আলু রফতানিতে ২০ শতাংশ সহায়তা চাওয়া হয়েছে

কৃষকের ক্ষেতে আলুর দাম মাত্র দু’টাকা কেজি
কৃষক মূল্য না পেলেও আলু রফতানির জন্য ২০ শতাংশ নগদ সহায়তা চাওয়া হয়েছে। সম্প্রতি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে এ সহায়তা চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে চিঠি দিয়েছে। হিমাগার মালিকদের দাবির প্রেৰিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। মাঠে এক কেজি আলুর মূল্য মাত্র আড়াই টাকা। লোকসানের কারণে জমি থেকে অনেক কৃষক আলু তুলছে না। পৃথিবীর সব দেশের তুলনায় বাংলাদেশে আলুর দাম সবচেয়ে কম। বিশেষজ্ঞদের মতে, আলু রফতানি করতে গেলে এখন বাংলাদেশকে প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে হবে না। অন্য দেশের তুলনায় কম দাম থাকায় রফতানির সুযোগ সৃষ্টি হবে।

এ দিকে হিমাগার মালিকরা সম্প্রতি বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলু রফতানি নিয়ে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে তারা সারা বছর আলু রফতানির ওপর নগদ ২০ শতাংশ সহায়তা দাবি করেন। এ সহায়তা চাওয়ার পিছনে বিভিন্ন যুক্তি তুলে ধরা হয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সূত্রে জানা গেছে, গত সপ্তাহে আলু রফতানির ওপর নগদ সহায়তা চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন পাওয়ার পর তা কার্যকর হবে।

এ দিকে আলু রফতানির ওপর নগদ সহায়তার ব্যাপারে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা জানান, এটির কোন প্রয়োজন নেই। নগদ সহায়তা দেয়া হয় যখন আনত্মর্জাতিক বাজারে মূল্য প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না। একই পণ্য অন্য দেশে কম আমাদের দাম বেশি। কিন্তু আলুর মূল্য সবচেয়ে কম। নগদ সহায়তা ছাড়া ব্যবসায়ীরা ইচ্ছে করলে এ মূল্য দিয়ে বিদেশের বাজারে প্রবেশ করতে পারবে। এ ছাড়া অন্যান্য দেশের তুলনায় দাম কম। ফলে নগদ সহায়তা দেয়া ঠিক হবে না।

এ দিকে ব্যবসায়ীরা আলু রফতানি করে নগদ সহায়তা পেলেও কৃষক আলুর মূল্য পাচ্ছে না। জমিতে আলুর দাম অনেক কম। জমিতে এক কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে মাত্র আড়াই টাকা। আলু খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে আট টাকা।
মুন্সিগঞ্জের আলু বেপাারী নাসির হোসেন জনকণ্ঠকে জানান, সারের মূল্য কম থাকায় এবং অগ্রাহায়ণে বৃষ্টির কারণে এ বছর ফসল ভাল হয়েছে। চাহিদার তুলনায় বেশি আলু উৎপাদন হয়েছে। ফলে এ বছর অনেক কৃষক আলু উৎপাদন করে দাম না পেয়ে লোকসান গুনছে।

জানা গেছে এ বছর আলু রফতানির লৰ্যমাত্রা হচ্ছে ৮৪ লাখ মেট্রিক টন। এ লৰ্যমাত্রার বিপরীতে উৎপাদন হচ্ছে এক কোটি মেট্রিক টন। অতিরিক্ত আলু রফতানির জন্য ব্যবসায়ীদের প্রতি আহবান জানানো হয়।

এ দিকে অতিরিক্ত আলু উৎপাদনের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানানো হয়েছে। সম্প্রতি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে এ বিষয় জানিয়ে হিমাগারে নিরবচ্ছিন্ন বিদু্যত সরবরাহের কথা বলা হয়।

ব্যবসায়ীদের পৰ থেকে জানানো হয়, এ বছর নতুন করে ১০ লাখ মেট্রিক টন আলু সংরৰণের ৰমতা বেড়েছে।
রফতানি উন্নয়ন বু্যরোর সূত্রে জানা গেছে, ইতোপূর্বে বিচ্ছিন্নভাবে ইতালি, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, মধ্যপ্রাচ্য, শ্রীলঙ্কা, কুয়েত, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, ভিয়েতনাম, বাহরাইন, মিয়ানমার ও রাশিয়ায় আলু রফতানি করা হয়েছে। ২০১০-১১ অর্থ বছরে আলু রফতানি করা হয় ১৬ লাখ মার্কিন ডলার, ২০০৯-১০ অর্থ বছওে আলু রফতানি করা হয়েছে ৩৪ লাখ ডলার। ২০০৮-০৯ অর্থ বছরে ৭০ হাজার ডলার, ২০০৭-০৮ অর্থ বছরে ১৬ লাখ ডলার, ২০০৬-০৭ অর্থ বছরে ২৭ লাখ ডলার ও ২০০৫-০৬ অর্থ বছরে আলু রফতানি করে আয় হয় ৪৪ লাখ ডলার। জানা গেছে এ বছর পাকিসত্মানেও আলুর ফলন ভাল হয়েছে। কিন্তু রফতানির জন্য নগদ সহায়তা চাওয়া হলেও সরকার তা অনুমোদন করেনি।

[ad#bottom]

Leave a Reply