জান দেবো তবুও জমি দেবো না

পোশাক শিল্পকে ঢাকার বাইরে নেয়ার কার্যক্রম ত্বরান্বিত করতে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার বাউশিয়ায় ৪শ’ একর জমির ওপর গার্মেন্ট পল্লী স্থাপনের লক্ষ্যে প্রকল্প চূড়ান্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে বাউশিয়ায় ২শ’ একর জমি অধিগ্রহণ করে ওষুধ শিল্পপার্ক স্থাপনের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। ওষুধ শিল্পপার্কের পাশে তিন ফসলি জমিতে গার্মেন্ট পল্লী স্থাপনে ৪শ’ একর জমি অধিগ্রহণের ঘোষণায় বাউশিয়া এলাকার ৫০ হাজার মানুষের চোখে ঘুম নেই। গার্মেন্ট পল্লী স্থাপনের নির্ধারিত স্থান পরিবর্তনের দাবিতে এলাকাবাসী ইতিমধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে।

এই কর্মসূচির অংশ হিসেবে কৃষকনেতা মাফুজ মিয়ার সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তারাও জমির মালিকরা বলেন, প্রয়োজনে জান দেবো তবুও তিন ফসলি জমি দেবো না। ১১ই ফেব্রুয়ারি এলাকার কয়েক হাজার কৃষক ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মানববন্ধন করে গার্মেন্ট পল্লী স্থাপনের স্থান পরিবর্তনের দাবি জানান। গত ১ বছর পূর্বে যখন বাউশিয়ার তিন ফসলী জমিতে ওষুধ শিল্পপার্ক স্থাপনের লক্ষ্যে জমি অধিগ্রহণের ঘোষণা দেয়। এলাকার কৃষকরা ওষুধ শিল্পপার্কের স্থান পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে সরকারের ঊর্ধ্বতন মহল, জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় প্রশাসন বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে। কৃষকদের এই দাবি উপেক্ষা করে সরকার এ স্থানে ওষুধ শিল্পপার্ক স্থাপনের জন্য ২শ’ একর জমি অধিগ্রহণ করে। এবং ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণের টাকা বিতরণ কাজ শুরু করে। দ্বিতীয় দফা একই স্থানে ইদানীং গার্মেন্ট পল্লী স্থাপনের জন্য ৪শ’ একর জমি অধিগ্রহণের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। বাউশিয়ার এ বিলে প্রায় ১১/১২শ একর জমি আছে যা তিন ফসলী।

সরকার ঘোষিত ওষুধ শিল্পপার্ক ও গার্মেন্ট পল্লী স্থাপনে ৬/৭শ’ একর জমি চলে গেলে ফসল উৎপাদনের জমি থাকবে না কৃষকদের। কৃষি জমি হারিয়ে কৃষক হয়ে যাবে ভূমিহীন ও বেকার। কৃষক আলম জানান, বাউশিয়ার এ বিলের জামিতে সোনা ফলে। জমিগুলো তিন ফসলি তো আছেই। কিছু কিছু জমিতে চার ফসল জন্মে। জমিতে আলুর পর তিল, কাউয়ুন শেষে ধান ফসল হয়। জমিতে আলু ও তিল ফসল তোলার পর ৩ বিঘা জমিতে যে আমন ফসল হয় তা সারা বছর খেয়ে অর্ধেক ধান বিক্রি করে সংসারের খরচ চালাতে পারি। জরিমন নেছা (৪৫) বলেন, আমার ১৮ শতাংশ জমিতে আলু চাষ করে গত বছর ১০ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। আলুর পর আমন ধান পেয়েছি ১২ মণ। নিজের জমির ধানে ৮ মাস চলে গেছে, জমিটি চলে গেলে ভিক্ষা করে চলা ছাড়া আর কোন পথ থাকবে না। মানবাধিকার কর্মী নাছির উদ্দিন বলেন, শিল্প কারখানা হলে এলাকা উন্নত হবে। এর বিরোধিতা আমরা করছি না। তবে তিন ফসলী জমিতে পোশাক পল্লী স্থাপন না করে গজারিয়ার মেঘনা নদীর পাশে বহু খাসজমিও পরিত্যক্ত জমি আছে। সেখানে পোশাকপল্লী সহ বিভিন্ন শিল্প কারখানা স্থাপিত হোক। এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রসাশক মো. আজিজুল আলম জানান, জাতীয় স্বার্থে গজারিয়ার বাউশিয়ায় সরকার পোশাক পল্লী স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়। প্রকল্পের আওতায় ৪শ’ একর জমিতে প্রায় ৩৯০টি প্লট নির্মাণ করা হবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply