তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নতুন ফর্মুলা বি চৌধুরীর

এবার তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নতুন ফর্মুলা দিলেন সাবেক রাষ্ট্রপ্রতি ও বিকল্প ধারা বাংলাদেশের চেয়ারম্যান অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। তিনি রাষ্ট্রপতিকে প্রধান করে সরকারী দল ও বিরোধী দলের সমন্বয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনে প্রস্তাব দেন। এতে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের দলীয় ৫ জন এমপি ও বিরোধীদলীয় নেতাসহ তাঁর দলের ৫ জন নির্বাচিত প্রতিনিধিসহ মোট ১১ জন নিয়ে এ সরকার গঠন করতে হবে। পরবর্তী তিন মাসের মধ্যে এই নতুন সরকার নির্বাচন সম্পন্ন করবে। সংবিধান সংশোধনে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ও বিস্মিল্লাহির রাহ্মানির রাহিম পরিবর্তন করলে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হতে পারে বলে মত দেন।

শুক্রবার দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দলের নির্বাহী কমিটির বৈঠকে তিনি এ বিষয়ে তাঁর মতামত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, সংবিধান সংশোধন ও ছাপানোর অধিকার একমাত্র জাতীয় সংসদের হাতে রয়েছে। কোনক্রমেই সংসদের এই অধিকার ৰুণ্ন করা যাবে না। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ ব্যক্তি রাষ্ট্রপতিকে জাতীয় সংসদ অভিশংসন করার ক্ষমতা রাখে তা হলে সমসত্ম বিচারকসহ রাষ্ট্রের কর্ণধার যে কোন ব্যক্তিকেও অভিশংসনের ৰমতা জাতীয় সংসদের থাকবে হবে। তিনি বলেন, ড. ইউনূস দেশের অহঙ্কার এবং একমাত্র নোবেল বিজয়ী। তাকে যেভাবে অপমান করা হয়েছে তাতে জাতি হিসেবে পৃথিবীর কাছে লজ্জিত এবং ছোট হয়ে যাচ্ছি। বিষয়টি সরকারের উপলব্ধি করা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, গ্যাস, বিদ্যুত সমস্যা সমাধানে এবং দ্রব্যমূল্যে উর্ধগতি রোধ করতে ব্যর্থ হয়ে সরকার তার নির্বাচনী অঙ্গীকার লঙ্ঘন করেছে। দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে না নিলে জনগণের ক্ষোভ রোধ করা সম্ভব হবে না। সরকারী দলের উঁচু থেকে নিচু পর্যন্ত দুর্নীতি-সন্ত্রাস বন্ধ না করলে দেশ থেকে সন্ত্রাস-দুর্নীতি বন্ধ করা যাবে না। দুর্নীতি দমন কমিশনের ৰমতা কোনক্রমেই হ্রাস করা যাবে না। শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারিদের বিরম্নদ্ধে তিনি শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান।

[ad#bottom]

Leave a Reply