পদ্মাসেতুর ব্যয় বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি

রেজা রায়হান
বাস্তব কাজ শুরুর আগে প্রস্তুতি পর্যায়ে পদ্মা বহুমুখী সেতুর নির্মাণ ব্যয় দ্বিগুণেরও বেশি বাড়ানো হয়েছে। ২০০৭ সালের ২০ আগস্ট একনেক সভায় অনুমোদিত মূল উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবে (ডিপিপি) পদ্মা সেতুর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছিল ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ ১০ হাজার টাকা। গত মাসে প্রকল্পের প্রথম সংশোধনে একনেক তা বাড়িয়ে ২০ হাজার ৫০৭ কোটি ২০ লাখ ১৬ হাজার টাকায় অনুমোদন করেছে। ব্যয় বেড়েছে ১০ হাজার ৩৪৫ কোটি ৪৫ লাখ ৬ হাজার টাকা। বৃদ্ধির হার ১০২ শতাংশ।

তবে নির্মাণ কাজ সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত এ ধরনের অবকাঠামো প্রকল্পের প্রকৃত ব্যয় সম্পর্কে বাংলাদেশে আগাম ধারণা সম্ভব নয়। ঠিকাদারদের প্রাক-যোগ্যতা নির্ধারণ ও নির্মাণ কাজের ঠিকাদার নিয়োগে প্রতিযোগিতাহীনতা আর দাতাসংস্থার অভিপ্রায় রক্ষাসহ নানা কারণে শেষ পর্যন্ত সেতুর প্রকৃত নির্মাণ ব্যয় যে কোনো অঙ্কে দাঁড়াতে পারে। তবে ঠিকাদার নিয়োগ ও বাস্তবায়নের বিভিন্ন পর্যায়ে এ প্রকল্পের ডিপিপি যে আরও বহুবার সংশোধিত ও বিভিন্ন খাতে ব্যয় হ্রাস-বৃদ্ধি পাবে তা নিশ্চিত করেই বলা যায়।

পদ্মা সেতুর বিস্তারিত আর্থিক ও অর্থনৈতিক বিশ্লেষণে ২০১৪ সালে সেতু দিয়ে দৈনিক ১২ হাজার গাড়ি চলাচলের পূর্বাভাস দিয়ে বছরে ৭ শতাংশ হারে গাড়ি চলাচলের প্রবৃদ্ধির কথা বলা হয়েছে। এ হিসাবে সেতু চালুর ৩০ বছর পর ২০৩৪ সালে দৈনিক ৬৪ হাজার যানবাহন চলাচল করবে। প্রথমে পদ্মা সেতুতে ৮০ শতাংশ বাস-ট্রাক চললেও পরে প্রাইভেট গাড়ি ও মোটরসাইকেলের চলাচল বৃদ্ধি পাবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। তবে সেতু ২০১৫ সালের জুনে চালু হবে বলে ডিপিপিতে বলা হলেও নির্ধারিত সময়ে নির্মাণের অনেক কাজই শুরু করা যায়নি। গত জুন পর্যন্ত মাত্র ৫১৮ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। ফলে নির্ধারিত সময়ে সেতুর নির্মাণ সমাপ্ত হওয়ার ক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা থেকেই যাচ্ছে। এদিকে নির্মাণ ব্যয় বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে দাতাসংস্থার প্রতিশ্রুত প্রকল্প সাহায্যের (ঋণ) পরিমাণও বেড়েছে। প্রকল্প সাহায্য হিসেবে পাওয়া যাবে ১৬ হাজার ২৫০ কোটি টাকা। এর মধ্যে বিশ্বব্যাংক ১২০ কোটি ডলার, এডিবি ৬১ কোটি ৫০ লাখ ডলার, জাপানের জাইকা ৪০ কোটি ডলার এবং ইসলামিক উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) ১৪ কোটি ডলার দেবে। সেতু নির্মাণে সরকার ব্যয় করবে ৩ হাজার কোটি টাকা। তবে এর মধ্যে ৩০০ কোটি টাকা জাপানের ঋণ মওকুফ তহবিলের।

২০০৭ সালে অনুমোদিত মূল ডিপিপিতে প্রকল্প সাহায্য হিসেবে ৬ হাজার ৮৮০ কোটি ৬৬ লাখ টাকা প্রাপ্তি ধরা হয়। তবে ব্রিটিশ ডিএফআইডি ও ডাচ সরকার থেকে প্রত্যাশিত সহায়তা পাওয়া না গেলেও আইডিবি থেকে সহায়তা পাওয়া যাবে। অন্য দাতারাও সহায়তার পরিমাণ বাড়িয়েছে।

ব্যয় বৃদ্ধির উল্লেখযোগ্য খাত : পদ্মা সেতু প্রকল্পের ব্যাপক ব্যয় বৃদ্ধির কারণ হিসেবে সেতুর দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি, ডিজাইন পরিবর্তন, ভূমির মূল্যবৃদ্ধি, প্রকল্পের বিভিন্ন অঙ্গের কাজের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। তবে কোনো কোনো ক্ষেত্রে কাজের পরিমাণ কমার পরেও রহস্যজনকভাবে ব্যয় বেড়েছে।

২০০৭ সালের মূল অনুমোদিত ডিপিপিতে ৫.৫৮ কিলোমিটার দৈর্ঘের মূল সেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩ হাজার ৬৬৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। এখন ৬.১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের মূল সেতু নির্মাণের ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৩৬১ কোটি ৬ লাখ ২০ হাজার টাকা। বৃদ্ধির হার ২২৮ শতাংশ। ১৬.৩০ কিলোমিটার নদীশাসন (ও মাটি ভরাট) কাজের জন্য অনুমোদিত ব্যয় ছিল ২ হাজার ৬১২ কোটি ৭০ লাখ টাকা। সংশোধিত প্রকল্পে এ কাজ ২.৩০ কিলোমিটার কমে ১৪ কিলোমিটার হলেও ব্যয় বেড়ে হয়েছে ৪ হাজার ৩৮৭ কোটি ৭১ লাখ টাকা। বৃদ্ধির হার ১৬৮ শতাংশ। ১২.১৬৩ কিলোমিটার অ্যাপ্রোচ সড়ক, টোল প্লাজা ও সার্ভিস এলাকা নির্মাণে ব্যয় ধরা হয় ৩৬০ কোটি ২৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। এখন ১২ কিলোমিটার অ্যাপ্রোচ সড়ক, টোল প্লাজা ও সার্ভিস এলাকা নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ২৬৯ কোটি ৭৬ লাখ ৫৬ হাজার টাকা। বৃদ্ধির হার ৩৫২ শতাংশ। মূল অনুমোদিত প্রকল্পে ২ হাজার ২৬৯ একর জমি অধিগ্রহণের জন্য ৫২৮ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হলেও এখন ২ হাজার ৭৭৯ একর জমি অধিগ্রহণের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৯৪৪ কোটি ৪২ লাখ টাকা। প্রকল্প ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় প্রকল্পের নির্মাণকালীন সুদ খাতে ব্যয় ৯৫ কোটি ৮৪ লাখ থেকে বেড়ে ৬৬২ কোটি ৪০ লাখ টাকা হয়েছে। নির্মাণ তদারকি পরামর্শকের ব্যয় ৪৫ কোটি টাকা বাড়িয়ে ৩৪৫ কোটি টাকা করা হয়েছে। প্যানেল অব এক্সপার্টের জন্য ব্যয় ৭ কোটি টাকাকে ৫০ কোটি টাকা বাড়িয়ে ৫৭ কোটি ২০ লাখ টাকা করা হয়েছে। সমীক্ষাসহ ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে ৩০৬ কোটি টাকা ব্যয়কে ১ হাজার ৪২৩ কোটি ৪৭ লাখ টাকা করা হয়েছে। যানবাহন কেনায় ব্যয় সাড়ে ১০ কোটি টাকা বাড়িয়ে ১৫ কোটি ৮৮ লাখ ৭৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। পরিবেশ খাতে ৪৬ কোটি ৪৪ লাখ ৬০ হাজার টাকার ব্যয় ৮২ কোটি ৫৮ লাখ টাকা বাড়িয়ে ১২৯ কোটি টাকা করা হয়েছে। কম্পিউটার, অফিস সরঞ্জাম ও আসবাবপত্র_ এ ৩টি খাতে ১ কোটি টাকা ব্যয়কে বাড়িয়ে ২ কোটি ৬৫ লাখ টাকা করা হয়েছে। এছাড়া নতুন কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড তৈরি খাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৫০ কোটি টাকা। ব্যবস্থাপনা সহায়তা পরামর্শক (অডিট) নামের নতুন খাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৫১ কোটি ৮০ লাখ টাকা।

তুলনামূলক নির্মাণ ব্যয় : ১৯৯৮ সালে নির্মিত বঙ্গবন্ধু সেতুর মূল সেতুর প্রতি কিলোমিটার নির্মাণে ব্যয় হয় ২১৯ কোটি ৩৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা। পদ্মা সেতুতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৩৫৯ কোটি ৫২ লাখ টাকা।

বঙ্গবন্ধু সেতুর প্রতি কিলোমিটারের নদীশাসনে ব্যয় হয় ১৯৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা। পদ্মা সেতুতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩১৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

বঙ্গবন্ধু সেতুর প্রতি কিলোমিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণে ব্যয় হয় ৮ কোটি ৮ লাখ টাকা। পদ্মা সেতুতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১০৫ কোটি ৮১ লাখ টাকা।

বাংলাদেশ প্রতিদিন

[ad#bottom]

Leave a Reply