অপূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদনটিই দেখতে বললেন ফখরুদ্দীন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র-সেনা সংঘর্ষ বিষয়ে সংসদীয় কমিটির তলবের জবাবে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদন দেখার অনুরোধ করেছেন ফখরুদ্দীন আহমেদ। যদিও ওই প্রতিবেদন অপূর্ণাঙ্গ বলে মনে করে কমিটি। রোববার সংসদীয় উপ-কমিটির কাছে পাঠানো বক্তব্যে শুনানিতে আসায় অপরাগতা প্রকাশ করে এ অনুরোধ করেন সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন।

সাবেক এই উপদেষ্টা সংসদীয় কমিটির বৈঠকে আসতে না পারার কারণ বিষয়ে কিছুই উল্লেখ করেননি।

উপ-কমিটির আহ্বায়ক রাশেদ খান মেননের একান্ত সচিব নাইমুল আজম খান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে তৎকালীন সেনাপ্রধান মইন উ আহমেদ সংসদীয় কমিটির কাছে এক চিঠিতে একই পরামর্শ দেন।

সোমবার উপ-কমিটির বৈঠকে এ দুই জনের পাঠানো চিঠি উত্থাপন করা হবে বলে জানান নাইমুল।

দুই জন উপস্থিত হতে অপারগতা জানানোয় পরর্বর্তী পদক্ষেপ কী হবে- জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেনন রোববার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কাল আমাদের বৈঠক রয়েছে। সেখানেই আলোচনা করে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে।”

এর আগে ২০০৭ সালের ছাত্র বিক্ষোভের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটি।

ওই প্রতিবেদনকে অপূর্ণাঙ্গ ও অপ্রাসঙ্গিক বলেও মনে করে সংসদীয় কমিটি।

২০০৯ সালের ২০ অগাস্ট কমিটির সভাপতি রাশেদ খান মেনন সাংবাদিকদের বলেন, “বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদনটি আমাদের কাছে অপূর্ণাঙ্গ ও অপ্রাসঙ্গিক মনে হয়েছে।”

“প্রতিবেদনে এই ঘটনা কেন হয়েছে, এর সঙ্গে কারা জড়িত এসব উল্লেখ না করে ছাত্র-শিক্ষকরা রাজনীতি করবেন কি না- এ ধরনের অপ্রাসঙ্গিক বিষয়গুলোর অবতারণা করা হয়েছে। তাই এই প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয়।”

গত ২৭ ফেব্র”য়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৫ নং উপ-কমিটির চতুর্থ বৈঠকে গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে খেলার মাঠের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র, শিক্ষক ও সেনা সদস্যের মধ্যে সহিংস ঘটনার তদন্তে তৎকালীন প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমদ এবং সাবেক সেনাপ্রধান মইন উ আহমেদকে তলবের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এ প্র্রেক্ষিতে গত ২৯ মার্চ ফখরুদ্দীন সংসদীয় উপ-কমিটিতে হাজির হওয়ার চিঠি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাধ্যমে এবং মইন উ আহমেদের চিঠি সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের মাধ্যমে দেওয়া হয়।

[ad#bottom]

Leave a Reply