লোকগানের অ্যালবাম করব

সাক্ষাৎকার – হাবিব
প্রায় আড়াই বছর পর প্রকাশ হতে যাচ্ছে হাবিবের তৃতীয় একক অ্যালবাম ‘আহ্বান’। মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বাংলালিংকের পৃষ্ঠপোষকতায় অ্যালবামটি আসছে। এ প্রসঙ্গসহ অন্যান্য বিষয়ে কথা বলেছেন হাবিব

এবারের অ্যালবামটি কেমন হবে?
‘আহ্বান’ আমার তৃতীয় একক অ্যালবাম। এতে গান লিখেছেন ইলিয়াস মোল্লা, সাকি আহমেদ, মাহবুব মতিন এবং আমার বাবা ফেরদৌস ওয়াহিদ। এ ছাড়া এ অ্যালবামের দু’টি গানে সহশিল্পী হিসেবে রয়েছেন ন্যান্সি এবং কণা। আর বোনাস ট্র্যাক হিসেবে থাকছে বাবা ফেরদৌস ওয়াহিদের গাওয়া ‘ও মিষ্টি মেয়ে’ শিরোনামের একটি গান। প্রায় আড়াই বছর পর এ অ্যালবামটি প্রকাশ করলাম। নানা কাজের কারণে এতটা দেরি হয়েছে। আমি চেষ্টা করেছি গানগুলো শ্রোতাদের ভালো লাগার উপযোগী করে তৈরি করতে পেরেছি।

এবারের গানের ধরন কেমন?
প্রতিটি শিল্পীরই নিজস্ব একটা স্টাইল থাকে। আমারও তাই। এবারের গানগুলোও আমি আমার মতো করে তৈরি করেছি। আমার ভক্ত-শ্রোতারা গানগুলো ভালোভাবেই উপভোগ করবে বলে বিশ্বাস।

পরের প্রজেক্ট কি?
এখন আপাতত বাবার চলচ্চিত্রটি নিয়ে ব্যস্ত। আমার পরের প্রজেক্ট হচ্ছে একটি লোকগানের অ্যালবাম করা। আশা আছে এ অ্যালবামে লোকজ শিল্পীর সঙ্গে আমি গান করব। প্রাথমিক পর্যায়ে আমি গান বাছাই করছি। গান বাছাই শেষ হলে কাজে হাত দেব।

বর্তমানে আমাদের সংগীতাঙ্গনে নতুন কয়েকজন মিউজিশিয়ান আসছেন। বিষয়টি আপনি কিভাবে দেখছেন।
আমাদের বাংলা গানের শিকড় অনেক গভীরে। এ দেশের ভাণ্ডারে হরেক রকম গান আছে। ভাওয়াইয়া, ভাটিয়ালি, জারি, সারি, মুর্শিদি, ভাণ্ডারি, লালনগীতিসহ আরও অসংখ্য ধারার গান আছে আমাদের। ফকির লালন সাঁই, হাছন রাজা, রাধারমণ, আবদুল আলীম, আব্বাস উদ্দিন, দুরবীন শাহ, আরকুম শাহ, শাহ আবদুল করিম_ যারা করেছিলেন আমাদের সংগীতকে সমৃদ্ধ। আর এ খোঁজ পেতে হলে আমাদের সংগীতাঙ্গনে তরুণ অনেক মিউজিশিয়ানের দরকার আছে।

আগের দিনে লোকজ সংগীত গাওয়া হতো এক ধরনের পরিবেশে আর এখন তা গাওয়া হয় অন্য পরিবেশে। এতে গানের কোনো পার্থক্য হয় কি?
সর্বকালে সব ধরনের সুরের মূর্ছনা মানুষকে কাছে টেনেছে। সে জন্যই হয়তো যুগে যুগে শিল্পীরা আপন করেছেন বাউলিয়ানাকে। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না, বটগাছের তলায় বসে ডুগডুগি আর একতারা দিয়ে গান করা আর এখন সাউন্ডপ্রুফ রুমে গান করার মধ্যে অনেক পার্থক্য আছে। লোকজ আবহে যারা কাজ করছেন তারা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখেন।

সংগীতকে অনেকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে কিছু বলুন।
এক সময় মানুষ গান করত হৃদয়ের টানে। আর এখন অনেকে গানকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন। অভিভাবকরাও তাদের ছেলেমেয়েকে গানের প্রতি উৎসাহ দিচ্ছেন। এটা আমাদের সংগীতাঙ্গনের জন্য ভালো কিন্তু অতিরিক্ত পেশাদারিত্ব ভালো নয়। প্রযুক্তির ফলে মানুষের কাছে অনেক কিছুই সহজ এখন। এতে একজন উপকৃত হলেও অন্যজন বিপাকে পড়ছেন। মুঠোফোনে গান ডাউনলোডের ফলে অডিও প্রতিষ্ঠান ও শিল্পীরা তাদের ন্যায্য প্রাপ্য বঞ্চিত হচ্ছেন। অন্যদিকে শ্রোতারা অল্প সময়ে যে কোনো গান তাদের হাতের মুঠোয় পেয়ে যাচ্ছেন।

আরও কিছু সংকটের কথা না বললেই নয়, যেমন_ শুধু গানের ওপর পড়াশোনা করার জন্য উল্লেখ করার মতো কোনো সংগীত শিক্ষালয় আমাদের দেশে নেই। গান নিয়ে পড়তে হলে শিক্ষার্থীকে বিদেশ পাড়ি জমাতে হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সরকার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

আলী আফতাব – বাংলাদেশ প্রতিদিন

[ad#bottom]

Leave a Reply