ধা এসেছিলেন মুন্সীনগর উচ্চবিদ্যালয় আনন্দ মিছিলে শরিক হতে।

সোমবারের ঘটনার পর আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির অধিকাংশ সদস্য আতœগোপন করে থাকলেও বিমানবন্দর হবে না এ ঘোষনার পরপরই আনন্দ মিছিলের নেতৃত্ব দিয়ে মুন্সীনগর মাঠে জড়ো হন। আহ্বায়ক কমিটির আবু সাঈদ, জিয়াউর রহমান জিয়ন, মুজিবুর রহমান সহ কয়েকজন।

আবু সাঈদ তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় বললেন, সরকারকে ধন্যবাদ। সরকার আড়িয়ল বিলবাসীর মনের কথা বুঝতে পেরেছে। তবে বিলের প্রায় ২৩ হাজার মানুষের নামে দায়ের করা একাধিক মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি। বিল রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব জিয়াউর রহমান জিয়ন জানান, স্থানীয় দুই সংসদ সদস্য প্রধানমন্ত্রীকে ভুল তথ্য দিয়েছিলেন যে, শ্রীনগরের ১১ হাজার একর জমির অধিকাংশই খাস। কিন্তু এসএ ও আরএস রেকর্ড অনুসারে মাত্র ৬শ একর খাস জমি রয়েছে। তিনি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তার সিদ্ধান্তে এলাকাবাসী খুশি। তিনিও বিলবাসীর নামে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির সদস্যরা রাতে নিজেদের মধ্যে বৈঠক করবেন। পরবর্তী কর্মসূচী নির্ধারণ করতে। তবে কমিটির অধিকাংশ সদস্য গত ৩ দিনে গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তি ও আড়িয়ল বিল এলাকার প্রায় ২৫ হাজার মানুষের নামে মামলা প্রত্যাহার না পর্যন্ত তারা ঘরে ফিরে যাবে না। আর সেক্ষেত্রে যদি এলাকায় পুলিশি অভিযান চালানো হয় তাহলে নতুন করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন তারা।

[ad#bottom]

Leave a Reply