এক নেড়ি সাংঘাতিকের সাক্ষাতকার-আত্মপ্রচার

রাহমান মনি
আমি একজন নেড়ি সাংঘাতিক। শিরোনামটি দেখে অনেকে হয়ত ভড়কে গেছেন। আমার লেখা আসলে কেউ পড়তে চায়না। কেউ আমাকে চটি লেখক হিসেবেও স্বীকৃতি দিতে চায়না। তাদের যুক্তি হলো চটি লিখতে পারলে কিছু কিছু ক্ষেত্রে উত্তেজনা আসে লেখার রসবোধ থেকে। আর আমার লেখা পড়লে নাকি নিজের চুল ছিঁড়তে ইচ্ছা করে সময় নষ্ট করার জন্য। নেই কোন সাহিত্য, নেই কোন উপাদান। আসলে কি লিখতে গিয়ে কি লিখি তা আমি নিজেও জানিনা। ছড়াকার বদরুল বোরহানের ‘চাঁদ বুড়ি ডট কম’ বইয়ের মাষ্টার ছড়াটির মতো। ছড়াটির শেষ লাইন ছিলো “কি পড়ে আর কি পড়ায় সে কেউ বোঝেনা কেউ।” আর আমার বেলায় আমি নিজেই বুঝিনা।

যাক যে কথা বলছিলাম, আপনারা নেড়ি কুকুরের নাম শুনেছেন কিন্তু নেড়ি সাংঘাতিকের কথা শোনেননি। আসলে আমি নেড়ি কুকুরই লিখতে চেয়েছিলাম। কিন্তু কুকুর হচ্ছে একটি প্রভুভক্ত প্রাণী। ওদের মধ্যে আছে শেফার্ড, ডোবারম্যান, অ্যালসেশিয়ান ইত্যাদি। কিন্তু আমার মধ্যে কোন জাত ভেদ নেই, নেই কোন ধর্ম। পবিত্র রমজান এলে আমি মসজিদে মসজিদে টুপি মাথায় দিয়ে ঘুরি যাতে অন্তত রাতের খাবারটা মিলে যায়। আবার ক্রিসমাস আসলে কেক কাটার আয়োজন করি। তাতে না আসুক কেউ, তাতে কি? আমি বাদে সবাইতো ভিন্ন ধর্মাবলম্বী। এটাওতো আমার কৃতিত্ব বৈকি! তাই ক্রিসমাসের নির্দিষ্ট দিনের আগেই সমমনা ১০/১২ জনকে নিয়ে কেক কাটি। কিছু কামাইও হয়, মন্দ কি? প্রতিটি ধর্মেই অন্য ধর্মের প্রতি সম্মান দেখাতে বলা হয়েছে। মসজিদে ঢুকলে অজু করে প্রবেশ করা, পূজোর ফুল অন্য ধর্মের কেউ স্পর্শ করবেনা ইত্যাদি। আমার মধ্যে কোনটাই নেই। কারন, যে নিজ ধর্মের প্রতি সম্মান দেখাতে পারেনা সে অন্য ধর্মের প্রতি সম্মান দেখাবে কি করে? তাই আমি বিনা অজুতে মসজিদে প্রবেশ করি, নামাযের সামনে দিয়ে ঘোরাফেরা করি। তবে আমার কথা হলো আমাকে মসজিদে অনেকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে। আমি নাকি স্পাই হিসেবে কাজ করি।আর দুটি কারনের একটি হলো-

শফিক রেহমান কিভাবে জানি জেনে গেছেন আমার লেখার বিষয়বস্তুর হেড লাইন। তাই তিনি আগেভাগেই নেড়ি কুকুরের সাক্ষাতকার নিয়ে লিখে পত্রিকা ভরে ফেলেছেন। পাবলিক তা পড়ছেও আগ্রহ সহকারে। জানিনা আমারটা কেউ পড়বে কিনা। তবে আমার কথা হলো, সেও সম্পাদক এবং আমিও সম্পাদক। এখানে ছোট-বড়, জনপ্রিয়, জননন্দিত আর জননিন্দিত বলে কোন কথা নেই। সম্পাদক সম্পাদকই। যদিও আমার লেখাকে সবাই খিস্তিখেউড় বলে -তাতেও আমি দমিনা। তারাও বাংলা বর্ণমালা থেকে অক্ষর ব্যবহার করে, করি আমিও। দ্বিতীয় কারন হলো নেড়ি কুকুরের নামে হেড লাইন দিয়ে এই প্রাণীকে অপমান করতে চাইনা। যেহেতু নিজেকে সাংঘাতিক পরিচয় দিতে সাচ্ছন্দ বোধ করি তাই আমি হলাম নেড়ি সাংঘাতিক।

আমি যে উল্লেখিত প্রাণীটির চাইতেও নিম্নশ্রেনীর তার একটি উদাহরণ দিচ্ছি, কুকুরকে ধমক দিলেও সে তার আশেপাশেই থাকে। কিন্তু আমি প্রয়োজনে প্রভু বদল করি। আওয়ামী লীগ লাথি মারলে বিএনপির কাছে যাই আবার বিএনপি লাথি মারলে ছুটে আসি আওয়ামী লীগের কাছে। বিশ্বাস হচ্ছেনা? ২০১০ এ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফরের সময় আমাকে দাওয়াত না দেয়ায় ২৯শে নভেম্বর বিএনপির ডাকা সংবাদ সম্মেলনে যোগ দিয়ে আওয়ামী লীগকে এক হাত নেই। আবার ১ তারিখের সম্বর্ধনায় যোগ দেবার জন্য দেন দরবার করতে থাকি। আওয়ামী লীগ থেকে আমাকে ওয়েট এন্ড সী করতে বলা হয়। আমি অনুষ্ঠানে হাজির হই, সেখানেও একই কথা বলা হয়। ইচ্ছা ছিলো অন্তত রাতের খাবারটা সারা যাবে। আমি ওয়েট করেছি কিন্তু ‘সি’র দেখা পাইনি। তাই মনের দুঃখে আবার বিএনপির পক্ষে যোগ দেই। রেজা-মাসুমদের সাথে কথা বলি আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে। কিন্তু সুবিধা করতে পারিনি। কারন আমার যে চরিত্র তা এরা ভালো করেই জানে। পাত্তা না পেয়ে আমার বিবেক বর্জিত আত্মপ্রচারমূলক সাইটে লিখে দেই। ফলে যা হবার তাই হলো, ধমক খেয়ে চুপসে গিয়ে সবার কাছে বিচার চাইলাম। কেউ এগিয়ে এলোনা। বাধ্য হয়ে লেখাটি নামিয়ে ফেললাম। মনে কষ্ট নিয়ে বেশ কিছু দিন চুপ ছিলাম। সুযোগ আসলো, জাপানের ভূমিকম্প আমার জন্য আশীর্বাদ হয়ে আসলো।

জাপানের ভূমিকম্প ও সুনামিতে সকলে হতবিহ্বল হলেও আমি মনে মনে খুশিই হলাম। আশায় থাকি এই বুঝি কিছু কামানো যাবে। ১৩ই মার্চ দূতাবাসের সভায় নিজের নাম নিজেই প্রস্তাব করলাম উদ্ধারকর্মীদের সাহায্যে যাবার জন্য। ভাবলাম কিছু কামিয়ে নেব কিন্তু পরে হিসেব কষে দেখি কামানোতো দূরের কথা, দূতাবাস পর্যন্ত যাওয়ার ভাড়াটাও গুনতে হবে নিজেকে। এমনকি পথিমধ্যের পানাহারটাও। যে আমি বাংলাদেশে গেলে পকেটে ভাংতি নাই, জাপানি ১০০০ ইয়েনের নোট দেখিয়ে রিক্সা ভাড়া এবং পানাহারটা অন্যর উপরদিয়ে চালিয়ে দেই, সেই আমি কিনা নিজের পয়সা খরচ করে এ্যাম্বাসিতে যাব? আত্মপ্রচারের মাধ্যমে নিজের নামতো সাংঘাতিক হিসেবে লিখিয়েছি, প্রচারতো হয়েই গেছে। তবে ধন্যবাদ জানাতে চাই জেআরকে। তারা সেদিন ট্রেনের সংখ্যা কমিয়ে দিয়েছিলো। যদিও সবাই কাজে নিয়মিতই গিয়েছিলেন, কারো কারো একটু দেরী হয়েছিলো এই যা।

যে কথা বলছিলাম, আমি ঐ প্রাণীর চাইতেও অধম। হ্যাঁ, জাপানের ভূমিকম্পে অনেক বড় ক্ষতি হলেও গুটি কয়েকজন তার থেকে ফয়দা লোটার চেষ্টা করেছি। ফেলে দেয়া বা নষ্ট হয়ে যাওয়া গাড়ির যন্ত্রাংশ বিশেষ করে নেভিগেটর, ইঞ্জিন, অডিও সেট ইত্যাদি কালেক্ট করার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছি এক জাপানি ভদ্রলোকের সাথে গিয়ে গৃহস্থের গরু মারা গেলে যেমন ঋষিদের লাভ হয় তেমনি ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্থ হলেও ভদ্রলোক আমাকে কিছু ছিঁটেফোটা দেবার বিনিময়ে সাথে নিয়ে ফটোসেশন করানোর জন্য ত্রান কাজে ঝাঁপিয়ে পড়ে সেবকের খাতায় নাম লিখিয়ে নিয়েছে। দুঃখিত, জাপানি বললাম এই কারনে যে তিনি বাংলাদেশের আনুগত্য ত্যাগ করেছেন অনেক আগেই। জাপানি পাসপোর্টের লোভে বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা সম্বলিত সবুজ পাসপোর্টকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছেন। তাকেও বা বলি কেন, আমি নিজেওতো ২/৩বার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছি। জাপান সরকার আমাকে দেয়নি। ওরা বোধহয় বুঝতে পেরেছেন আমি ঐ নেড়ি কুকুরের চাইতেও কিছুটা অধম। তাই আমি বেছে বেছে তাদের সাথেই সম্পর্ক রাখি যারা দেশের প্রতি অনুগত নয়।

এমন একজন ব্যবসায়ীকে আমি (বাংলা কমিউনিটিতে যার কোন অবদান নেই)আমার টুপাইস কামানোর টার্গেটে পরিনত করি। গত বছরের ১৯শে ডিসেম্বরে একটি অনুষ্ঠানে তাকে অতিথি করলে গদ গদ হয়ে সে আমাকে কিছু দক্ষিনা দেয়। এতে আমরা দু’জনেই লাভবান। আমি আর্থিক ভাবে আর সে অতিথির খাতায় নাম লেখানোর যোগ্যতা পেয়ে। যদিও কেক কাটায় আমার ধর্মের কেউ উপস্থিত ছিলেননা। তবে আমি তো আগেই বলেছি আমার কোন নির্দিষ্ট ধর্ম নেই। তবে আমি পাকিস্তানিদের দোস্তী খুবই ভালোবাসি। তাদের গুনগান গাইতে গিয়ে সাংবাদিক লেখক ফোরামের রোষানলের যেমন শিকার হয়েছি তেমনি শিকার হয়েছি নির্দিষ্ট দিনের পূর্বে ধর্মীয় উৎসব পালনের নামে কিছু করতে গিয়ে, খৃষ্টীয় ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিতে গিয়ে।

জাপানে বসবাসরত খৃষ্টান ধর্মাবলম্বীগন আমাকে সমাজ ছাড়া করেছে। একটি পত্রিকাতে তারা এ নিয়ে লেখাও পাঠায়। পত্রিকাটির সম্পাদকের কাছে গিয়ে আমি জানতে চাই একজন সম্পাদকের বিরুদ্ধে আপনি সম্পাদক হয়ে কিভাবে আপনার পত্রিকায় স্থান দিলেন? তখন আমি ভুলেই গিয়েছিলাম আমি একজন নেড়ি সাংঘাতিক। কারন এই আমিই পরবাস পত্রিকার সম্পাদককে নিয়ে কত কিছুইনা লিখেছি। এমনকি সাবেক রাষ্ট্রদূত, এলাকার বড়ভাইকে মামা বানিয়ে ছেড়েছি।

পরবাস পত্রিকার শুধু সম্পাদককে কেন, তার নির্বাহী সম্পাদককে তো আরো বেশি আঘাত করেছি। রমজানের ইফতার বানানো নিয়েও মন্তব্য করেছি। বাবুর্চি বলতে ছাড়ি নাই। যদিওবা, সে নিজেকে বড় এমন কথা কখনো বলে নাই, এখনো তবে আমি ভুলে গিয়েছিলাম যে আমি জাপানে এসেছি বাবুর্চি ভিসা নিয়েই। নাইম এর রেস্টুরেন্টের ভিসায় আমি জাপানে আসি ১৯৯১ সালে। ঐ সময় লিও ক্লাবের একটি প্রতিনিধি দল জাপান সফরে আসে। নাইম থেকে বহিস্কার হয়ে জাপানের রাস্তায় ঘুরে বেড়ালে শিবুইয়ার বেঙ্গল রেস্টুরেন্টের মালিক শিউলি ও তার স্বামী আমাকে কাজ দেন। কিন্তু অকৃতজ্ঞ বলে আমি কখনো তাদের নাম পর্যন্ত নেই নি। আমাদের মত প্রাণীদের ওসব থাকতে নেই।

এই কারনেই আমি অন্য পত্রিকার লেখা নিজের আত্মপ্রচার মাধ্যমে ‘নিজস্ব প্রতিবেদক’ এর পাঠানো বলে চালিয়ে দেই। এই জন্য আমি বেছে নিয়েছি আঞ্চলিক পত্রিকাগুলোকে। কারন প্রবাসীরা কেউ আঞ্চলিক প্রত্রিকাগুলো পড়ে বলে মনে হয়না। তাই নিজস্ব প্রতিবেদক ওই ভাবে রেখেই ছাপিয়ে দেই। তা ছাড়া, আমিতো কোথাও লিখিনা আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক। এই জন্য কৃতজ্ঞতা স্বীকারের প্রয়োজন মনে করিনা। তবে ধরা খেয়ে যাই জাপানের কোন অনুষ্ঠানের কথা লিখতে গিয়ে। কারন নিউজ লেখার মত ক্ষমতা আমার এখনো হয়নি। যদিও আমি ল্যাপটপ খুলে দেখাই আমি সবই টুকে নিচ্ছি, এই জন্য আমি অনুষ্ঠানে দেরিতে যাই এবং চলাকালীন সময়ে মাঝ পথে চলে আসি। এভাবে আমার ব্যাস্ততার প্রকাশ ঘটাই। অপেক্ষা করতে থাকি কমিউনিটি নিউজ ( http://community.skynetjp.com ) এ খবর ছাপানো পর্যন্ত। অনেক সময় দাড়ি, কমা এমনকি ছবি পর্যন্ত নকল করি। মাঝে মাঝে ধমকও খাই। তবে ধরা খেয়ে যাই ২/১ লাইন বদল করতে গিয়ে। বিশ্বাস হচ্ছেনা? তবে জানুন, ২৭শে ফেব্রুয়ারী জুয়েল এমকিউর প্রকাশনা উৎসবে আমি ছিলাম। যথারীতি ল্যাপটপও প্রদর্শন করেছি। কিন্তু নিউজ আর লেখা হয়ে ওঠেনি। অপেক্ষা করেছি কমিউনিটি নিউজ পোর্টালে ছাপানো পর্যন্ত। ওখানে ছাপানো হলে কপি করা নিরাপদ না মনে করে ২/১ লাইন পরিবর্তন করি আর তাতেই পুরো অর্থ বদলে যায়। মিষ্টিমুখ -শব্দের বদলে মিষ্টি বিতরণ লিখলে নিউজ তার ছন্দ হারিয়ে ফেলে। ভাগ্য সুপ্রসন্ন আমার খিস্তি খেউর কেউ পড়েনা। তবে আমার সবচাইতে বড় লজ্জার বিষয় হলো আমার বউ বাচ্চার নামও সঠিক উচ্চারণে লিখতে পারিনা। ভেতরে যে কিছু নেই তাই এই অবস্থা। জাপানি উচ্চারণ বাংলায় লিখতে গেলে আমার কলম ভেঙে যায়। খাতা ছিঁড়ে যায় কিন্তু সঠিক শব্দটি আর লেখা হয়না।

জাপানি ব্যবসায়ীর ত্রান বিতরণের কথা বলছিলাম, সমাজ সেবক ঐ ব্যবসায়ী ৪ দিন ব্যাপী ত্রান বিতরণের প্রথম দিন দুপুরে ৫০০ লোক এবং রাতে ১ হাজার লোককে নিজে উপস্থিত থেকে রান্না করে খাইয়েছে এবং ছোটখাটো একটি ইন্টারভিউও দিয়েছে। আমি চামচামি করতে গিয়ে ভুলেই গিয়েছিলাম যে এটা জাপান। এটা আইলা কিম্বা সিডর নয়। এখানে ইচ্ছা করলেই কেউ ত্রান বিতরণের নামে সানগ্নাস পরে পোজ দিতে পারেনা। নিজে ঐ প্রণীটির চাইতে অধম হওয়াতে মনিবকে উপরে উঠাতে গিয়ে তাকে সবার হাসির পাত্র করে ফেলেছি। ভাগ্য ভালো বাংলাদেশী পাসপোর্ট ফেলে দেওয়ার সাথে সাথে বাংলাও মনে হয় ভুলে গেছে অথবা আমার এই খিস্তি খেউর পড়ে কেউ সময় নষ্ট করেনা। এটা মন্দের ভালো। যেহেতু আমি নেড়ি সাংঘাতিক তাই ১০০০ লোকের খাবার তৈরি ও পরিবেশন করতে যে কি পরিমান কর্মযজ্ঞের প্রয়োজন তা আমার মাথায় আসার কথা নয়। তাও আবার কারি জাতীয় ডিস। যাক নেড়ি হয়ে ভালোই হয়েছে। পরবাসের বাবুর্চি মনি হয়ত বলতে পারবেন চাউল, মাছ, মাংস, মসল্লা, তেল, নুন, রান্নার সরঞ্জাম এবং সময় কি পরিমান ব্যয় হয় আর এর যোগান বা ঐ পরিবেশে এবং পরিস্থিতিতে কোথা থেকে আসবে। জ্বালানীর কথা না হয় বাদই দিলাম।

এবার অন্য কথায় আসি। আমার এক বন্ধু মারা গেছে। মারা গিয়ে সে বাঁচতে পারেনি কিন্তু আমাকে বাঁচিয়ে দিয়েছে। আরিফ নামে ঐ বন্ধুর কাছ থেকে আমি দু’বার টাকা ধার নিয়েছিলাম। একবার নিয়েছি পত্রিকা বের করব বলে। ইমদাদুল হক মিলন ভাইয়ের সাথে চুক্তি বদ্ধ হয়েছিলাম। কিন্তু মিলন ভাই আর পত্রিকা বের করতে সহায়তা করেননি আর আমিও টাকাটা ফেরত দেই দিচ্ছি বলে। আরেকবার নিয়েছি বউর চিকিৎসার কথা বলে। নিজের স্ত্রীর চিকিৎসার কথা বলে সবার কাছে টাকা হাওলাত চাওয়া যায়না ব্যক্তিগত ঘনিষ্ট বন্ধু না হলে। তাই যেহেতু পত্রিকা বের করার কথা ছিলো সেই কারনে ব্যবসায়িক বন্ধু মনে করে টাকা হাওলাত করেছিলাম। বউর চিকিৎসা করে ভালো করতে পারলেও আমার মানিব্যাগের অবস্থা ভালো করতে পারিনি। সেই সাথে মানসিক ভাবে ফেরত দেবার জন্য প্রস্তুতও ছিলাম না। এই জন্যে দু’জনের মধ্যে সম্পর্কের অবনতিও হয়েছিলো। আরিফ মারা যাওয়াতে আমি বেঁচে গেছি। এই বাঁচাটা আরেকটু পোক্ত করার জন্য জনৈক ব্যবসায়িক ব্যক্তির কাছ থেকে হুমকির গল্প ফেঁদেছি। ফোন গিয়েছে এ কথা ঠিক। তবে জনৈক ব্যবসায়ীর নিকট থেকে নয় -এই নেড়ি সাংঘাতিকের কাছ থেকে। এ ছাড়া অন্য জনৈক ব্যবসায়ীও আরিফের টাকা পয়সার হিসেব সব জানে এবং মেরে দেবার মতলবে অনেক কিছুই চেপে যাচ্ছে। তবে অন্যদিকে আরিফ মরে গিয়ে বেঁচে গেছে হিমু ইসলাম, সানাউল হকদের মেরে রেখে। তারা দু’জনেই আরিফের কাছ থেকে বিপুল অর্থ পেতেন বলে নেড়ি সাংঘাতিকের জানা আছে। এখন বাংলাদেশের পাসপোর্ট হস্তান্তরকারী জনৈক ব্যবসায়ী আরিফের টাকা পয়সার বিষয়টি ডিল করছে। তাকে যদি সাপোর্ট দিতে পারি তাহলে তার ছিঁটেফোটা আমার কাছে আসলেও আসতে পারে। এ ছাড়া নিজেরটা না দেয়ার পাঁয়তারা তো আছেই।

ভূমিকম্প ও সুনামিতে বিপর্যস্তদের সহায়তার জন্য বাংলাদেশ কমিউনিটি ৩রা এপ্রিল একটি মহতী অনুষ্ঠানের আয়োজন করলে একটি ইমেইল একাউন্ট খুলে নিজের আত্মপ্রচার মাধ্যমে এবং সবগুলি পোর্টালে ইমেইল করি। আমি নিজে ছাপালেও অন্য কেউ ছাপেনি। অপরাধী নাকি অপরাধ করলে কিছু প্রমান রেখে যায় যার সূত্র ধরে পরবর্তীতে তাকে সনাক্ত করা সম্ভব হয়। ২৬শে মার্চ দূতাবাস আয়োজিত অনুষ্ঠানে সবার রোষানলে পড়লে ক্ষমা প্রার্থনা করে আরেকবার সুযোগ দিতে অনুরোধ করি নামটি স্থান দেবার জন্য। কিন্তু, আমি যে ভূলটি করেছি তা হলো প্রথমতঃ ৩রা এপ্রিলের স্থানে ৩রা মার্চ লিখি। কারন সবাই জানে এমন ভুল এই নেড়ি সাংঘাতিক ছাড়া আর কেউ করেনা। আর, দ্বিতীয় ভুলটি হচ্ছে এমন একটি নাম ব্যবহার করেছি যার নামই যোগাযোগের জন্য লিষ্টে দেয়া হয়নি। যার নাম লিষ্টে নেই সে কি করে প্রতিবাদ করে?

কিন্তু রাহমান মনির মত ঘাড় তেড়া লোক কিছুতেই আমার নাম যোগ করতে রাজি না হলে নিজ ঘরনার লোকদের নিয়ে আলাপ করে সমমনাদের নিয়ে একই দিনে সভা ডাকি কিছু কামানোর ধান্দা করার জন্য। কিন্তু কিছুতে কোন কাজ করতে পারিনি। বাংলাদেশ কমিউনিটিকে একহাত দেখাতে গিয়ে সমমনাদের সবাই বারো হাত দেখে ফেলেছি। বাংলাদেশ কমিউনিটি সফল আয়োজন করে আমাদের ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে সমাজ থেকে। তবে আমি সফল এই কারনে যে, আরো কয়েকজন আমারই মতন তা বুঝতে পেরেছে।

আমি নেড়ি সাংঘাতিক তাই কে কি বললো তা গায়ে মাখিনা। তা ছাড়া, গায়ে মাখালে আমি চলতে পারবনা। একটি সত্যি ঘটনা আমি অকপটে স্বীকার করছি। কয়েকমাস আগের ঘটনা। বাংলাদেশে একটি ধর্ষিতা মেয়ের ছবি পত্রিকায় ছাপিয়ে নিউজ করে দেই। এতে একদিন ইকেবুকুরোতে ধাওয়া ও গালমন্দের শিকার হই। আমাকে গালাগালি করার জন্য মানুষের দ্বারে দ্বারে বিচার চাই। কিন্তু তাতে কেউ সাড়া দেয়নি। সবাই আমাকে উল্টো বকাবকি করে।

তারপরও আমি এসব গায়ে মাখিনা। কারন আমার চামড়া গন্ডারের চাইতেও শক্ত। কোন কিছুই আমাকে লজ্জায় ফেলেনা। লাজ, ব্যক্তিত্ব নেড়ি সাংঘাতিকদের থাকতে নেই। তাই নিজেই নিজেকে সাংঘাতিক পরিচয় দেই।

২৪শে মার্চ ২০১১, টোকিও।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#bottom]

Leave a Reply