ভূমিকম্প ও সুনামিতে বিপর্যস্তদের সাহায্যার্থে বাংলাদেশ কমিউনিটি

রাহমান মনি
আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা কিংবা মধ্যপ্রাচ্যে বসবাসরত প্রবাসীদের তুলনায় জাপান প্রবাসীর সংখ্যা খুবই সামান্য। সেসব দেশে যেখানে লাখ লাখ প্রবাসী বাস করছেন, সেখানে জাপান প্রবাসীর সংখ্যা মাত্র ১২০০০ এর মতো প্রায়। সংখ্যার দিক থেকে শতকরা হিসেবে তাদের কাছে দাঁড়াবার নয়। কিন্তু সংখ্যাতত্ত্ব দিয়ে যে সাফল্যের হিসাব মূল্যায়ন হয় না তা আবারও প্রমাণ করেছে জাপান প্রবাসীরা। জাপান প্রবাসীদের সাফল্য অনেক। যে কোনো প্রবাসী কমিউনিটির জন্য ঈর্ষণীয়। ইতোমধ্যে সম্মিলিতভাবে প্রতিষ্ঠা করেছে টোকিও শহীদ মিনার। আয়োজন করছে টোকিও বৈশাখী মেলা, বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যাল কিংবা প্রবাস প্রজন্মের মতো সফল অনুষ্ঠানের। প্রবাসী কমিউনিটির মধ্যে একমাত্র জাপান প্রবাসী, যেখানে আওয়ামী লীগ-বিএনপি এক টেবিলে বসে সম্মিলিত সিদ্ধান্ত নিতে পারে। ইফতার, পূজা, বড়দিন কিংবা প্রবারণা পূর্ণিমার মতো কোনো ধর্মীয় আয়োজনে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের সক্রিয় উপস্থিতি এবং সহযোগিতা আয়োজনকে উৎসবমুখর এবং প্রাণবন্ত করে তোলে।

অনেক সাফল্যের সঙ্গে আরো একটি সফল আয়োজন করে সাফল্যের মালায় আরো একটি নক্ষত্র যোগ করেছে। জাপানের দুর্যোগের সময় বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা দিয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়ে যে দুর্নাম করেছিল সেই একই দেশের নাগরিকরা মহতী আয়োজন করে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছে। জাপান প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটি সম্মিলিতভাবে দুর্যোগের সময় জাপানিদের পাশে দাঁড়িয়েছে। সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে এবং জাপান পুনর্গঠনে অবদান রাখছে। ১১ মার্চ ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট সুনামিতে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে এক চ্যারিটি কনসার্ট এবং ছবি প্রদর্শনীর আয়োজন করে অর্থ তহবিল সংগ্রহ করেছে সম্মিলিতভাবে।

৩ এপ্রিল রোববার টোকিওর তাকিনোগাওয়া কাইকানে আয়োজিত চ্যারিটি কনসার্ট এবং ছবি প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টোকিওতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত একেএম মজিবুর রহমান ভূঁইয়া। উপস্থিত ছিলেন জাপান-বাংলাদেশ পার্লামেন্টারি ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটির ভাইস প্রেসিডেন্ট জাপান ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতা আকিরা ইশিই এমপি, জাপান ফরেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মনজুরুল হক, স্থানীয় প্রশাসন কর্মকর্তা, জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, প্রবাসী বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক, ব্যবসায়িক, ধর্মীয়, শিশু সংগঠন নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন মিডিয়া, টিভি চ্যানেল কর্মীগণসহ বহুসংখ্যক জাপানি গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং জাপানসহ অন্যান্য দেশের নাগরিকবৃন্দ এবং বিপুলসংখ্যক প্রবাসী।

সলিমুল্লা কাজলের নির্দেশনায় অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন নিয়াজ আহমেদ জুয়েল, রাহমান মাহিনুর আইকো ইফা, তাকাহাশি মারিকো এবং জুয়েল আহসান কামরুল। পুরো অনুষ্ঠান জাপানিজ, বাংলা এবং ইংলিশে প্রয়োজনীয় অংশগুলো ভাষান্তর করা হয়। দুর্গতদের জন্য সহায়তার আহ্বান জানিয়ে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মনজুরুল হক, জিয়াউল ইসলাম জিয়া, মীর রেজাউল করিম রেজা, আবু হোসেন রনি, বাদল চাকলাদার রকি, মুনশী কে আজাদ, আকিরা কামিকাওয়া, আকিরা ইশিই (এমপি) এবং রাষ্ট্রদূত একেএম মজিবুর রহমান ভূঁইয়া প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বক্তব্যের শুরুতে ১১ মার্চ ভূমিকম্প এবং সুনামিতে মৃত এবং নিখোঁজদের স্মরণে এবং তাদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

জাপান ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী এমপি আকিরা ইশিই বাংলাদেশিদের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটি জাপানের জন্য, জাপান জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য যে উদ্যোগ নিয়ে আজকের এই চ্যারিটি কনসার্ট ও ছবি প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। আমি জাপান সরকার, আমার দল এবং জাপানি জনগণের পক্ষ থেকে আপনাদের ধন্যবাদ জানাই এবং সেই সঙ্গে কৃতজ্ঞতা জানাই। আমি গত বছর নবেম্বর মাসে ৪ সদস্য নিয়ে বাংলাদেশ গিয়েছিলাম। সেখানেও দেখেছি বাংলাদেশিরা জাপানকে কত ভালোবাসে। আমি বাংলাদেশি শিশুদের নিয়ে তাদের জন্য কাজ করতে চাই। বাংলাদেশের সুপেয় পানির মান উন্নয়নে কাজ করার ইচ্ছা রাখি। আপনাদের সহযোগিতা পেলে জাপান-বাংলাদেশ ভ্রাতৃত্ব বন্ধন আরো দৃঢ় হবে বলে আমার বিশ্বাস। আপনাদের এই আয়োজনের কথা আমি জাপান সরকারের উচ্চপর্যায়ে জানিয়ে দিব যে, প্রবাসী বাংলাদেশিরা কত মহতী আয়োজন করেছে।

রাষ্ট্রদূত একেএম মজিবুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, জাপানের ইতিহাসে ভয়াবহ ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট সুনামিতে নিহত, নিখোঁজ, আহত এবং ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি বাংলাদেশ সরকার, বাংলাদেশের জনগণ, প্রবাসী বাংলাদেশি এবং বাংলাদেশ দূতাবাস ও আমার ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা জানাচ্ছি হৃদয়ের গভীর থেকে। আপনারা জানেন দুর্যোগের পর পরই আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের পক্ষ থেকে গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন, বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে ২০ মার্চ সর্বসম্মত শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে, সরকার তার সাধ্যমতো ত্রাণসামগ্রী পাঠিয়েছে। এগুলো সবই হলো জাপান এবং জাপানি জনগণের জন্য বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশিদের গভীর ভালোবাসার নিদর্শন। জাপান সরকার তা গ্রহণ করেছে এবং ধন্যবাদও জানিয়েছে। এরপর রাষ্ট্রদূত ভূমিকম্প-পরবর্তী দূতাবাসের বিভিন্ন পদক্ষেপের বর্ণনা দিয়ে এক নাতিদীর্ঘ বক্তব্য রাখেন।

বক্তব্য পর্বের পর ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে অর্থ সংগ্রহের ঘোষণা দিলে রাষ্ট্রদূত, দূতাবাস কর্মকর্তাগণ এবং অন্যান্য বরেণ্য মুরব্বিগণ অর্থ সংগ্রহের জন্য দানবাক্স হাতে সারিবদ্ধভাবে মঞ্চেও দণ্ডায়মান হন। এই সময় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে এবং ব্যক্তিগতভাবে সহায়তার হাত সম্প্রসারিত করেন। অনেক জাপানি জনগণও বাংলাদেশিদের আয়োজনে সাড়া দেন। শৃঙ্খলার সঙ্গে সারিবদ্ধভাবে সবাই নগদ অর্থ প্রদান করে। তাৎক্ষণিকভাবে মোট ১১৭৭০৭২ ইয়েন জমা হয়। যে সকল প্রতিষ্ঠান, সংগঠন বা ব্যক্তি নাম লিখে জমা দিয়েছেন তারা হলেন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের মধ্যে বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ সমিতি জাপান, মুনশীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপান, বৃহত্তর ময়মনসিংহ সোসাইটি জাপান, স্বরলিপি কালচারাল একাডেমি জাপান। অন্য সংগঠনগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল জাপান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাপান, সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান, বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ জাপান, জাপান-বাংলাদেশ সোসাইটি (জেবিসি), কামাতা মামালা, প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রোরিং কোম্পানি লি., এনকে ইন্টারন্যাশনাল, সাদিয়াটেক মাল্টিমিডিয়া, হাট কো. লি., ক্রোস করপোরেশন, শাপলা ইন্টারন্যাশনাল প্রভৃতি। অনেকে আবার নাম না লিখে অর্থ প্রদান করেন। নির্দিষ্ট দিনের পরও যোগাযোগ করে আরো ২৩০০০ ইয়েন সংগ্রহ হয়। মোট অর্থের পরিমাণ দাঁড়ায় ১২০০০৭২ ইয়েন। অর্থ প্রদান করেন দূতাবাস কর্মকর্তাগণও।

অর্থ সংগ্রহের পর স্থানীয় প্রবাসীদের দ্বারা পরিচালিত এবং প্রবাসীদের প্রিয় সাংস্কৃতিক দল উত্তরণ কনসার্ট পরিচালনা করে। ভূমিকম্প ও সুনামির উপর যেরোম গোমেজের রচনা ও সুরে একটি গান উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের মুগ্ধ করে।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত, মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত এবং নুসরাত ইমরোজ তিশা অভিনীত পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা ছায়াছবি ‘থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার’ বড় পর্দায় প্রদর্শিত হয়। দর্শকরা মুগ্ধ হয়ে ছবিটি উপভোগ করেন সংগ্রহকৃত অর্থের পুরোটাই ক্ষতিগ্রস্তদের কল্যাণে ব্যবহার করার জন্য জাপান রেডক্রসের কাছে হস্তান্তর করা হয়। রেডক্রসের চারজন কর্মকর্তা বাংলাদেশ কমিউনিটি প্রদানকৃত অর্থ গ্রহণ করেন। ৯ এপ্রিল শনিবার এই অর্থ হস্তান্তরের সময় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এমডি এস ইসলাম নান্নু, কাজী মাহফুজুল হক লাল, ছালেহ মো. আরিফ, মো. ফেরদৌস, মীর রেজাউল করিম রেজা, খন্দকার আসলাম হীরা, বাদল চাকলাদার, ফজলে মাহমুদ মুক্তা, মোল্লা অহিদুল ইসলাম, সানাউল হক এবং রাহমান মনি প্রমুখ। সংগৃহীত অর্থ জাপান রেডক্রস কৃতজ্ঞতার সঙ্গে গ্রহণ করে এবং বাংলাদেশ কমিউনিটিকে অশেষ ধন্যবাদ জানায়।

পুরো আয়োজনটির মিডিয়া পার্টনার ছিল সাপ্তাহিক এবং সহযোগিতায় চ্যানেল আই। সাপ্তাহিক ঘোষণা দিয়েছিল স্বচ্ছতার জন্য দাতাদের সকলের নাম এবং অর্থের পরিমাণ সাপ্তাহিক-এর ওয়েবসাইটে দেয়া হবে। কিন্তু কমিউনিটির আপত্তি থাকাতে তা সম্ভব হচ্ছে না। তাছাড়া অনেকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছেন। কেউ আবার নামই দেননি।
এই মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে জাপানিরা যেমন বলেছে ‘সাবাস বাংলাদেশ’, তেমনি বাংলাদেশ কমিউনিটি থেকেও শুধু একটি কথাই বলা হয়েছে ‘গানবারে নিপ্পন’, আমরা তোমাদের সঙ্গে আছি।

rahmanmoni@shaptahik.com

Leave a Reply