ঝুলেই গেল স্বপ্নের পদ্মা সেতু

মেয়াদেই হবে : আবুল হোসেন
আল্লাহর অসীম রহমত ছাড়া সুযোগ নেই : আনোয়ার হোসেন মঞ্জু
ঝুলে যাচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর বাস্তবায়ন! দাতাদের সঙ্গে এখনো চুক্তি কিংবা টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু না হওয়া এবং বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকার সঙ্গে সরকার এখনো বাস্তবমুখী চুক্তিতে না আসার কারণে সমস্যা তৈরি হয়েছে। এখনও পর্যন্ত দাতাদের মধ্যে কে লিড নেবেন তা চূড়ান্ত হয়নি। বিশ্বব্যাংকের দরকষাকষি অব্যাহত রয়েছে। কঠিন শর্তারোপের কারণে ঋণ পাওয়ার অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর এলেন গোল্ডস্টেইন তাদের শর্তের কথা জানিয়ে বলেন, এই শর্ত পূরণ না হলে ঋণচুক্তি স্বাক্ষর সম্ভব নয়। গত বছর সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি যোগাযোগমন্ত্রী, যোগাযোগ সচিব ও সেতু কর্তৃপক্ষকে তিনি এ কথা জানান। সরকার অবশ্য বিশ্বব্যাংকের এসব শর্ত মেনেই পদ্মা সেতু নির্মাণের আগ্রহ দেখায়। তবে বিশ্বব্যাংকের শর্তানুযায়ী কাজ করতে গেলে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ বর্তমান সরকারের শাসনামলে আদৌ শেষ করা সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে যোগাযোগ মন্ত্রণালয় আশাবাদ ব্যক্ত করলেও টেন্ডার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করতেই চলতি বছর কেটে যাবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। কারও কারও মতে, সবকিছু শেষ করে এনে কাজ শুরু করতে লেগে যেতে পারে আরও কমপক্ষে দুই বছর। সে ক্ষেত্রে পদ্মা সেতু নির্মাণ শেষ করা তো দূরের কথা শুরু করা নিয়েই সংশয়।

তবে যোগাযোগ মন্ত্রণালয় ভূমি অধিগ্রহণ এবং ক্ষতিগ্রস্তদের অর্থ প্রদানের ক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছে। জাজিরা এবং মাওয়া পয়েন্টকে ঘিরে জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু কতটুকু জমি অধিগ্রহণের বাইরে বাড়তে পারে তাও চূড়ান্ত হয়নি। কারণ একমাত্র টেন্ডার গ্রহণ প্রক্রিয়া শেষ হলেই এ বিষয়গুলো চূড়ান্তভাবে নির্ধারণ হবে।

জানা গেছে, বর্তমান সরকারের অন্যতম নির্বাচনী অঙ্গীকার ছিল এই মেয়াদেই পদ্মা সেতু নির্মাণ শেষ করা। সে অনুযায়ী সরকার ক্ষমতায় আসার পর সেতুর নির্মাণ কাজ শুরুর তারিখও দিয়েছিল যোগাযোগ মন্ত্রণালয়। ২০১১ সালের জানুয়ারিতে এই সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করে ২০১৩ সালের মধ্যে তা শেষ করার ঘোষণা দেওয়া হয়। এমনকি নির্ধারিত সময়ের চার মাস আগেই যেন সেতুর নির্মাণকাজ শেষ করা সম্ভব হয় সে জন্য জাজিরা ও মাওয়া পয়েন্ট থেকে একযোগে কাজ শুরু করার কর্মপরিকল্পনা নেওয়া হয়। কিন্তু অর্থ সংস্থান নিশ্চিত না হওয়ায় সেতু নির্মাণের তারিখ বারবার পরিবর্তন করা হয়েছে। এমনকি বিশ্বব্যাংক বিভিন্ন সময়ে নানা ধরনের শর্ত জুড়ে দিচ্ছে। এতে করে দীর্ঘসূত্রতা বাড়ছে। অন্যদিকে জাপান সরকার এখন পর্যন্ত সহায়তার আশ্বাস দিলেও কিভাবে তা সম্পন্ন হবে তার কোনো দিকনির্দেশনা দেয়নি। বরং কিছু ক্ষেত্রে শর্ত জুড়ে দিয়ে সরকারকে চিঠি দিয়েছে।

জানা যায়, বিশ্বব্যাংক শুধু তাদের অর্থ ছাড়ের ক্ষেত্রে শর্তারোপ করেই ক্ষ্যান্ত হয়নি, পদ্মা সেতু নির্মাণে এডিবি, জাইকা, আইডিবি এবং আবুধাবি ফান্ড থেকে অর্থ ছাড় করা নিয়েও আপত্তি তোলে। যদিও এসব দাতাসংস্থার পক্ষ থেকে পদ্মা সেতু নির্মাণে তারা ঋণচুক্তি করতে প্রস্তুত বলে গত বছর বাংলাদেশ সরকারকে জানিয়ে দেয়। বিশ্বব্যাংকের শর্তের কারণে আগ্রহী দাতাদের ঋণপ্রাপ্তির ক্ষেত্রেও জটিলতার সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

সূত্র মতে, পরিকল্পনা কমিশন সেতুর দুই পাশে রেলপথ নির্মাণের ব্যাপারে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবেও দেয়নি চূড়ান্ত অনুমোদন। এমনকি রেলপথের জন্য আলাদাভাবে জমি অধিগ্রহণ, অর্থের জোগান ও সমীক্ষার কাজও শুরু হয়নি। ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে ভাঙ্গা পর্যন্ত রেলপথের দূরত্ব হবে ৮৩ কিলোমিটার। সূত্র মতে, রেলপথ নির্মাণের বিষয় নিয়ে পরিকল্পনা কমিশনের সঙ্গে এখন পর্যন্ত কোনো আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়াই শুরু করেনি যোগাযোগ মন্ত্রণালয়। তবে যোগাযোগমন্ত্রী দাবি করেছেন পরিকল্পনা কমিশন থেকে এ সংক্রান্ত প্রকল্প ইতোমধ্যেই অনুমোদিত হয়েছে।

বিশেষজ্ঞ মহল অবশ্য মনে করছে কেবলমাত্র পরিকল্পনার অভাবে সেতু চালুর সময় ঢাকা থেকে রেল যোগাযোগ আদৌ সম্ভব নাও হতে পারে।

তবে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ নিয়ে সংশয় থাকলেও যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে শুনিয়েছেন আশার কথা। যোগাযোগমন্ত্রী বলেছেন, বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (নাইজেরিয়ার সাবেক অর্থমন্ত্রী) আগামীকাল ঢাকায় আসছেন। ২৮ এপ্রিল পদ্মার ওপাড়ে ( জাজিরার অংশ) পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে বর্তমান সরকারের একটি ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর হবে। সূত্র মতে, চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানটি স্মরণীয় করে রাখতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে নেওয়া হচ্ছে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। পদ্মার বুকে ভাষা শহীদ বরকত স্টিমারে এ চুক্তি সম্পাদন করা হবে। সূত্র মতে, চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারের অনুরোধ জানিয়ে যোগাযোগ মন্ত্রী চিঠি দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রীকে।

আশঙ্কার কথা উড়িয়ে দিয়ে যোগাযোগমন্ত্রী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে আবারও বললেন, বর্তমান সরকারের মেয়াদেই পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজ শেষ হবে ইনশাল্লাহ। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন পূরণে পদ্মা সেতু নির্মাণে আমি সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছি। তবে পদ্মার ওপর সেতু নির্মাণের কাজটি দ্রুততার সঙ্গে শেষ করা একেবারে সহজ কাজ নয়।

শাবান মাহমুদ ও ফসিহ উদ্দীন মাহতাব
বাংলাদেশ প্রতিদিন

[ad#bottom]

Leave a Reply