ফখরুদ্দীন-মইনকে ফের তলবের চিঠি যাবে আজ

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির উপ-কমিটির বৈঠকে বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ ও সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল মইন উ আহমদকে ফের তলবের সিদ্ধান্ত কার্যকর হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার সংসদ সচিবালয়ের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত চিঠি ইস্যু করা হবে। ওই স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও উপ-কমিটির আহবায়ক রাশেদ খান মেননের একান্ত সচিব নাইমুল আজম খান শীর্ষ নিউজ ডটকমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সোমবার বিকেলে তিনি এ প্রসঙ্গে জানান, এবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব ও সশস্ত্রবাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারের পাশাপাশি ড. ফখরুদ্দীন ও জেনারেল মইনের যুক্তরাষ্ট্রের ঠিকানায়ও চিঠি পাঠানো হবে। একই সাথে তাদের ই-মেইল করার জন্য বলা হয়েছে। সংসদ সচিবালয়ের কমিটি শাখা-৭ এর সিনিয়র সহকারী সচিব শাহ মাহমুদ সিদ্দিক এই চিঠি দু’টি ইস্যু করবেন।

এর আগে ২০০৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্র, শিক্ষক ও সেনা সদস্যের মধ্যে সৃষ্ট সহিংসতার ঘটনা তদন্তকারী এই উপ-কমিটির ৫ম বৈঠকে ফখরুদ্দীন ও মইনকে সাক্ষ্য দিতে ডাকা হয়েছিল। এতে হাজির না হয়ে তারা পৃথক পৃথক লিখিত বক্তব্য পাঠান। গত ১৩ এপ্রিল মইন ও ১৬ এপ্রিল ফখরুদ্দীনের লিখিত বক্তব্যসংবলিত চিঠি পায় কমিটি। কিন্তু কমিটি তাতেও সন্তুষ্ট হয়নি। গত ১৮ এপ্রিল সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকেই তাদের ফের তলবের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বৈঠক পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, উল্লিখিত সহিংসতার ঘটনা প্রসঙ্গে তৎকালীন সেনাসমর্থিত সরকারের এই দুই প্রধান ক্ষমতাধর ব্যক্তির পাঠানো লিখিত বক্তব্যকে ‘অর্থহীন’ বলে মনে করছে কমিটি। এ কারণে কমিটির ৭ম বৈঠকে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দিতে তাদের ফের চিঠি দেয়া হচ্ছে। আগামী ৫ জুন এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে কমিটি সূত্রে জানা গেছে, মূলত উপ-কমিটির ‘জেরা বা জিজ্ঞাসাবাদ’ এড়াতে চাইছেন ড. ফখরুদ্দীন ও জেনারেল মইন। গত শনিবার দুপুরে শীর্ষ নিউজ ডটকম-এর সাথে আলাপকালে রাশেদ খান মেনন দাবি করেন, বৈঠকে হাজির হলে তারা (ফখরুদ্দীন-মইন) শুধু ঘটনার বর্ণনা দিয়ে দায়িত্ব এড়াতে পারতেন না। তাদের প্রতিটি সিদ্ধান্তের ব্যাখ্যা চাওয়া হতো। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘তারা যাতে এই কমিটির জিজ্ঞাসাবাদ এড়াতে না পারেন সে লক্ষ্যেই তাদের আবারো সাক্ষ্য দিতে ডাকার সিদ্ধান্ত হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, এই উপ-কমিটির ৪র্থ বৈঠকে ফখরুদ্দীন ও মইনকে প্রথমবারের মতো তলবের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকের পর কমিটির আহ্বায়ক জানিয়েছিলেন, সশস্ত্রবাহিনীর সাবেক চিফ অব জেনারেল স্টাফ সিনা ইবনে জামালী ও তৎকালীন ডিজিএফআই-এর কর্নেল ছামস বা বর্তমান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ছামসুল আলম খানের দেয়া সাক্ষ্যের ভিত্তিতে তাদের তলবের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

Leave a Reply