আড়িয়াল বিলের জনবিক্ষোভ

এ এম এম শওকত আলী
বিগত কয়েক দিন ধরেই আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের ঘোষণার ফলে সেখানকার জনমানুষের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ ক্রমেই পুঞ্জীভূত হচ্ছিল। এর চূড়ান্ত রূপ লাভ করল ৩১ জানুয়ারি। ওইদিন আড়িয়াল বিল ও তৎসংলগ্ন জনপদের অধিবাসীদের সরকারী সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ স্বভাবতই পুলিশ-জনতার সংঘর্ষে পরিগণিত হয়। এ সংঘর্ষে প্রাণ হারায় এক পুলিশ কর্মকর্তা। জনরোষে একটি পুলিশ ক্যাম্প পুড়ে ছাই হয়ে গেল। আহত হলো শতাধিক ব্যক্তি। এ সংঘর্ষে ৩০ হাজারেরও অধিক সংক্ষুব্ধ ব্যক্তিরা অংশ গ্রহণ করে। এক সাংবাদিকের মোটরসাইকেলও পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ঘটনাস্থল হাঁসারা। শ্রীনগর উপজেলা।

পত্রিকান্তরে দেখা যায়, ত্রিশালের মতো উঁচু জমি সম্পন্ন স্থান নির্বাচনের প্রসত্মাব থাকলেও কয়েকজন কর্মকর্তার জন্য ত্রিশালের বদলে আড়িয়াল বিলে নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়। জানা যায় যে, মাত্র দুই বা তিনবার এলাকা পরিদর্শন করে কর্মকর্তারা এ প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করেন। গত বছরের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত নতুন বিমানবন্দর স্থাপনের জন্য ত্রিশালের ৭০০০ একর জমিই বেসামরিক বিমান কর্তৃপৰ নির্বাচন করেছিল। এ সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিক প্রস্তাবও দেয়া হয়েছিল। আড়িয়াল বিল এলাকাকে কিভাবে নির্বাচন করা হয় তার পটভূমির বিস্তারিত বিবরণ ফেব্রুয়ারি ১ তারিখের একটি ইংরেজী দৈনিকে প্রকাশ করা হয়েছে। এ বিবরণ বিশেস্নষণ করলে বুঝতে অসুবিধা হয় না যে আড়িয়াল বিল নির্বাচনের সুপারিশ যারা করেছে, তারা সঠিক কাজ করেনি। তবে এ কথাও সত্য যে, এ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করার জন্য তারা একাধিক সম্ভাব্য স্থানের দোষগুণ সম্পর্কিত একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনও প্রধানমন্ত্রী সমীপে করেছিলেন।

সংসদীয় গণতান্ত্রিক কাঠামোতে এ ধরনের প্রশাসনিক প্রক্রিয়া কতটুকু আইনসিদ্ধ হয়েছে সে প্রশ্নও উত্থাপিত হতে পারে। এর চূড়ান্ত দায়িত্ব বেসামরিক বিমানমন্ত্রীর। প্রধানমন্ত্রীর নয়। তবে বাংলাদেশে ১৯৯১ সাল থেকেই এ ধরনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়াই রীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ জন্য রাজনৈতিক বিশেস্নষকরা অনেক সময় বলেন যে, এ দেশে মন্ত্রিসভাশাসিত সরকার নেই। যা আছে তা হলো প্রধানমন্ত্রীশাসিত সরকার। তবে আলোচ্য ৰেত্রে বলা যায় যে, সিদ্ধান্তটি প্রধানমন্ত্রী এককভাবে গ্রহণ করেননি। এর জন্য বিভিন্ন উচ্চ পর্যায়ের যেসব কর্মকর্তারা প্রস্তাবটি পেশ করেছেন তাঁরাই সম্পূর্ণ বিষয়টি সীমিত জ্ঞানবুদ্ধির কারণেই করেছেন। এ বিষয়ে তাঁদের অধিকতর মনযোগী হওয়া বাঞ্ছনীয় ছিল।

সম্পূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়াই মূলত ঘোড়ার আগে গাড়িকে জুড়ে দেয়া যা বুদ্ধিহীনতারই পরিচয় বহন করে। প্রচলিত উন্নয়ন নীতির আওতায় যে কোন প্রকল্প গ্রহণের আগে কারিগরি ও আর্থিক বিষয় প্রাথমিকভাবে বিশেস্নষণ করা হয়। এ পদৰেপ হয় সম্ভাব্য যাচাই খাতে আরও গভীর বিশেস্নষণ করা হয়। এ পদৰেপকে বলা হয় প্রাক-সম্ভাব্য যাচাই। এর পরবর্তী পদৰেপ হয় সম্ভাব্য যাচাই খাতে আরও গভীর বিশেস্নষণ সনি্নবেশিত। এ নীতিতে এটাও বার বার বলা আছে যে, কোন প্রকল্প প্রণয়নে জনগণকে সম্পৃক্ত করা অর্থাৎ স্থানীয় জনগণের মতামত গ্রহণ করা। এ ৰেত্রে এসব কিছুই না করে সরাসরি স্থান নির্বাচন করা হয়েছে এবং স্থানীয় জনগণ প্রসত্মাব প্রত্যাখ্যান করেছে।
প্রশ্ন উঠেছে যে, ত্রিশালে অপেৰাকৃত কম জমির সংস্থান থাকা সত্ত্বেও উড়োহাজাজ চলাচল সহজ হবে না কারণ প্রদর্শন করে ত্রিশালের পরিবর্তে ভাঙ্গায় এবং এরপর আড়িয়াল বিলে স্থান নির্বাচন চূড়ানত্ম করা হয়। ত্রিশালের বিষয়ে যে যুক্তি প্রদর্শিত হয়েছে, বিশেষজ্ঞদের মতে তা গ্রহণযোগ্য নয়। মূল বিষয়টি হলো এ মুহূর্তে অথবা আগামী বিশ-পঁচিশ বছরে একটি বৃহৎ অবয়বের আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দরের আদৌ প্রয়োজন কিনা। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের প্রকাশিত মনত্মব্যে দেখা যায় যে, ২০২৫ সালের আগে এর কোন প্রয়োজনই নেই। বর্তমানে শাহ্জালাল আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দর প্রায় ৪০ লাখ যাত্রী পরিবহনের সুবিধা প্রদান করে। এ বন্দরটির যাত্রী আসা-যাওয়ার প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত সুবিধাদি সম্পন্ন করে এ সংখ্যা ৮০ লাখে উন্নীত করা সম্ভব। এর ফলে ব্যয়ও হবে প্রসত্মাবিত প্রকল্প ব্যয়ের এক-পঞ্চমাংশ। এ ছাড়া প্রশ্ন করা যায় যে সমসত্ম সুবিধাদি বর্তমানে বিদ্যমান তার সর্বোত্তম ব্যবহার হচ্ছে কিনা। এ প্রসঙ্গে দ্বিতীয় প্রশ্নটি হলো ২০২৫ সাল নাগাদ বিমান চলাচলসহ যাত্রীর সংখ্যা কত হবে।

উলেস্নখ্য যে, বর্তমানে আনত্মঃএশীয় রাজপথ ও রেলওয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থায়ও বাংলাদেশ সম্মতি প্রদান করেছে। ২০২৫ সালের মধ্যে এ ব্যবস্থা বাসত্মবায়িত হলে এর প্রভাব বিমান চলাচল ব্যবস্থায় কি হবে। এ বিষয়টিও অত্যনত্ম প্রাসঙ্গিক। এ তথ্যও বিশেস্নষণের দাবি রাখে। প্রসত্মাবিত প্রকল্পের বিষয় উন্নয়নের দৃষ্টিকোণ থেকে আরও যুক্তি প্রদর্শন করা সম্ভব। বিদ্যমান উন্নয়ন নীতি ও কৌশলে পরিবেশের সুরৰার জন্য জলাভূমি সংরৰণসহ জীববৈচিত্র্য সুরৰা এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠীর দারিদ্র্যবিমোচনের বিষয়ে গুরম্নত্ব প্রদান করা হয়েছে।

উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, দারিদ্র্যবিমোচন সংক্রানত্ম কৌশলপত্র বর্তমান সরকার সংশোধিত আকারে ২০০৯ সালে প্রকাশ করেছে। শিরোনামে বলা হয়েছে, দিন বদলের পদৰেপ (ঝঃবঢ়ং ঞড়ধিৎফং ঈযধহমব)। সরকারি এ প্রকাশনার উন্নয়নের লৰ্য ও কৌশলের বিষয়ে অন্যান্য ৰেত্রসহ স্পষ্টভাবে জলাভূমি সুরৰার বিষয়ে গুরম্নত্ব প্রদান করা হয়েছে। নীতি বদল সংক্রানত্ম পদৰেপ হিসেবে উলেস্নখ করা হয়েছে জলাভূমি ভূমিদসু্যদের আগ্রাসন থেকে রৰা করার জন্য পদৰেপ বাসত্মবায়িত হবে। এর ফলে জলাভূমির আয়তন বৃদ্ধিসহ ফসলী জমিও সুরৰিত হবে। এ প্রসঙ্গে একটি আইনও বিদ্যমান। যেসব নীতিনির্ধারকসহ কর্মকর্তা আড়িয়াল বিল উপযুক্ত স্থান হিসেবে নির্বাচন করেছেন। তাঁরা এ বিষয়ে কোন জ্ঞানই রাখেন না। এ সিদ্ধানত্মের ফলে জনগণ সরকারকে প্রচলিত আইন অমান্যকারী হিসেবেই চিহ্নিত করবে।

আড়িয়াল বিল বিট্রিশ আমল থেকেই এ দেশের অন্যতম গুরম্নত্বপূর্ণ বিল হিসেবে খ্যাত। ঢাকা কালেক্টরেটের ওই আমলে প্রশাসনিক দলিলপত্রে এক সময় ঢাকার জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে এ বিলের উন্নয়ন ও সুরৰার জন্য একটি প্রকল্পও প্রণয়ন করা হয়েছিল। ওই সময় বিলটি বিভিন্ন প্রকারের দেশী মাছ উৎপাদনের জন্যই এ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। ওই সব দলিলে আড়িয়াল বিলের সুস্বাদু কই মাছেরও উলেস্নখ রয়েছে। মুন্সীগঞ্জের প্রবীণ ব্যক্তিরা এখন বলেন, আড়িয়াল বিল এক সময় ছোট একটি সমুদ্রের অনুরূপ ছিল। ঢেউ ছিল প্রচুর। ছোট নৌকায় এ বিল পাড়ি দিয়ে নিজ বাড়িতে যেতে তারা ভয় পেতো।

একথা সত্য যে, এ বিলের ওই অবস্থা এখন নেই। তবে যেটুকু আছে এ প্রকল্পের ফলে তাও নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। ৩১ জানুয়ারির ধারাবাহিকতায় মামলা-মোকাদ্দমাও হয়। এর অংশ হিসেবে আসামি গ্রেফতারের অভিযানে আড়িয়াল বিল সংলগ্ন গ্রামবাসীদের ঘরে থাকা বিপজ্জনক হয়ে উঠে। তাদের অভিযোগ পুলিশী অত্যাচার। বুধবার বিমানবন্দর নির্মাণের পরিকল্পনা সরকারের পৰ থেকে বাতিল ঘোষণা করা হয়। তবে বিরোধীদলীয় নেত্রীর বিরুদ্ধে এ সংক্রান্ত ঘটনায় যে মামলা হয় তার প্রতিবাদে সোমবার (৭ ফেব্রম্নয়ারি) বিএনপি হরতালের ঘোষণা দিয়েছে। অর্থাৎ ঘটনার জের এখনও কাটেনি। তবে সরকারী সিদ্ধানত্ম সঠিক হয়েছে। এ সিদ্ধানত্ম প্রথমেই ঘোষণা করলে যে রক্তৰয়ী প্রতিবাদের চিত্র জনগণ দেখেছে, তা দেখতে হতো না। এ ঘটনা থেকে সরকারের জন্য শিৰণীয় বিষয় হচ্ছে ভবিষ্যতে প্রকল্প ঘোষণার মাধ্যমে নয়, সম্ভাব্যতা যাচাই করে করা শ্রেয় হবে। এ প্রক্রিয়ার জনমত যাচাইও হবে একটি গুরম্নত্বপূর্ণ অংশ।

ফেব্রুয়ারি ২০১১
লেখক : তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা।

[ad#bottom]

Leave a Reply