বিজয় দিবসের আয়োজন

রাহমান মনি
গত ৫ ডিসেম্বর রোববার বাংলাদেশ সাংবাদিক লেখক ফোরাম জাপান বিজয় দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা, ছবি প্রদর্শন ও সাহিত্য আসরের আয়োজন করেছিল টোকিওর আকাবান কিতাকুমিন সেন্টারে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বনামধন্য চলচ্চিত্র নির্মাতা তানভীর মোকাম্মেল এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক, শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা মনজুরুল হক। পরিচালনা করেন ছড়াকার বদরুল বোরহান।

অনুষ্ঠানটিকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়। প্রথম পর্বে আলোচনা সভা ও সাহিত্য আসর, দ্বিতীয় পর্বে ছবি প্রদর্শন এবং সবশেষে তৃতীয় পর্বে চলচ্চিত্র নির্মাতা তানভীর মোকাম্মেল দর্শকদের প্রশ্নোত্তর পর্ব।

আলোচনায় অংশ নেন বিশিষ্ট লেখক প্রবীর বিকাশ সরকার, পরবাস সম্পাদক কাজী ইনসানুল হক, দশদিক সম্পাদক সানাউল হক, সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধি রাহমান মনি, ফোরাম সাধারণ সম্পাদক ওয়াদুদ আহমেদ, জাপান বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মীর রেজাউল করিম রেজা, মৌ হোসেন, তসলিম উদ্দিন, বাকের মাহমুদ, মনজুরুল হক, তানভীর আহমেদ, সজল বড়–য়া প্রমুখ।

স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন। নাজিম উদ্দিন, গোলাম মাছুম জিকু এবং আবৃত্তি করেন এমএস শাহীন। আলোচকগণ বিজয় দিবসের এ মহতী আয়োজনের জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ডিসেম্বর মাস আমাদের বিজয়ের মাস। এ বিজয় ছিনিয়ে আনতে আমাদের ভাইয়েরা অকাতরে প্রাণ দিয়েছে। আমাদের বোনদের সম্ভ্রমের বিনিময়ে এ বিজয়। এ বিজয়কে সত্যিকার অর্থে অর্থবহ করতে হলো আমাদের একসঙ্গে কাজ করতে হবে। দুর্ভাগ্যের বিষয়, বিজয়ের ৩৯ বছর হলে আজও রাজনৈতিক কারণে জনগণ দুইটি ভাগে ভাগ হয়ে গেছে, যেটা কারো কাম্য ছিল না। ১৯৭১ সালে কতিপয় দুষ্কৃতকারী রাজাকার বাদে সবাই নিজ নিজ অবস্থানে থেকে প্রত্যেক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল। তারা আরো বলেন আর বিভেদ নয় সবাই একযোগে কাজ করে বিজয় দিবসকে অর্থবহ করে তুলতে হবে। মনে রাখতে হবে আমাদের পরিচয় আমরা বাংলাদেশি। বাংলাদেশের সুনাম বৃদ্ধিতে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে বাংলাদেশ কি প্রবাসে।

দ্বিতীয় পর্বে বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা, জাপান সফররত তানভীর মোকাম্মেলের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ডকুমেন্টারি ১৯৭১-এর বিশেষ বিশেষ অংশ প্রদর্শন হয়। ছবিটি তখনো নির্মাণাধীন থাকায় বাংলাদেশের কোথাও প্রদর্শিত হয়নি বিধায় জাপান প্রবাসীরা প্রথম দেখার সৌভাগ্য অর্জন করল। হলভর্তি দর্শক গভীর মনোযোগ সহকারে ছবিটি দেখেন এবং বর্ণনা শুনে পাকহানাদার বাহিনী এবং এ দেশীয় তাদের দোসরদের ধিক্কার জানান।

সবশেষে নির্মাতা তানভীর মোকাম্মেল উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন যা আরেকজনকে প্রাণবন্ত করে তোলে। তানভীর মোকাম্মেল জানান আমাদের যুদ্ধে ৯ মাস ধরে গণহত্যা হয়েছে অথচ কোথাও তার কথা উল্লেখ নেই। এ বেদনা থেকেই আমি ছবিটি বানানোর চেষ্টা করেছি। দীর্ঘ চার বছর গবেষণা এবং সময় নিয়ে ছবিটি বানাচ্ছি। অনুষ্ঠান আয়োজনে মিডিয়া পার্টনার ছিল সাপ্তাহিক পাঠক ফোরাম জাপান।

এছাড়াও ৩৯তম মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস, বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন পৃথকভাবে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

১৬ ডিসেম্বর দূতাবাস ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দূতাবাস আয়োজিত কর্মসূচির সূচনা হয়। বিশেষ মোনাজাত, বাণী পাঠ, আলোচনা অনুষ্ঠান এবং সব শেষে আপ্যায়নের মাধ্যমে শেষ হয়। যথারীতি এবারও সকালের পতাকা উত্তোলনে প্রবাসীদের মধ্যে একমাত্র সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধি ছাড়া আর কারো টিকিট দেখা না গেলেও বিকেলের অনুষ্ঠানে প্রবাসী, নেতা, পাতি নেতা, শিরা-উপশিরা নেতাদের উপস্থিতির কমতি ছিল না।

১৯ ডিসেম্বর রোববার আকাবানে বিভিও হলে জাপানে গ্রেটার নোয়াখালী সোসাইটি এক আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং নৈশভোজের আয়োজন করে।

৩০ জানুয়ারি ২০১১ জাপানে গ্রেটার ময়মনসিংহ সোসাইটির আকাবানে বিভিও হলে এক আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টোকিওতে বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত একেএম মজিবুর রহমান ভুঁইয়া। উপস্থিত শিশু-কিশোরদের নিয়ে নাচ-গান, আবৃত্তি ছিল বিশেষ আকর্ষণ। এছাড়াও প্রবাসী সাংস্কৃতিক গ্রুপ উত্তরণ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে।

টোকিও ছাড়াও অন্য শহরেও যথাযোগ্য মর্যাদা ও আনন্দ-উল্লাস নিয়ে বিজয়ের ৩৯তম দিবসটি উদযাপন করে প্রবাসীরা। যেসব শহরে প্রবাসীদের অবস্থান ভালো সেখানে ভালোভাবে জাঁকজমকপূর্ণ এবং যেখানে প্রবাসীদের সংখ্যা কম সেখানে ঘরোয়াভাবে দিবসটিকে উদযাপন করা হয়। নাগোয়া, ওসাকা, কিয়োতো, মাপ্পোরো বিজয় দিবস উদযাপনের খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া সাইতামা, কানা গাওয়া, চিবা, তোচিগি, ইবারাকী, গনমা প্রভৃতি শহরগুলো টোকিওর আশপাশে হওয়াতে সেখানকার প্রবাসীরা সাধারণত টোকিও প্রবাসীদের সঙ্গে একত্রিত হয়ে বাংলাদেশের জাতীয় দিবসগুলো উদযাপন করে থাকে।

rahmanmoni@kym.biglobe.ne.jp

[ad#bottom]

Leave a Reply