বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১১

ফারুক আহমেদ
এত বড় উৎসব বাংলাদেশে এই প্রথম। বাংলাদেশিদের জন্য এমন মাহেন্দ্রক্ষণ আসেনি আগে কখনো। বিশ্বকাপ খেলা এই সেদিনও ছিল স্বপ্ন, সেটা সত্য হওয়ার পর এখন আমরা বিশ্বকাপের আয়োজক। আর আগামী দেড় মাস বাংলাদেশের মানুষের মন বিশ্বকাপের রঙে রাঙাতে তৈরি আমরা। এই বিশেষ সংখ্যা বিপুল-বিশাল-বর্ণাঢ্য আয়োজনের যাত্রারম্ভের ঘোষণা।

বিশ্বকাপের বিশেষ সংখ্যা মানেই অবধারিত প্রধান রচনা ‘কে জিতবে বিশ্বকাপ’। সেখানে অনেক গবেষণা থাকে এবং শেষ পর্যন্ত অমুক না হলে তমুক কিংবা অমুক বলে ছেড়ে দেওয়া হয়। আমরা সেই ধরনটায় একটু বদল এনে সরাসরিই কিছু নাম বলে দিচ্ছি। দেখুন তো মেলে কি না! এর চেয়েও বেশি করে দেখুন আমাদের কল্পিত বাংলাদেশের গন্তব্যের সঙ্গে আপনি কতটা একমত! এই যুক্তি আর শক্তিনির্ভর ভবিষ্যদ্বাণীগুলো করেছেন বাংলাদেশের পাঁচ সাবেক অধিনায়ক, যাঁরা পুরো বিশ্বকাপের সময়টাতে থাকবেন কালের কণ্ঠের সঙ্গে।
আমাদের বিপুল বিশ্বকাপ আয়োজনে সঙ্গী হওয়ার আমন্ত্রণ। এবং সঙ্গে প্রতিশ্রুতি। ঠকবেন না।

চ্যাম্পিয়ন
ভারত
রানার্স আপ
দক্ষিণ আফ্রিকা
বাংলাদেশ
কোয়ার্টার ফাইনাল
ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্ট
জ্যাক ক্যালিস

চুলচেরা বিশ্লেষণ করতে বসে দেখছি ভারত আর দক্ষিণ আফ্রিকারই ফাইনাল খেলার সম্ভাবনাটা সবচেয়ে বেশি। অবশ্য গ্রুপ পর্বেই দল দুটোর দেখা হয়ে যাচ্ছে। বিশ্বকাপের আগে পারফরম্যান্স দিয়ে মানসিকভাবে দুই দলই ভীষণ চাঙ্গা আছে। আশা করি মূল আসরেও এর প্রতিফলন দেখা যাবে। এদের মধ্যে শিরোপা সম্ভাবনার নিক্তিতে ভারতকে এগিয়ে রাখার কারণ, ওদের সামপ্রতিক পারফরম্যান্স ঈর্ষণীয়। সেই সঙ্গে এটাও মাথায় রাখতে হবে যে খেলাটা হচ্ছে এই ভারতীয় উপমহাদেশেই। আর ওদের ব্যাটিং লাইন খুবসম্ভব বিশ্বের সেরা। ভারতের ব্যাটিং গভীরতা এতই বেশি যে ইউসুফ পাঠানের মতো ব্যাটসম্যানকে নামতে হয় সাত নম্বরে। যে দলের ছয়-সাত নম্বর ব্যাটসম্যানও একাই দলকে জিতিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে, তাদের পক্ষে বাজি ধরা যায় নিশ্চিন্তেই।

ওদের বোলিংটা যদিও একটু দুর্বল, তবুও এতটাই শক্তিশালী ব্যাটিং যে এর সঙ্গে ভারতীয় উপমহাদেশের চেনা কন্ডিশন মেলালে ভারতকে ফেভারিট না ভাবার সাধ্য কার! হরভজনের সঙ্গে শেবাগ ও ইউসুফের অফস্পিনও কার্যকর হয়ে উঠতে পারে। দক্ষিণ আফ্রিকা যেহেতু ফাইনালে খেলবে, কাজেই টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার দৌড়ে জ্যাক ক্যালিসই এগিয়ে থাকবে। এ মুহূর্তে দুর্দান্ত ফর্মে আছে। ব্যাটিং ও বোলিং, দুই দিক থেকেই। দক্ষিণ আফ্রিকা দলের ক্ষেত্রে একটা কথা না বললেই নয়। ‘চোকার্স’ নামে ওদের যে অপবাদটা আছে, গত তিন বছরে আমার মনে হয় ওরা কিছুটা হলেও তা কাটিয়ে উঠতে পেরেছে। গত কিছুদিনে ওদের বেশ কিছু ম্যাচ জিততে দেখেছি, যেগুলোয় জটিল পরিস্থিতি থেকে ওরা ফল বের করে এনেছে। আর বিশ্বকাপের মতো আসরে চ্যাম্পিয়ন রানার্স আপ হতে হলে কোনো দলের সাফল্যের ঐতিহ্য থাকা লাগে। সে ঐতিহ্যটা দক্ষিণ আফ্রিকার আছে। ১৯৯৮ সালে ঢাকায় মিনি বিশ্বকাপ জিতেছিল। এ ছাড়া বর্ণবাদের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পর ওরা তিনবার বিশ্বকাপের সেমিফাইনালও খেলেছে।

বাংলাদেশের সম্ভাবনার কথা বলতে গিয়ে একটা ব্যাপার মাথায় এসে গেল। যে বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো করে, সে বিশ্বকাপটা বাংলাদেশের জন্য ভালো যায়। উদাহরণ ১৯৯৯ ও ২০০৭ সালের বিশ্বকাপ। ২০০৩-এ সে রকম না হওয়ায় বিশ্বকাপটাও খারাপ গেছে। তবে এবার বাংলাদেশের খুব ভালো সম্ভাবনা আছে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার। গ্রুপের তিন কিংবা চার নম্বর দল হিসেবে উঠলে অন্য গ্রুপের এক কিংবা দুইয়ের সঙ্গে খেলা পড়বে। সে ক্ষেত্রে আরেকটু অগ্রসর হওয়া একটু কঠিনই হবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply