আড়িয়ল বিল রক্ষা আন্দোলন ভূমিদস্যুদের হামলা প্রতিরোধ করার পথ দেখিয়েছে

বদরুদ্দীন উমর
বাংলাদেশে এখন উন্নয়নের নামে কৃষক ও কৃষিজমির ওপর যেভাবে হামলা হচ্ছে এটা একাধিক কারণে এক ভয়াবহ ও বিপজ্জনক ব্যাপার। জনসংখ্যার তুলনায় এখানে কৃষিজমি খুব কম। মানুষের বসবাসের জন্য যে জমি লাগে তার পরিমাণ অনেক। জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বসবাসের জমির প্রয়োজন আরও বাড়ছে। এর চাপ এমনিতেই কৃষি জমির ওপর পড়ছে। তাছাড়া ক্রমবর্ধমান খাদ্য চাহিদা মেটানোর জন্যও জমির প্রয়োজন। এ অবস্থায় জমি এখন বাংলাদেশে এক মহামূল্যবান সম্পদে পরিণত হয়েছে।

১৯৭২ সাল থেকেই সংগঠিতভাবে লুটতরাজ অর্থসম্পদ অর্জনের এক উপায়ে পরিণত হয়েছে। যেহেতু সম্পদ হিসেবে জমির মূল্য ও গুরুত্ব ক্রমাগত বেড়ে এসেছে, সে কারণে এই সম্পদ লুণ্ঠনকারীদের হামলার বাইরে থাকার কথা নয়। কাজেই সম্পদ অর্জনের উপায় হিসেবে ভূমিদস্যুতা এখন বাংলাদেশে পুরো দমে চলছে। অল্প দিনের মধ্যে যে শত শত লোক বিশাল ধনসম্পদের মালিকে পরিণত হয়েছে, তাদের মধ্যে বিরাটসংখ্যক হলো ভূমিদস্যু। ভূমিদস্যুতা আজ বাংলাদেশে এমন পর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে, যেখানে সরকারি সহায়তায় শুধু জমিই নয়, লেক, খাল-বিল, নদী এমনকি সমুদ্র উপকূল পর্যন্ত ভূমিদস্যুদের দ্বারা দখল হচ্ছে।

সরকারের সহায়তায় ও সরকারের নাকের ডগায় বেসরকারিভাবে ভূমিদস্যুতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু তার থেকে উল্লেখযোগ্য ব্যাপার এই যে, খোদ সরকারই এখন পরিণত হয়েছে এক মহাবিপজ্জনক ভূমিদস্যুতে। উন্নয়নের নামে সরকার দেশজুড়ে জমি অধিগ্রহণ করছে। এমন সব প্রকল্পের নামে এই দমন কাজ চলছে, যার কোনো প্রকৃত প্রয়োজনই নেই। অহরহ এ ঘটনা ঘটছে। এমন এক ভূমিদস্যুতার ঘটনার কথা ‘আমার দেশ’-এ ৬-২-২০১১ তারিখে ছাপা হয়েছে। রাজশাহী সিটি করপোরেশন রাজশাহী শহরের মুশরইল মেহেরচণ্ডি মৌজার ১৩৬ একর জমি অধিগ্রহণ করে ৩৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি আবাসিক এলাকা গড়ে তোলার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এই পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৩৬ একর জমির ওপর তৈরি হবে এক হাজার তিনশ’ প্লট। এর জন্য যে জমি অধিগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে সে জমি হলো তিন ফসলি কৃষিজমি। এছাড়া তার মধ্যে আছে কৃষকদের ভিটেবাড়ি। স্বাভাবিকভাবে এর বিরুদ্ধে এলাকায় জনগণের মধ্যে দেখা দিয়েছে তীব্র প্রতিক্রিয়া।

৫ ফেব্রুয়ারি এই প্রকল্প বাতিল ও কৃষিজমি রক্ষার দাবিতে হাজার হাজার নারী-পুরুষ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। এই সমাবেশ থেকে আওয়াজ তোলা হয়েছে, ‘রক্ত দেব, তবু আমাদের কৃষিজমি অধিগ্রহণ করতে দেব না।’ এর আগে সকালের দিকে ওই এলাকার ভূমি রক্ষা কমিটির ব্যানারে এক সংবাদ সম্মেলন করা হয়। তার পরই এলাকার হাজার হাজার মানুষ সেখানে জড়ো হয়ে সমাবেশ করে। সংবাদ সম্মেলনে ভূমি রক্ষা কমিটির পক্ষ থেকে এক লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, এলাকার নব্বই শতাংশ অধিবাসী কৃষক। কৃষিই তাদের প্রধান জীবিকা। এখানকার মানুষের পৈতৃক জায়গা-জমি এক এক করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অধিগ্রহণের মাধ্যমে গ্রাস করছে। এর আগে হাউজিং এস্টেট এবং আরডিএ ভূমি অধিগ্রহণ করে পদ্মা, চন্দ্রিল, পারিজাত, মহানন্দা নামে আবাসিক প্রকল্পের জন্য কয়েক হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করে এখানকার কৃষখদের নিঃস্ব করে দিয়েছে। জমির উপযুক্ত মূল্যও তারা পায়নি। ওইসব জমি হারানোর শোক না কাটতেই সিটি করপোরেশন আবারও কৃষকদের বিশাল পরিমাণ জমি অধিগ্রহণের উদ্যোগ নিয়েছে। যে কোনো মূল্যে কৃষকের এই জমি রক্ষা করতেই হবে। ভূমিরক্ষা কমিটির আহ্বায়ক আসলাম উদ্দীন বলেন, ‘আমাদের বেঁচে থাকার জন্যই ভূমিরক্ষা করতে আন্দোলন-সংগ্রামে নেমেছি। যে কোনো মূল্যেই আমরা পৈতৃক ভূমি রক্ষা করব। মেয়র এই প্রকল্প বাতিল না করলে আড়িয়ল বিলের আন্দোলনের চেয়েও ভয়াবহ শিক্ষা নিতে হবে।’ উপস্থিত কৃষকদের মধ্যে অন্যরাও আড়িয়ল বিল রক্ষা আন্দোলনের উল্লেখ করে বলেন, ‘এখানকার এক বিন্দু জমিও আমরা ছাড়ব না। মুন্সীগঞ্জের মানুষ যেভাবে আড়িয়ল বিল রক্ষা করেছে, প্রয়োজনে তার চেয়ে বৃহত্ আন্দোলন গড়ে তুলে আমরা আমাদের কৃষি জমি রক্ষা করব।’

আড়িয়ল বিলে সরকারি হামলা থেকে নিজেদের জমি ও ভিটেবাড়ি রক্ষার আন্দোলন ও তার সাফল্য জনগণকে আত্মরক্ষার যে শিক্ষা দিয়েছে তা সামান্য নয়। এই শিক্ষার দ্বারা উদ্বুদ্ধ হয়েই রাজশাহীতে এখন জমি রক্ষার আন্দোলন হচ্ছে। এটা সেখানকার লোকজন বা কৃষকদের কথা থেকেই স্পষ্ট বোঝা যায়। এতদিন সরকার ও সরকারের সঙ্গে সম্পর্কিত লোকজন যেভাবে অবাধ ও বেপরোয়াভাবে নানা প্রকল্পের নামে কৃষকদের জমির ওপর হামলা করে এসেছে, এখন সেটা যে আর আগের মতো সম্ভব হবে না, এতে সন্দেহ নেই। আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের প্রকল্প থেকে সরকারকে বাধ্য হয়েই হাত গুটাতে হয়েছে। সরকার সেটা না করলে শুধু আড়িয়ল বিল এলাকার জনগণই যে আরও প্রবল ও প্রকটভাবে সরকারি পরিকল্পনার বিরোধিতা করতে দাঁড়াতেন তাই নয়, সারা দেশের জনগণ তাদের প্রতিরোধ আন্দোলনের সমর্থনে এগিয়ে আসতেন। এই বিপদ সুষ্ঠুভাবে দেখতে পাওয়ার কারণেই সরকার আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়।

এ প্রসঙ্গে এখানে বলা দরকার, প্রধানমন্ত্রীর পিতার নামে নতুন একটি বিশাল বিমানবন্দর নির্মাণ এবং এই নির্মাণ কাজ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা চুরি দুর্নীতির মাধ্যমে আত্মসাত্ করার সিদ্ধান্ত থেকে তারা সরে আসেনি। এ কারণে আড়িয়ল বিল থেকে হাত গুটাতে বাধ্য হলেও তারা এক নিঃশ্বাসে ঘোষণা করেছে, পদ্মার অপর পারে তারা বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করবে। এই ঘোষণাও এক তুঘলকি সিদ্ধান্ত ছাড়া অন্য কিছু নয়। যে বিশাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিকল্পনা তারা করেছে, তার স্থান নির্বাচন কি এতই সহজপ্রাপ্য যে, এক জায়গা থেকে হাত গুটিয়ে নেয়ার পর মুহূর্তেই অন্য একটি স্থান নির্বাচন করা চলে? কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ঠিক এ কাজই করেছেন। তার এই আচরণ দেখে মনে হয়, বাংলাদেশকে তিনি নিজের ও নিজের পরিবারের জমিদারি হিসেবে দেখেন। কাজেই যে কোনো জায়গায় মানুষের জায়গা-জমি ও ভিটেবাড়ির দখল তিনি তার খেয়ালখুশি মতো নিতে পারেন; কিন্তু আসলে এটা যে তিনি করতে পারেন না এবং বাংলাদেশ যে তাদের জমিদারি নয়, এটা আড়িয়ল বিল রক্ষা আন্দোলনের সাফল্যের মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে। তারা যদি মনে করে থাকেন, বিমানবন্দর পদ্মার অপর তীরে নির্মাণের জন্য স্থান নির্বাচন করে কৃষকদের থেকে কোনো প্রতিরোধের সম্মুখীন হবেন না, তাহলে সেটা যে কত বড় অবাস্তব চিন্তা তা নিজেদের বুদ্ধি-বিবেচনা দিয়ে না হোক, অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়েই তাদের বুঝতে হবে।

এ কথা বহুভাবে বহু মহলে ইতিমধ্যে আলোচিত হয়েছে, বর্তমান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটিই এখনো বেশ কিছুদিন প্রয়োজন মেটাতে পারে এবং এর সম্প্রসারণ করে ২৫-৩০ বছর পর্যন্ত চলতে পারে। কাজেই দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে নতুন বিমানবন্দরের কোনো প্রয়োজন নেই। কিন্তু প্রয়োজনের কারণে নয়, অন্য কারণে যখন নতুন বিমানবন্দরের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হচ্ছে, তখন বর্তমান বিমানবন্দর দিয়ে প্রয়োজন আরও অনেক দিন মেটানো যেতে পারে, এ কথার কোনো গুরত্ব ক্ষমতাসীন সরকারের কাছে নেই। কিন্তু তাদের কাছে এর গুরত্ব না থাকলেও দেশের জনগণ, বিশেষ করে কৃষকদের, যাদের জমি নিয়ে ছিনিমিনি করা হচ্ছে তাদের কাছে এ সিদ্ধান্তের গুরুত্ব অনেক। কাজেই বিমানবন্দর নির্মাণের চেষ্টা পদ্মার অপর পারে হোক অথবা অন্য কোনো জায়গাতেই হোক, কৃষক-জনগণ সেটা নিশ্চিতভাবেই প্রতিরোধ করবেন।

কিন্তু শুধু বিমানবন্দর নির্মাণের জন্যই নয়, বড় লোকদের জন্য এবং বিভিন্ন প্রকার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য, সরকারি-বেসরকারিভাবে যেসব আবাসন প্রকল্প এবং অন্যান্য প্রকল্প তৈরি করা হচ্ছে তার জন্য দেশব্যাপী কৃষিজমির ওপর হামলা চলছে। এই হামলা

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের মতো এলাকায় প্রতিরোধ করা হলেও অন্য অনেক জায়গাতে সেটা হয়নি। কিন্তু আগে না হলেও এখন থেকে তা হবে। আড়িয়ল বিল রক্ষা যেমন জনগণের সাফল্য—কৃষক জনগণকে এই প্রতিরোধের পথই বেশ স্পষ্টভাবে দেখিয়েছে। রাজশাহীর কৃষকদের জমি রক্ষা আন্দোলন এরই একটি দৃষ্টান্ত মাত্র।

[ad#bottom]

Leave a Reply