মোল্লাকান্দিতে আ.লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত অর্ধশত

এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাকান্দিতে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছে। এ সময় একটি শটগানসহ আলমগীর শিকদার (৩০) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

আহতদের মধ্যে ৮ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তারা হলেন- অলিউল্লাহ (৩৮), শরীফ মীর (৩৫), রুবেল (১৮), বাবু (২৩), নুরুল ইসলাম (৫০), খবির (৪৮), হারুন (৩৫) ও কালা (৩৭)। বাকিদের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

সদর থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শাহ আলম মল্লিক এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোস্তফা মোল্লার সমর্থকদের মধ্যে শনিবার দুপুরে এই সংঘর্ষ হয়। এ সময় ককটেল ও গুলির শব্দ পাওয়া যায়।

ওসি বলেন, “আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বেশ কিছুদিন ধরেই এ দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।”

তিনি জানান, সংঘর্ষের সময় আলমগীর নামের একজনকে একটি শটগানসহ আটক করেছে পুলিশ।

শাহ আলম মল্লিক এ ঘটনার জন্য মোস্তফা মোল্লা ও তার সমর্থকদের দায়ী করেছেন। অন্যদিকে মোস্তফা মোল্লাও এই সংঘর্ষের জন্য দায়ী করেছেন অন্যপক্ষকে।

বিডি নিউজ 24
————————————-

মুন্সীগঞ্জে আ’লীগের দুই গ্র“পে ফের গোলাগুলি বোমাবাজি, গুলিবিদ্ধসহ আহত অর্ধশতাধিক

শর্টগান, ২ রাউন্ড কার্তুজ ও ৭টি ককটেল উদ্ধার

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে:
মুন্সীগঞ্জের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের কংসিপুরা, আমঘাটা রাজারচর, পূর্ব মাকাহাটি ও মধ্য মাকহাটি গ্রামে গতকাল শনিবার আবারো আ’লীগের দুই গ্র“পের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ ৬ জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ও মহিলাসহ ১১ জনকে ঢাকা এবং নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহতদের গোপনে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তারা সকলেই গুলি ও বোমার আঘাতে আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এদিকে সংঘর্ষের খবর পেয়ে মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে পর্যাপ্ত পরিমাণ অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তারা দুপুর থেকে ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে গ্রেপ্তার ও অস্ত্র উদ্ধার অভিযান শুরু করলে পূর্ব মাকহাটি গ্রামে ওসি মজিবর, এসআই মিজানসহ পুলিশ সদস্যদের ওপর গুলি ও ককটেল বোমা নিক্ষেপ করে সন্ত্রাসীরা। এ সময় জীবনবাজি রেখে পুলিশ একটি শর্টগান ও ২ রাউন্ড কার্তুজসহ আলমগীর নামের এক আ’লীগ কর্মীকে গ্রেপ্তার করে। এছাড়া আশুরান গ্রামে অভিযান চালিয়ে পুলিশ পরিত্যক্ত ৭টি তাজা ককটেল বোমা উদ্ধার করে। গ্রেপ্তার ও অস্ত্র উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ঘটনাস্থলে মুন্সীগঞ্জের এসপি, এডিশনাল এসপি, এএসপি সার্কেলসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অভিযানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলে সূত্র জানিয়েছে। এ ঘটনার জন্য পুলিশ জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি শাহআলম মল্লিক গ্র“পকে দায়ী করেছে। অপরদিকে এ ঘটনায় অস্ত্র ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে পৃথক ২টি মামলা করবে বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে।

সদর থানার ওসি (তদন্ত) মজিবর রহমান জানান, তাদের লক্ষ্য করে গুলি ও বোমা নিক্ষেপ করার পর শর্টগান ও ২ রাউন্ড কার্তুজসহ আলমগীর নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ জানায়, শুক্রবারের সংঘর্ষের জের ধরে গতকাল পাশের আধারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা রহমত আলী মোল্লার লোকজন এবং জেলা আ’লীগের সহসভাপতি শাহআলম মল্লিকের লোকজন চারদিক থেকে প্রতিপক্ষ সদর উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি মোস্তাফা মোল্লা গ্র“পের ওপর অতর্কিতে গুলি ও ককটেল বোমার হামলা চালালে সংঘর্ষ বেধে যায়। পরে বিভিন্ন গ্রামে এ সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় উভয় গ্র“পই ব্যাপক গোলাগুলি ও ককটেল বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। পুলিশ আরো জানায়, সংঘর্ষ চলাকালে উভয় গ্র“পই অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে। এছাড়া কয়েক শতাধিক ককটেল বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়।

গ্রামবাসী জানায়, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ৪ ঘণ্টাব্যাপী এই সংঘর্ষে উভয় গ্র“প ব্যাপক গোলাগুলি ও কয়েক শতাধিক ককটেল বোমার বিস্ফোরণ ঘটালে গ্রামগুলো রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এ সময় বিভিন্ন গ্রামে আতঙ্ক দেখা দিলেও মহিলা ও শিশুরা বাড়িঘরে আটকা পড়ে। মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি এখন শান্ত। এ পর্যন্ত ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইউপি নির্বাচন ও আধিপত্য নিয়ে শুক্রবারর আ’লীগের দুই গ্র“পের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ২০ জন আহত হওয়ার জের ধরেশনিবার ফের সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

আমাদের সময়
———————————–

[ad#bottom]

Leave a Reply