‘তার স্বাধিকার আগে ফিরে দিতে হবেঃ’

ড. মীজানূর রহমান শেলী
এসেছে গণতন্ত্র ও নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠার নতুন জোয়ার। এবার এই প্রাণবন্ত প্রবাহের লীলাভূমি উত্তর আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের আরব অধ্যুষিত দেশগুলো। অতি সম্প্র্রতি তিউনিসিয়ায় অভূতপূর্ব গণআন্দোলনের জোয়ারে ভেসে গেছে ওই দেশের স্বৈরশাসক জয়নাল আবেদীন বেন আলীর তেইশ বছরের দীর্ঘ লৌহশাসন। সাবেক রাষ্ট্রপতি বেন আলী এখন সৌদি আরবে নির্বাসিত।

তিউনিসিয়ার গণজাগরণের রেশ কমতে না কমতেই শুরু হয়েছে মিসরের গণবিস্ফোরণ। জনগণের ঐক্যবদ্ধ দাবি একটাই দীর্ঘ তিরিশ বছর ধরে চালু প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারকের একদলীয় স্বৈরশাসনের অবসান। কয়েক সপ্তাহ ধরে রাজধানী কায়রো, বন্দরনগরী আলেকজান্দ্রিয়া ও জনপদ সুয়েজসহ অন্যান্য শহরে চলছে মোবারকবিরোধী তীব্র আন্দোলন। হোসনি মোবারকের টিকে থাকার শেষ চেষ্টা ক্রমেই দুর্বল হয়ে উঠছে। তার প্রস্থান এখন শুধু মিসরীয় জনগণেরই নয়, পাশ্চাত্যসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের মানুষেরও কাম্য।

অনুরূপ একনায়কবিরোধী আন্দোলনের সূচনা হয়েছে ইয়েমেন ও সুদানে। অন্যদিকে রাজতন্ত্রশাসিত জর্ডানেও একই ধরনের আন্দোলনের শুরুতেই বাদশাহ আগের সরকার বরখাস্ত করে নতুন সংস্কারধর্মী সরকার গঠন করেছেন। অন্যান্য আরব দেশ, যেখানে রাজতন্ত্র বা একনায়কতন্ত্র বহুদিন ধরে স্বৈরতন্ত্রী শাসন চলে আসছে, সেখানেও নানা আশংকায় উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠিত সংশ্লিষ্ট সরকারগুলো। তারা বিভিন্ন আয়োজন, উদ্যোগ ও ব্যবস্থা নিচ্ছে, যাতে করে গণতন্ত্র ও স্বাধিকার প্রতিষ্ঠাকামী জনগণ তাদের বিরুদ্ধে প্রবল আন্দোলন গড়ে না তোলেন।

এখানে মনে রাখা প্রয়োজন, উত্তর আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের এ চলমান গণঅভ্যুত্থানের কারণ শুধু আদর্শগত নয়। গণতন্ত্র ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা সবারই অভিপ্রেত। কিন্তু মানুষের প্রাথমিক ও সবচেয়ে প্রয়োজনীয় যে অধিকার তা হচ্ছে ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও বেকারত্ব থেকে মুক্ত থাকার অধিকার। মূলত এই অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্যই তিউনিসিয়া, মিসরসহ অন্যান্য আরব অধ্যুষিত মুসলিম প্রধান স্বৈরতন্ত্র শাসিত দেশে জনগণ রুখে দাঁড়িয়েছে। তিউনিসিয়ার আন্দোলনের অগ্রমুখে সক্রিয় থাকে বেকারত্বের অভিশাপে জর্জরিত, আয়-উপার্জনহীন তরুণরা, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি যাদের পরিবার-পরিজনের জীবনযাত্রা কণ্টকিত ও দুরূহ করে তোলে। বিশাল দরিদ্র জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত মিসরেও দেখা যায় একই চিত্র।

আসলে সামরিক বাহিনী সমর্থিত একনায়কবাদী ব্যবস্থা যতই সক্ষমতা ও প্রশাসনিক দক্ষতার বড়াই করুক না কেন, অনেক ক্ষেত্রেই তাদের সীমাবদ্ধতা ও অক্ষমতা জনজীবনের মূল অর্থনৈতিক সমস্যাগুলো মেটাতে পারে না। দারিদ্র্য কমে না, বরং বেড়েই চলে। স্বৈরশাসক ও তার পেটোয়া চক্র, মোসাহেব-চাটুকার ও দলীয় কর্মীদের ভাগ্য কিছুটা উন্নত হয়। অনেকে বনে যান আঙুল ফুলে কলাগাছ। কিন্তু সাধারণ মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটে না, দারিদ্র্য দূর হয় না, বেকারত্ব ক্রমেই বেড়ে চলে।

এ পরিস্থিতিতে এমনকি গণতন্ত্রও অসহ্য মনে হয়। আর স্বৈরতন্ত্র বা একনায়কের শাসন তো আরও দুঃসহ। গণতন্ত্রে, সত্যিকারের গণতন্ত্রে জনগণ তবু তাদের দুর্দশা ও দুর্ভোগের কথা প্রকাশ করতে পারে, এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে পারে, এর প্রতিকারের জন্য বলিষ্ঠ ও কার্যকর দাবি রাখতে পারে। স্বৈরশাসনের আওতায় এটুকুও সম্ভব হয় না। একদিকে ক্ষুধা ও অপুষ্টির জ্বালা, স্বাস্থ্যসেবা ও শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হওয়ার যন্ত্রণা, অন্যদিকে বাক ও ব্যক্তি স্বাধীনতা রুদ্ধ অবস্থায় থাকার অভিশাপ জনজীবনকে নারকীয় নিষ্পেষণে জর্জরিত করে। সন্দেহ নেই, এ অবস্থা খুব বেশিদিন চলতে পারে না। সেটাই প্রমাণিত হয়েছে জাগৃতির তিউনিসিয়া, মিসর, ইয়েমেনসহ অন্যান্য আরব দেশে।

এসব ক্ষেত্রে শেষ পরিণতি কি হবে আমাদের জানা নেই। স্বৈরশাসন থেকে গণতন্ত্রে উৎক্রান্তি কি মসৃণ পথ বেয়ে আসবে, নাকি আরও বাধাবন্ধ এ প্রক্রিয়াকে কণ্টকিত করবে? যে গণতন্ত্র এ আন্দোলনের ফসল হিসেবে আসবে, তা কি পূর্ণ গণমুখী জনকল্যাণকর ব্যবস্থার রূপ নেবে? নাকি গণতন্ত্রের নামে কুশলী কোন নতুন মতলববাজ চক্র গণতন্ত্রের লেবাসে ব্যক্তিকেন্দ্রিক দলীয় শাসন প্রবর্তন করে জনগণের কষ্ট বাড়াবে বৈ কমাবে না? অন্যদিকে মুসলিম প্রধান ওই সব দেশে পাশ্চাত্য শিক্ষিত, ধর্মনিরপেক্ষ শাসক শ্রেণীর অক্ষমতা, লোভ ও সংকীর্ণতার সুযোগ নিয়ে ধর্মীয় মৌলবাদী উগ্র কোন নেতৃত্ব ক্ষমতার মঞ্চ দখল করে নেবে? একমাত্র ভবিষ্যৎই এসব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে।

তবে যে কথাটি এখানে মনে রাখা দরকার তা হচ্ছে, নানা দুর্বলতা ও ত্র“টি সত্ত্বেও গণতন্ত্রের চেয়ে অভিপ্রেত ও কার্যকর অন্য কোন ব্যবস্থা এখন পর্যন্ত সৃষ্টি হয়নি। সাধারণ মানুষের কল্যাণে স্বতঃস্ফূর্ত হয়ে ব্রতী হন কমসংখ্যক শাসকই। শাসন ক্ষমতা শক্তিধর নেতা-নেত্রীকে মোহাচ্ছন্ন করে, অসতর্ক হলে প’রে তাদের জনবিচ্ছিন্ন করে ফেলে। স্বৈরশাসনে অথবা স্বৈরধর্মী গণতান্ত্রিক শাসনে তাদের পক্ষে মানুষের দুঃখ-অভাবের কথা, সমস্যা ও সংকটের কথা সহজে বোঝা সম্ভব হয় না। অসন্তোষ পুঞ্জীভূত হয় মানুষের মনে। মনেই ঘটে সরকারের জয় অথবা ক্ষয়। অদক্ষ, অদূরদর্শী, স্বার্থাচ্ছন্ন সরকারি নেতৃত্বের পক্ষে ওই মনোরাজ্যের খবর রাখা সম্ভব হয় না। তাদের অনেকেই ভুলে যান,

‘দিনে দিনে বহু বাড়িয়াছে দেনা
শুধিতে হইবে ঋণ’।

কিন্তু শেষতক ঋণ শোধ করতেই হয়। যেমন হচ্ছে তিউনিসিয়া বা মিসরের স্বৈরশাসকদের।
গণতন্ত্রের ধারাটি অব্যাহত থাকলে জনতার কাছে ঋণ চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়তে পারে না। স্বাধিকার, বাকস্বাধীনতা ও বিক্ষোভের স্বাধীনতা থাকায় এই কাঠামোতে জনগণ তাদের অভাব-অভিযোগ, দুর্দশা-দুর্ভোগের কথা স্পষ্টভাবে শাসকদের কাছে পৌঁছে দিতে পারে, প্রতিকারের দাবি করতে পারে। প্রতিকার না পেলে চরম ক্ষেত্রে আন্দোলনের মাধ্যমে কুশাসনের অবসান ঘটাতে পারেন। অন্ততপক্ষে নির্বাচনে তাদের বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে ক্ষমতা থেকে নির্বাসনে পাঠাতে পারেন।

উন্নয়নশীল বিশ্বের দেশগুলোতে গণতন্ত্র অনেক ক্ষেত্রেই পরিপূর্ণ রূপ পায় না। অথচ পূর্ণাঙ্গ না হলে গণতন্ত্র কার্যকর হতে পারে না। সম্প্রতি পশ্চিমা এক সাংবাদিক-ভাষ্যকার যথার্থই বলেছেন, ‘গণতন্ত্র কৌমার্য্যরে মতো, এর পক্ষে সীমিতভাবে অস্তিত্ববান হওয়া সম্ভব নয়’। ব্যক্তিকেন্দ্রিক নেতৃত্বের প্রবল প্রতাপ ও দলীয় আগ্রাসনের বিপুল চাপ গণতন্ত্রকে সীমাবদ্ধ করলে, তা আর গণতন্ত্র থাকে না। এ অবস্থায় গণতন্ত্রের ছদ্মবেশে স্বৈরধর্মী শাসন চালু হয়। ব্যক্তি নেতৃত্বের প্রবল প্রতাপে প্রশাসন ও দল পরিণত হয় আজ্ঞাবাহী ভৃত্যে। চাটুকার ও মোসাহেবের দল অন্যায়-অবিচারের কথা না বলে স্তোক বাক্য ও স্তব-স্তোত্রের মাধ্যমে ক্ষমতাধর নেতাদের কাছ থেকে সুযোগ-সুবিধা আদায় করে নেয়। পরিণতিতে শীর্ষ নেতারা বাস্তব অবস্থা ঠিকভাবে বুঝতে পারেন না। ফলে জনগণ অভাব-অনটনে, বিশৃংখলা-অশান্তিতে দুঃসহ জীবনযাপন করতে বাধ্য হয়। এ অবস্থায় অসন্তোষ ধূমায়িত হতে থাকে। পুঞ্জীভূত গণরোষ শুকনো বারুদের মতো একটি স্ফুলিঙ্গের প্রতীক্ষায় থাকে। তখনই আসে গণবিস্ফোরণ এবং সেখানে যদি সঠিক ও সক্ষম নেতৃত্ব না থাকে, তাহলে আসে চরম বিশৃংখলা ও নৈরাজ্য। ধ্বংস হয় জনপদ, নির্বাসিত হয় শান্তি ও স্থিতিশীলতা। শোনা যায় ‘গ্রাম পতনের শব্দ’। সহিংস হানাহানির ফলে যারা বেঁচে থাকেন, তারা পরিণত হন ‘গ্রাম উজাড়ের সাক্ষীতে’।

অপূর্ণ, অনিশ্চিত গণতন্ত্রের দেশে দেশে নেতাদের মনে রাখতে হবে, ক্ষুধা ও দারিদ্র্য, অভাব ও বেকারত্ব থেকে মুক্তির অধিকার মানুষের মূল স্বাধিকার। এই অধিকার প্রতিষ্ঠার বিকল্প নেই। ক্ষমতাসীন নেতা ও গোষ্ঠী মনে রাখলে ভালো করবেন :

‘তার স্বাধিকার আগে ফিরে দিতে হবে
নতুবা নগর তথা প্রান্তর ভরে রবে বাসি শবে’।

ড. মীজানূর রহমান শেলী : চিন্তাবিদ, সমাজবিজ্ঞানী ও সাহিত্যিক

[ad#bottom]

Leave a Reply