ফখরুদ্দীন ও মইনকে ডাকার সিদ্ধান্ত সংসদীয় কমিটির

ঢাবির ছাত্র-শিৰক ও সেনা সদস্যদের মধ্যে সৃষ্ট ঘটনার সাক্ষ দিতে
বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্র-শিক্ষক ও সেনা সদস্যদের মধ্যে সৃষ্ট সহিংস ঘটনায় সে সময়ের প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ ও সেনা প্রধান মইন উ আহমেদকে সাৰ্য দিতে আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংসদীয় উপকমিটি। রবিবার জাতীয় সংসদে অনুষ্ঠিত উপকমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

ঘটনা তদনত্মে ধারাবাহিক সাৰ্যগ্রহণ প্রক্রিয়ায় বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শীর্ষ এ দুই ব্যক্তিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন কমিটির আহ্বায়ক রাশেদ খান মেনন। জনকণ্ঠকে তিনি বলেন, ঘটনা তদনত্মে এ উপকমিটি গঠনের পর থেকেই তদন্তের প্রয়োজনে সংশিস্নষ্ট বিভিন্ন মহলকে সাৰ্য ও মতামত দেয়ার জন্য ডাকা হয়েছে। রবিবারের বৈঠকে সশস্ত্র বাহিনীর চীফ অব জেনারেল স্টাফ ইবনে সিনা জামালী এসে সাৰ্য দিয়ে গেছেন। এর আগে ঘটনার সময় গ্রেফতারের শিকার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিৰকসহ অন্যান্য শিৰকরা সাৰ্য দিয়ে গেছেন। তৎকালীন শিৰা উপদেষ্টা আইয়ুব কাদরীও সাৰ্য দিয়ে গেছেন এ উপকমিটিতে। সাৰ্যগ্রহণের এ ধারাবাহিকতায় বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শীর্ষ ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। উপকমিটির পরবর্তী বৈঠকে তারা আসবেন বলে আশা প্রকাশ করেন রাশেদ খান মেনন। এদিকে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, সশস্ত্র বাহিনীর সাবেক চীফ অব জেনারেল স্টাফ সিনা ইবনে জামালী ও তৎকালীন ডিজিএফআই কর্নেল ছামসের (বর্তমান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ছামসুল আলম খান) দেয়া সাৰ্যের ভিত্তিতে তাদের তলবের সিদ্ধানত্ম নেয়া হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ঘটনায় দায়ী তিন ব্যক্তির মধ্যে ইবনে সিনা জামালীকে একজন ‘ নাটের গুরম্ন’ হিসেবে ধরা হয়। তবে বৈঠকে তিনি এ ব্যাপারে তার সম্পৃক্ততা অস্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে সূত্র। সূত্র জানায়, ইবনে সিনা জামালী জানিয়েছেন, তিনি শুধু নির্দেশ পালন করেছেন মাত্র। তিনি নিজে থেকে এ ধরনের ঘটনার পেছনে কোন ইন্ধন যোগাননি।
বৈঠক সূত্র জানায়, অপর দুই ব্যক্তি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফজলুল বারী ও তৎকালীন ডিজিএফআই প্রধান এটিএম আমিনকেও ডাকা হয়েছিল। কিন্তু সেনা অধিদফতর জানিয়েছে, এটিএম আমিনকে তার ঠিকানায় পাওয়া যায়নি এবং ফজলুল বারী পলাতক রয়েছে।

উলেস্নখ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ঘটনা অধিকতর তদনত্মে গত বছরের ১৯ আগস্ট শিৰা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠিত উপকমিটি গঠন করা হয়। স্থায়ী কমিটির সভাপতি রাশেদ খান মেননকে উপকমিটির আহবায়ক করা হয়।

এ তদনত্ম কমিটি ইতোমধ্যেই ২০০৭ সালের ওই সহিংস ঘটনার বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছে। তৎকালীন শিৰা উপদেষ্টা আইয়ুব কাদেরীসহ সংশিস্নষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় শিৰকদের সাৰ্য নেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে ওই ঘটনায় জড়িত শিৰার্থীদেরও সাৰ্য নেবে এ কমিটি। এসব সাৰ্য, বিৰোভের সময়কার ভিডিও ফুটেজ ও ছবিসহ অন্যান্য তথ্য দেখে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করা হবে। পরে এ তদনত্ম কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে শিৰা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সুপারিশ চূড়ানত্ম করবে।

[ad#bottom]

Leave a Reply