সরকারি শ্রীনগর কলেজের ৪০ বছর পূর্তি ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

জহুরুল ইসলাম জনি
বিক্রমপুরের শ্রীনগর সরকারি কলেজের চার দশক পূর্তি ও সাবেক ছাত্রছাত্রীদের পুনর্মিলনী গত ১৪ ও ১৫ এপ্রিল নানা কর্মসূচির মাধ্যমে পালিত হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিল ১৪ এপ্রিল বিকেলে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, কেক কাটা ও সাবেক বনাম বর্তমান ছাত্রদের প্রীতি ফুটবল খেলা। কিন্তু কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ ও ভাষাসৈনিক এম এ রশীদ গত ১১ এপ্রিল ইন্তেকাল করায় প্রথম দিনের আনন্দ উৎসব পরিহার করে বিকেলে সাবেক ছাত্রছাত্রী-শিক্ষকরা কালো ব্যাজ ধারণ করে কালো পতাকা ও ব্যানার নিয়ে শোক শোভাযাত্রা বের করেন। এরপর কলেজ প্রাঙ্গণে পুনর্মিলনী উদ্যাপন পরিষদের আহ্বায়ক মো. জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। শোকসভায় অধ্যক্ষ এম এ রশীদের স্মৃতির প্রতি সম্মান দেখিয়ে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়। তাঁর কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে শোকসভায় বক্তৃতা করেন শ্রীনগর কলেজের সাবেক অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হাবিবুল্লাহ, উদ্যাপন পরিষদের সদস্যসচিব তোফাজ্জল হোসেন, অর্থসচিব এস এম এ খালেক ও এস এম হারুন-উর-রশীদ।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন ১৫ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১০টায় ফেস্টুন ও বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ। মো. জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী ও সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ ও কলেজের সাবেক ছাত্রী ঢাকা-৪ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম কিবরিয়া। সদস্যসচিবের প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন মো. তোফাজ্জল হোসেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন সাবেক অধ্যক্ষ বখশী জাহাঙ্গীর আলী মিয়া, সাবেক উপাধ্যক্ষ হারুন-উর-রশীদ খান, সাবেক অধ্যাপক ধীরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্য ও শ্রীনগর সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা আবদুল হাই খান, কলেজের সাবেক ছাত্রদের পক্ষে শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন ঢালী, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রধান পরিকল্পনা কর্মকর্তা সাগর কৃষ্ণ চক্রবর্তী, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিজিএম আওলাদ হোসেন চৌধুরী ও কলেজের প্রথম ছাত্রী গীতা রানী রায় চৌধুরী।
কলেজের প্রথম উপাধ্যক্ষ হারুন-উর-রশীদ সম্মাননা ক্রেস্ট গ্রহণ করছেন উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক মো. জয়নাল আবেদীন।

মধ্যাহ্নভোজের পর বিকেল ৩টায় দ্বিতীয় পর্বে শুরু হয় সাবেক ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের স্মৃতিচারণা, সম্পাদনা ও ক্রেস্ট প্রদান এবং সন্ধ্যায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। স্মৃতিচারণা করেন অধ্যাপক সৈয়দ আশরাফ আলী, সাবেক ছাত্র দেওয়ান নাসিরুল হক, ইসমাইল হোসেন ঢালী, আবদুল গাফফার, শাহনাজ খাতুন প্রমুখ। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সাংস্কৃতিক উপপরিষদের শিল্পী ছাড়াও দেশের বিশিষ্ট শিল্পী তানিয়া ও শশী অংশ নেন।

কলেজের ৪০ বছর পূর্তি ও সাবেক ছাত্রছাত্রী পুনর্মিলনী উপলক্ষে স্মরণিকা উপপরিষদের আহ্বায়ক আবদুল গাফফারের তত্ত্বাবধানে এবং দেওয়ান সাইয়েদুল হক মনুর সম্পাদনায় একটি তথ্যবহুল দৃষ্টিনন্দন স্মরণিকা প্রকাশিত হয়।

Leave a Reply