গানে গানে বাংলাদেশকে দেখা

হাবিব
বাঙালিরা না খেয়ে বাঁচতে পারে। কিন্তু গান না শুনে থাকতে পারে না! এ দেশের মানুষ এতটাই গানপাগল। গানের প্রতি তাদের এই অগাধ ভালোবাসা সব শিল্পীর জন্যই অনুপ্রেরণাদায়ক। নানা প্রতিবন্ধকতা ও সীমাবদ্ধতার মধ্যেও শিল্পীরা যে গান করেছেন, তার পেছনে শ্রোতারাই মূল চালিকাশক্তি। এভাবেই আমাদের দেশের গান সমৃদ্ধ হয়েছে।

আমরা তরুণরা বাংলাদেশকে নিয়ে সবসময় গর্ব করি। আমাদের গর্বের এই ভিত্তি গড়ে দিয়েছেন মুক্তিসেনারা। যারা ১৯৭১ সালে দেশের জন্য লড়েছিলেন। অগি্নঝরা সেইসব দিনে যারা তাদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছিলেন, তাদের কি ভোলা যায়? যায় না। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কিংবদন্তি শিল্পীরা হৃদয়ের মণিকোঠায় থাকবেন চিরদিন। স্বাধীনতার ৪০ বছর পেরিয়েও তাদের গান আমাদের রক্ত কণিকাকে শিহরিত করে। আগামীর পথে এগিয়ে যাওয়ার সোপান গড়ে দেয়।

আমি সবসময়ই আশাবাদী একজন মানুষ। ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়েই চলি। বাংলাদেশের সবই আমার কাছে ইতিবাচক ও সম্ভাবনাময় বলে মনে হয়। ‘পজিটিভ বাংলাদেশ’ যাকে বলে। একজন সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে বলব, এই সম্ভাবনার দুয়ারে গানই সবচেয়ে সুখজাগানিয়া। আমার তো মাঝে মধ্যে মনে হয়, বাঙালিরা না খেয়ে বাঁচতে পারে। কিন্তু গান না শুনে থাকতে পারে না! এ দেশের মানুষ এতটাই গানপাগল। গানের প্রতি তাদের এই অগাধ ভালোবাসা সব শিল্পীর জন্যই অনুপ্রেরণাদায়ক। নানা প্রতিবন্ধকতা ও সীমাবদ্ধতার মধ্যেও শিল্পীরা যে গান করেছেন, তার পেছনে শ্রোতারাই মূল চালিকাশক্তি। এভাবেই আমাদের দেশের গান সমৃদ্ধ হয়েছে। এ দেশের ভাণ্ডারে হরেক রকম গান আছে। ভাওয়াইয়া, ভাটিয়ালি, জারি, সারি, মুর্শিদি, ভাণ্ডারি, লালনগীতিসহ আরও অসংখ্য ধারার গান আছে আমাদের। ফকির লালন সাঁই, হাছন রাজা, রাধারমণ, আবদুল আলীম, আব্বাস উদ্দিন, দুরবীন শাহ, আরকুম শাহ, শাহ আবদুল করিম আমাদের সমৃদ্ধ করেছেন। বাউলের গান নিয়েই দেশীয় সঙ্গীতাঙ্গনে আমি পথচলা শুরু করেছিলাম। লোকজ গানের প্রতি আমাদের সব বাঙালিরই আলাদা এক ধরনের দুর্বলতা আছে। এটাই আমাদের শেকড়।

সবকালেই সব ধরনের সুরের মূর্ছনা মানুষকে কাছে টেনেছে। সে জন্যই হয়তো যুগে যুগে শিল্পীরা আপন করেছেন বাউলিয়ানাকে। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না, বটতলার ছায়া পেরিয়ে ডুগডুগি আর একতারার সুর এখন ছড়িয়ে গেছে শহুরে জীবনে। সময়ের স্রোতে আমাদের লোকজ সঙ্গীতের আবহ সীমানা পেরিয়ে গেছে। প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের সঙ্গীতের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নতুন ধারার গান করছেন অনেকে। তবে লোকজ আবহে যারা কাজ করছেন, তারা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখেন।

গান এখন সম্মানজনক একটি পেশা। অভিভাবকরাও তাদের ছেলেমেয়েদের গানের প্রতি উৎসাহ দিচ্ছেন। দিনে দিনে যেমন প্রসারিত হচ্ছে গানের ভুবন। এটা মেনে নিয়েই চলতে হবে যে, প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে গান শোনার পদ্ধতি সহজ হয়েছে। কারণ নতুন প্রযুক্তিগুলো মানুষ গ্রহণ করছে আনন্দের সঙ্গে। প্রযুক্তির ফলে মানুষের কাছে অনেক কিছুই সহজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে একজন উপকৃত হলেও অন্যজন বিপাকে পড়ছেন। মুঠোফোনে গান ডাউনলোডের ফলে অডিও প্রতিষ্ঠান ও শিল্পীরা তাদের ন্যায্য প্রাপ্য পাচ্ছেন না। অন্যদিকে শ্রোতারা অল্প সময়েই যে কোনো গান তাদের হাতের মুঠোয় পেয়ে যাচ্ছেন।

পুরনো দিনের পানে ফিরে তাকালে দেখা যায়, মানুষ বিনোদনের জন্য গানের আসরে অংশ নিত। পর্যায়ক্রমে এলো কলের গানের যুগ, অডিও ক্যাসেট, অডিও সিডি ও অবশেষে মুঠোফোনে জমে থাকা গান। অনেকেই মনে করেন, এখনও একটা বড় অংশের শ্রোতা পুরনো গানই শুনতে চান। এ ক্ষেত্রে আমি বলব, আজ যা কিছু নতুন, আগামীকালই তা পুরনো হয়। অনেকেই বলেন, অডিও শিল্পে ধস নেমেছে। এই শিল্পের সোনালি অতীত এখন ধূসর বর্তমানে পরিণত হয়েছে। শ্রোতারা নাকি সিডি কম কিনছেন। এর কারণ একটাই হতে পারে_ শ্রোতারা এখন নিজের পছন্দমতো একটি, দুটি, তিনটি গান বেছে ডাউনলোড করে নিজের মুঠোফোন কিংবা আইপডে শুনছেন। মূলত এ কারণেই সিডির বাজার সংকুচিত হয়ে পড়ছে হয়তো। তবে শ্রোতাদের মধ্যে গান শোনার প্রবণতা বেড়েছে। আমি মনে করি, এখন অনেক ভালো ভালো গান হচ্ছে। প্রযুক্তির কারণে সিডি বিক্রি কমলেও আগের তুলনায় এখন মানুষ গান শুনছেন বেশি। শুনেছি মফস্বলে এখন গান ডাউনলোড করে দেওয়ার ব্যবসা জমজমাট। ৫০ টাকায় মুঠোফোনের পুরো মেমোরি ভর্তি করে দেওয়া হয়। এরপর একজনের মুঠোফোন থেকে অন্য মুঠোফোনে সেই গানটি স্থানান্তর করা হয়। মুঠোফোনে দেদার গান স্থানান্তর ও সিডি কপি করার কারণে শিল্পীরা তাদের প্রাপ্য হারাচ্ছেন। এটা শিল্পীদের জন্য অবশ্যই ক্ষতিকর। মোবাইলে গান ডাউনলোডের হিড়িক গত কয়েক বছরে আকাশ ছুঁয়েছে। কিন্তু এগুলোর রয়ালটি শিল্পী, সুরকার, গীতিকার পেলে সবার জন্যই কল্যাণকর হতো। এ ক্ষেত্রে আইনের সঠিক প্রয়োগ খুব জরুরি।

আরও কিছু সংকটের কথা না বললেই নয়। যেমন_ শুধুই গানের ওপর পড়াশোনা করার জন্য উল্লেখ করার মতো কোনো সঙ্গীত শিক্ষালয় নেই। গান নিয়ে পড়তে হলে ছেলেমেয়েদের বিদেশে পাড়ি জমাতে হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সরকার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। সঙ্গীতাঙ্গনের প্রতি সরকারের ব্যাপক নজরদারি প্রয়োজন। কপিরাইট আইন কার্যকর করতেও সরকারি পদক্ষেপ জরুরি। আমাদের দেশে কপিরাইট আইন আছে, কিন্তু এর প্রয়োগ ঠিকমতো না হওয়ার কারণে দিন দিন ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে অডিও শিল্প। তাই এখন অনেক শিল্পীই উৎসাহ হারাচ্ছেন। অন্যদিকে পৃষ্ঠপোষকতার অভাবও প্রকট। এ চিত্র বদলাতে হবে। অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসার জন্য আমাদের দেশের শিল্পীদের জন্য চ্যারিটি কনসার্ট করতে হয়। এটা আমাকে বেশ পীড়া দেয়। বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই একজন শিল্পীর এক থেকে দুটি গান জনপ্রিয় হলেই সারাজীবন তার অর্থের কথা ভাবতে হয় না। কিন্তু আমাদের দেশে সেই স্বপ্ন কি অধরাই থেকে যাবে শিল্পীদের জন্য? এসব পরিস্থিতির কারণে গানের প্রতি উৎসাহ কমে যেতে পারে নতুনদের মধ্যেও। তাই এ শিল্পের যেসব সংকট রয়েছে, তা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে আমাদের। এরই মধ্যে নিজেদের দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্বের কাছে লালন, বাউল ও ভাটিয়ালিসহ বিভিন্ন ধারার গান জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সঙ্গীতাঙ্গনের সংকটগুলো কাটিয়ে উঠতে পারলে এর কদর আরও বাড়বে বৈ কমবে না। এতসব প্রতিবন্ধকতা ও সংকটের ভিড়েও সম্ভাবনার হাতছানি সবসময়ই আছে। সঠিকভাবে বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হলে গানের ক্ষেত্র আরও বেড়ে যাবে। স্বাধীনতার ৪০ বছর পেরিয়ে আমাদের গান পৃথিবীজুড়ে আরও বেশি সমাদৃত হবে, এ প্রত্যাশা সবাই করি।

চলচ্চিত্রের গানের জনপ্রিয়তা আগের চেয়ে বেড়েছে বলে আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হয়। গত বছর আমি ‘এই তো প্রেম’ নামের একটা ছবির সঙ্গীত পরিচালনা করেছি। ওই ছবির গানের অ্যালবাম বাজারে এসেছে। কিন্তু সোহেল আরমানের ছবিটি এখনও মুক্তি পায়নি। এখানে দেশপ্রেমের চেতনা নিয়ে ‘জাগো বাংলাদেশ জাগো’ শিরোনামে একটা গান করেছি। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ছবির কাজটা বেশ উপভোগ করেছি। আমরা তরুণরা দেশটাকে অনেক ভালোবাসি, দেশের জন্য কিছু করতে পারলে অনেক ভালো লাগে। এই প্রতিশ্রুতি হৃদয়ে ধরে রেখে সবাইকে এগিয়ে যেতে হবে।

স্বাধীন বাংলাদেশে সঙ্গীতে বিকাশের কথা বলতে গেলে ব্যান্ড সঙ্গীতের কথা বিশেষভাবে আসে। সপ্রাণ তারুণ্য যখন খোলা মাঠে সমবেত হয়ে প্রিয় শিল্পীর গানে দুলে ওঠে তখন গানের শক্তিটা বোঝা যায়। সত্তর দশকে আজম খানসহ আরও অনেকের গড়ে দেওয়া পথে পরবর্তীতে মাইলস, আইয়ুব বাচ্চু ও এলআরবি, জেমস ব্যান্ডসঙ্গীতে তারুণ্যের প্রতীক হয়ে ওঠেন। আরও পরে আন্ডারগ্রাউন্ড ব্যান্ডের আদলে গুচ্ছ গুচ্ছ তরুণ এই ধারার গানের সঙ্গে নিজেদের সম্পৃক্ত করেন। এর মধ্যে ওয়ারফেইজ, ব্ল্যাক, আর্টসেল, শিরোনামহীন, ক্রিপটিক ফেইটসহ অসংখ্য ব্যান্ডের নাম করা যায় যারা এ ধারার গানে নিজেদের সঁপে দিয়েছেন। সব মিলিয়ে আধুনিক, ধ্রুপদী, লোকজ বা ব্যান্ড_ যে ধারার গানের কথাই বলি না কেন ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সব ধাঁচের গানেই আমি বাংলাদেশের মুখ দেখি।

লেখক : সঙ্গীতশিল্পী

[ad#bottom]

Leave a Reply